BDpress

শিক্ষা ছাড়া জাতির উন্নয়ন সম্ভব নয়: নুরুল ইসলাম

নিজস্ব প্রতিবেদক

অ+ অ-
শিক্ষা ছাড়া জাতির উন্নয়ন সম্ভব নয়: নুরুল ইসলাম
প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি বলেছেন, শিক্ষা ছাড়া জাতির উন্নয়ন সম্ভব নয়, যে জাতি যত শিক্ষিত সে জাতি তত উন্নতি লাভ করবে। চট্টগ্রাম অঞ্চলের শিক্ষা বিস্তারে আমি ব্যক্তিগত উদ্যোগে ২৯টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছি।

প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি চিটাগাং কিন্ডারগার্টেন ও হাজেরা-তজু স্কুল এন্ড কলেজ এর  উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, আজ আরো ২টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নতুনভাবে যাত্রা শুরু করেছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয়ে বর্তমান সরকারে যাত্রা শুরু হয়েছিলো আর তা আজ বাস্তবে রুপ লাভ করেছে। প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সফলতা তুলে ধরে তিনি বলেন, আমি মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব গ্রহণের পর কর্মী প্রেরণের সংখ্যা অনেক বৃদ্ধি করতে সক্ষম হয়েছি। ২০১৬ সালে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ৭ লাখ ৫৭ হাজার ৭শত ৩১জন কর্মীর বিদেশে কর্মসংস্থান হয়েছে। ২০১৫ সালের তুলনায় ২০১৬ সালে ৩৬.৩১ শতাংশ বেশি কর্মীর বিদেশে কর্মসংস্থান হয়েছে।
 
প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি আরো বলেন, চট্টগ্রাম জেলার জনগণের অধিক বৈদেশিক কর্মসংস্থানের সুযোগের কথা বিবেচনা করে আমরা চট্টগ্রাম নগরীর বাকলিয়ায় ২৫ কোটি টাকা ব্যয়ে ০১টি ইনস্টিটিউট অব মেরিন টেকনোলজী স্থাপনের কার্যক্রম শুরু করেছি। বহির্গমন ছাড়পত্র ও স্মার্টকার্ড গ্রহণ করার জন্য বিদেশগামীদের ঢাকাস্থ বিএমইটি অফিসে আসতে হতো, যা বিদেশগামীদের জন্য ব্যয়বহুল ও সময় সাপেক্ষ ব্যাপার। আমি তাই বিকেন্দ্রীকরণের অংশ হিসেবে চট্টগ্রাম ও সিলেট থেকে সরাসরি বহির্গমন ছাড়পত্র ও স্মার্ট কার্ড প্রদান শুরু করেছি। বিএমইটি ঢাকার পাশাপাশি চট্টগ্রাম, কক্সাবাজার, কুমিল্লা, সিলেট, রংপুর, যশোর ও বরিশাল থেকে বিদেশ গমনেচ্ছু কর্মীদের ফিঙ্গার প্রিন্ট কার্যক্রম শুরু করা হয়েছে। এছাড়াও অসুস্থ, মৃত কর্মী ও তাদের পরিবারের সেবা প্রদানের লক্ষ্যে চট্টগ্রাম বিমানবন্দর হতে একটি এম্বুলেন্স সার্ভিস যুক্ত করা হয়েছে। তিনি আরো বলেন, প্রবাসী কর্মী ও তাদের পরিবারের জীবনমানের উন্নয়ন ও বহুমুখী কল্যাণ নিশ্চিত করার লক্ষ্যে ‘প্রবাসী কল্যাণ বোর্ড আইন ২০১৭’ প্রণয়ন প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। বিদেশ গমনেচ্ছুক কর্মীদের শতভাগ বীমার আওতায় আনাসহ প্রবাসী কর্মীদের সন্তানদের জন্য আবাসিক স্কুল প্রতিষ্ঠা উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। প্রবাসী কর্মী ও তাদের পরিবার পরিজনের সু-চিকিৎসার জন্য বিশেষায়িত হাসপাতাল তৈরি পরিকল্পনা রয়েছে।

