BDpress

সব ধরনের সবজির দাম বেড়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক

অ+ অ-
সব ধরনের সবজির দাম বেড়েছে
দেশজুড়ে অতিবৃষ্টি ও বন্যার কারণে রাজধানীর কাঁচাবাজারগুলোতে সব ধরনের সবজির দাম বেড়েছে। শনিবার রাজধানীর রামপুরা কাঁচাবাজার ঘুরে দেখা গেছে কেজি প্রতি সবজি দাম ৫ থেকে ১০টাকা পর্যন্ত বেড়েছে।

রামপুরা ববাজারের ব্যবসায়ী আবদুর রাজ্জাক বলেন, প্রতিকেজি গোল বেগুন ৫০ টাকা, লম্বা বেগুন ৪০ টাকা, চিচিঙ্গা ৪০, পটল ৪০ টাকা, ঢেঁড়স ৪০ টাকা, কাকরোল ৩৫ টাকা, শসা ৩৫ টাকা, কচুমুখী ৩০ টাকা, কাঁচা মরিচ ৮০ টাকা, ধনে পাতা ২০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করছেন।

রামপুরা বাজারের মুদি দোকান ঘুরে দেখা গেছে, গত সপ্তাহে চিনি, রসুন, আলু, পেঁয়াজ, ডিম ও তেলসহ আরো বেশ কিছু পণ্যর দাম অপরিবর্তিত রয়েছে। তবে কিছুটা কমেছে খোলা আটা ও ময়দার দাম।

মুদি দোকানদার তাজুল ইসলাম বলেন, প্রতি কেজি দেশি পেঁয়াজ ৩০ টাকা, ইন্ডিয়ান পেঁয়াজ ২৪ টাকা, রসুন (চীনা) ১২০ টাকা, ছোলা ৮৫ টাকা, মাসকলাই ১৩৫ টাকা, দেশি মসুর ডাল ১২০ টাকা, ভারতীয় মসুর ডাল ৮০ টাকা, বুটের ডাল ১২০ টাকা দামে বিক্রি করছেন। ৫ লিটারের ভোজ্য তেলের বোতল ব্র্যান্ড ভেদে ৫০০-৫১০ টাকা, প্রতি লিটার ভোজ্য তেল ১০০-১০৬ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

তিনি বলেন, দারুচিনি ৩৬০ টাকা, জিরা ৪৫০ টাকা, শুকনা মরিচ ২০০ টাকা, লবঙ্গ দেড় হাজার টাকা, এলাচ ১ হাজার ৬০০ টাকা, চীনের আদা ১২০ টাকা ও কেরালা আদা ১৪০ টাকা, হলুদ ১৯০ টাকা দরে বিক্রি করছেন।

বাজার ঘুরে দেখা গেছে শুল্ক কমিয়ে চাল আমদানি করলেও খুচরা ক্রেতারা এর সুফল পাচ্ছে না। রামপুরা বাজারে চাল কিনতে আসা আতিক হাসান বলেন, সরকার বলছে  চালের কমবে। বাজারে চালের দামের সঙ্গে সরকারের কথার কোন মিল নেই। বিশেষ করে চিকন চালের দর অপরিবর্তিত রয়েছে। তবে মোটা চালের দর কেজি প্রতি ১ থেকে ২ টাকা কমেছে।

বিডিপ্রেস/আরজে

এ সম্পর্কিত অন্যান্য খবর

BDpress

সব ধরনের সবজির দাম বেড়েছে


সব ধরনের সবজির দাম বেড়েছে

রামপুরা ববাজারের ব্যবসায়ী আবদুর রাজ্জাক বলেন, প্রতিকেজি গোল বেগুন ৫০ টাকা, লম্বা বেগুন ৪০ টাকা, চিচিঙ্গা ৪০, পটল ৪০ টাকা, ঢেঁড়স ৪০ টাকা, কাকরোল ৩৫ টাকা, শসা ৩৫ টাকা, কচুমুখী ৩০ টাকা, কাঁচা মরিচ ৮০ টাকা, ধনে পাতা ২০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করছেন।

রামপুরা বাজারের মুদি দোকান ঘুরে দেখা গেছে, গত সপ্তাহে চিনি, রসুন, আলু, পেঁয়াজ, ডিম ও তেলসহ আরো বেশ কিছু পণ্যর দাম অপরিবর্তিত রয়েছে। তবে কিছুটা কমেছে খোলা আটা ও ময়দার দাম।

মুদি দোকানদার তাজুল ইসলাম বলেন, প্রতি কেজি দেশি পেঁয়াজ ৩০ টাকা, ইন্ডিয়ান পেঁয়াজ ২৪ টাকা, রসুন (চীনা) ১২০ টাকা, ছোলা ৮৫ টাকা, মাসকলাই ১৩৫ টাকা, দেশি মসুর ডাল ১২০ টাকা, ভারতীয় মসুর ডাল ৮০ টাকা, বুটের ডাল ১২০ টাকা দামে বিক্রি করছেন। ৫ লিটারের ভোজ্য তেলের বোতল ব্র্যান্ড ভেদে ৫০০-৫১০ টাকা, প্রতি লিটার ভোজ্য তেল ১০০-১০৬ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

তিনি বলেন, দারুচিনি ৩৬০ টাকা, জিরা ৪৫০ টাকা, শুকনা মরিচ ২০০ টাকা, লবঙ্গ দেড় হাজার টাকা, এলাচ ১ হাজার ৬০০ টাকা, চীনের আদা ১২০ টাকা ও কেরালা আদা ১৪০ টাকা, হলুদ ১৯০ টাকা দরে বিক্রি করছেন।

বাজার ঘুরে দেখা গেছে শুল্ক কমিয়ে চাল আমদানি করলেও খুচরা ক্রেতারা এর সুফল পাচ্ছে না। রামপুরা বাজারে চাল কিনতে আসা আতিক হাসান বলেন, সরকার বলছে  চালের কমবে। বাজারে চালের দামের সঙ্গে সরকারের কথার কোন মিল নেই। বিশেষ করে চিকন চালের দর অপরিবর্তিত রয়েছে। তবে মোটা চালের দর কেজি প্রতি ১ থেকে ২ টাকা কমেছে।

বিডিপ্রেস/আরজে

স্পটলাইট