চিটাগাং কিন্ডারগার্টেন ও হাজেরা-তজু স্কুল এন্ড কলেজ  এর প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ও সানোয়ারা গ্রুপ অব কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মুজিবুর  রহমানের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সানোয়ারা গ্রুপ অব কোম্পানির চেয়ারম্যান সানোয়ারা বেগম, চট্টগ্রাম প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. রফিকুল আলম, প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব ও মন্ত্রীর একান্ত সচিব মু. মোহসিন চৌধুরী, সানোয়ারা গ্রুপের পরিচালক সাইফুল ইসলাম, জাহেদুল ইসলাম, কামরুল ইসলাম, শাকিলা জাহান, আন্তর্জাতিক ইসলামি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মীর এজহারুল হোসাইন, দৈনিক বীর চট্টগ্রাম মঞ্চের সম্পাদক সৈয়দ ওমর ফারুক, হাজেরা-তজু বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের অধ্যক্ষ দবির উদ্দিন খান, দিলোয়ারা জাহান মেমোরিয়াল স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ মারুফুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, বিশিষ্ট সমাজসেবক মাতব্বর আবদুল মোমেন, ৪নং চান্দগাঁও ওয়ার্ড কাউন্সিলর সাইফুদ্দিন খালেদ, হাজেরা-তজু বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের উপাধ্যক্ষ কুতুব উদ্দিন, হাজেরা-তজু স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ সেলিমুজ্জামান, চিটাগাং কিন্ডার গার্টেনের অধ্যক্ষ ফাতেমা বেগম, মন্ত্রীর নাতনী সিহিন্থা সাবিন রহমান, অভিভাবকদের পক্ষে খায়রুননেছা দিনা প্রমুখ। উপস্থিত ছিলেন নগর আওয়ামীলীগ নেতা জামশেদুল আলম চৌধুরী, জাফর আহমেদ, হাজী মোনাফ সওদাগর।

সভাপতির বক্তব্যে  প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠিতা ও সানোয়ারা গ্রুপ অব কোম্পানীর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মজিবুর রহমান বলেন, আমি আমার বাবার হাত ধরে এতো দূর পর্যন্ত এসেছি। আমার বাবা সারা জীবন মানব জাতির অমূল্য সম্পদ শিক্ষা নিয়ে কাজ করেছেন। আমার দৃষ্টিতে তিনি একজন শ্রেষ্ঠ শিক্ষা কারিগর। আমি আমার বাবা আদর্শকে ধরে বাকি জীবন চলতে চাই। আমার বাবার শিক্ষায় শিক্ষা নিয়ে আমি আজ যে দুটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শুরু করছি তার সাফল্যের জন্য সকলের কাছে দোয়া চাই।
   
বিশেষ অথিতির বক্তব্যে সানোয়ারা গ্রুপ অব কোম্পানির চেয়ারম্যান সানোয়ারা বেগম বলেন, মানুষের কল্যাণের জন্য শিক্ষার বিকল্প নেই। শিক্ষাই আনতে পারে শান্তি, প্রগতি ও সমৃদ্ধি। বিশেষ অতিথি মন্ত্রণালয়ের যুগ্মসচিব মুঃ মোহসিন চৌধুরী বলেন,  চট্টগ্রাম তথা সারা দেশের শিক্ষাসহ সার্বিক উন্নয়নে মন্ত্রী নরুল ইসলাম বিএসসি’র ভূমিকা অতুলনীয়। তিনি চট্টগ্রামবাসীর একজন পরম বন্ধু। তার হাত দিয়ে আজ যে দুটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সূচনা হচ্ছে তা চট্টগ্রামবাসীর জন্য একটি মাইল ফলক। আমি সদ্য প্রতিষ্ঠিত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সার্বিক সাফল্য কামনা করছি। উল্লেখ্য যে, ২ একর জমি উপর তিনতলা বিশিষ্ট ভবনে চিটাগাং কিন্ডারগার্টেন ও হাজেরা-তজু স্কুল এন্ড কলেজ  প্রতিষ্ঠা করা হয়। প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসবি’র ব্যক্তিগত উদ্যোগে নতুন ২টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও পূর্বের ২৯টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসহ মোট ৩১টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান তৈরি করেছেন।
   
অনুষ্ঠান সঞ্চালনায় ছিলেন হাজেরা তজু বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের ইংরেজি বিভাগের অধ্যাপক মোঃ আবু বকর সিদ্দিকী। এছাড়াও অনুষ্ঠানে এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও প্রিন্ট-ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

এ সম্পর্কিত অন্যান্য খবর

BDpress

শিক্ষা ছাড়া জাতির উন্নয়ন সম্ভব নয়: নুরুল ইসলাম


শিক্ষা ছাড়া জাতির উন্নয়ন সম্ভব নয়: নুরুল ইসলাম

প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি চিটাগাং কিন্ডারগার্টেন ও হাজেরা-তজু স্কুল এন্ড কলেজ এর  উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, আজ আরো ২টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নতুনভাবে যাত্রা শুরু করেছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয়ে বর্তমান সরকারে যাত্রা শুরু হয়েছিলো আর তা আজ বাস্তবে রুপ লাভ করেছে। প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সফলতা তুলে ধরে তিনি বলেন, আমি মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব গ্রহণের পর কর্মী প্রেরণের সংখ্যা অনেক বৃদ্ধি করতে সক্ষম হয়েছি। ২০১৬ সালে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ৭ লাখ ৫৭ হাজার ৭শত ৩১জন কর্মীর বিদেশে কর্মসংস্থান হয়েছে। ২০১৫ সালের তুলনায় ২০১৬ সালে ৩৬.৩১ শতাংশ বেশি কর্মীর বিদেশে কর্মসংস্থান হয়েছে।
 
প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি আরো বলেন, চট্টগ্রাম জেলার জনগণের অধিক বৈদেশিক কর্মসংস্থানের সুযোগের কথা বিবেচনা করে আমরা চট্টগ্রাম নগরীর বাকলিয়ায় ২৫ কোটি টাকা ব্যয়ে ০১টি ইনস্টিটিউট অব মেরিন টেকনোলজী স্থাপনের কার্যক্রম শুরু করেছি। বহির্গমন ছাড়পত্র ও স্মার্টকার্ড গ্রহণ করার জন্য বিদেশগামীদের ঢাকাস্থ বিএমইটি অফিসে আসতে হতো, যা বিদেশগামীদের জন্য ব্যয়বহুল ও সময় সাপেক্ষ ব্যাপার। আমি তাই বিকেন্দ্রীকরণের অংশ হিসেবে চট্টগ্রাম ও সিলেট থেকে সরাসরি বহির্গমন ছাড়পত্র ও স্মার্ট কার্ড প্রদান শুরু করেছি। বিএমইটি ঢাকার পাশাপাশি চট্টগ্রাম, কক্সাবাজার, কুমিল্লা, সিলেট, রংপুর, যশোর ও বরিশাল থেকে বিদেশ গমনেচ্ছু কর্মীদের ফিঙ্গার প্রিন্ট কার্যক্রম শুরু করা হয়েছে। এছাড়াও অসুস্থ, মৃত কর্মী ও তাদের পরিবারের সেবা প্রদানের লক্ষ্যে চট্টগ্রাম বিমানবন্দর হতে একটি এম্বুলেন্স সার্ভিস যুক্ত করা হয়েছে। তিনি আরো বলেন, প্রবাসী কর্মী ও তাদের পরিবারের জীবনমানের উন্নয়ন ও বহুমুখী কল্যাণ নিশ্চিত করার লক্ষ্যে ‘প্রবাসী কল্যাণ বোর্ড আইন ২০১৭’ প্রণয়ন প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। বিদেশ গমনেচ্ছুক কর্মীদের শতভাগ বীমার আওতায় আনাসহ প্রবাসী কর্মীদের সন্তানদের জন্য আবাসিক স্কুল প্রতিষ্ঠা উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। প্রবাসী কর্মী ও তাদের পরিবার পরিজনের সু-চিকিৎসার জন্য বিশেষায়িত হাসপাতাল তৈরি পরিকল্পনা রয়েছে।

চিটাগাং কিন্ডারগার্টেন ও হাজেরা-তজু স্কুল এন্ড কলেজ  এর প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ও সানোয়ারা গ্রুপ অব কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মুজিবুর  রহমানের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সানোয়ারা গ্রুপ অব কোম্পানির চেয়ারম্যান সানোয়ারা বেগম, চট্টগ্রাম প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. রফিকুল আলম, প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব ও মন্ত্রীর একান্ত সচিব মু. মোহসিন চৌধুরী, সানোয়ারা গ্রুপের পরিচালক সাইফুল ইসলাম, জাহেদুল ইসলাম, কামরুল ইসলাম, শাকিলা জাহান, আন্তর্জাতিক ইসলামি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মীর এজহারুল হোসাইন, দৈনিক বীর চট্টগ্রাম মঞ্চের সম্পাদক সৈয়দ ওমর ফারুক, হাজেরা-তজু বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের অধ্যক্ষ দবির উদ্দিন খান, দিলোয়ারা জাহান মেমোরিয়াল স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ মারুফুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, বিশিষ্ট সমাজসেবক মাতব্বর আবদুল মোমেন, ৪নং চান্দগাঁও ওয়ার্ড কাউন্সিলর সাইফুদ্দিন খালেদ, হাজেরা-তজু বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের উপাধ্যক্ষ কুতুব উদ্দিন, হাজেরা-তজু স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ সেলিমুজ্জামান, চিটাগাং কিন্ডার গার্টেনের অধ্যক্ষ ফাতেমা বেগম, মন্ত্রীর নাতনী সিহিন্থা সাবিন রহমান, অভিভাবকদের পক্ষে খায়রুননেছা দিনা প্রমুখ। উপস্থিত ছিলেন নগর আওয়ামীলীগ নেতা জামশেদুল আলম চৌধুরী, জাফর আহমেদ, হাজী মোনাফ সওদাগর।

সভাপতির বক্তব্যে  প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠিতা ও সানোয়ারা গ্রুপ অব কোম্পানীর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মজিবুর রহমান বলেন, আমি আমার বাবার হাত ধরে এতো দূর পর্যন্ত এসেছি। আমার বাবা সারা জীবন মানব জাতির অমূল্য সম্পদ শিক্ষা নিয়ে কাজ করেছেন। আমার দৃষ্টিতে তিনি একজন শ্রেষ্ঠ শিক্ষা কারিগর। আমি আমার বাবা আদর্শকে ধরে বাকি জীবন চলতে চাই। আমার বাবার শিক্ষায় শিক্ষা নিয়ে আমি আজ যে দুটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শুরু করছি তার সাফল্যের জন্য সকলের কাছে দোয়া চাই।
   
বিশেষ অথিতির বক্তব্যে সানোয়ারা গ্রুপ অব কোম্পানির চেয়ারম্যান সানোয়ারা বেগম বলেন, মানুষের কল্যাণের জন্য শিক্ষার বিকল্প নেই। শিক্ষাই আনতে পারে শান্তি, প্রগতি ও সমৃদ্ধি। বিশেষ অতিথি মন্ত্রণালয়ের যুগ্মসচিব মুঃ মোহসিন চৌধুরী বলেন,  চট্টগ্রাম তথা সারা দেশের শিক্ষাসহ সার্বিক উন্নয়নে মন্ত্রী নরুল ইসলাম বিএসসি’র ভূমিকা অতুলনীয়। তিনি চট্টগ্রামবাসীর একজন পরম বন্ধু। তার হাত দিয়ে আজ যে দুটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সূচনা হচ্ছে তা চট্টগ্রামবাসীর জন্য একটি মাইল ফলক। আমি সদ্য প্রতিষ্ঠিত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সার্বিক সাফল্য কামনা করছি। উল্লেখ্য যে, ২ একর জমি উপর তিনতলা বিশিষ্ট ভবনে চিটাগাং কিন্ডারগার্টেন ও হাজেরা-তজু স্কুল এন্ড কলেজ  প্রতিষ্ঠা করা হয়। প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসবি’র ব্যক্তিগত উদ্যোগে নতুন ২টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও পূর্বের ২৯টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসহ মোট ৩১টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান তৈরি করেছেন।
   
অনুষ্ঠান সঞ্চালনায় ছিলেন হাজেরা তজু বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের ইংরেজি বিভাগের অধ্যাপক মোঃ আবু বকর সিদ্দিকী। এছাড়াও অনুষ্ঠানে এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও প্রিন্ট-ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

স্পটলাইট

দিনের আরো খবর