BDpress

‘২০১০ সালের মতো পুঁজিবাজারে ধস হবে না’

নিজস্ব প্রতিবেদক

অ+ অ-
‘২০১০ সালের মতো পুঁজিবাজারে ধস হবে না’
পুঁজিবাজার এখন ডিজিটালাইজ। তাই ২০১০ সালের মতো পুঁজিবাজারে ধস হবে না। আর ধস হবার কোন সম্ভাবনাও নেই বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ এন্ড একচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) কমিশনার অধ্যাপক স্বপন কুমার বালা।

‘বিশ্ব বিনিয়োগ সপ্তাহ ২০১৭’ উপলক্ষে আয়োজিত প্রসপেক্টাস এন্ড চ্যালেঞ্জস অব ডেভেলপমেন্ট অব ক্যাপিট্যাল মার্কেট শীর্ষক এক সেমিনারে প্রশ্ন-উত্তর পর্বে এক ছাত্রের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, বর্তমান পুঁজিবাজারে অর্থ লুটের বানর ব্যবসায়ীদের আসার কোন সুযোগ নেই। বর্তমান পুঁজিবাজারের নিয়মনীতি অনেক স্বচ্ছ। পূর্বের সিকিউরিটিজ আইনের ব্যাপক পরিবর্তন আনা হয়েছে।

এসময় বিএসইসির চেয়ারম্যান ড. এম খায়রুল হোসেন বলেন, পুঁজিবাজারে উঠানামা থাকবে। এটাই পুঁজিবাজারের নিয়ম। তাই ঝুঁকি নিয়েই এ বাজারে বিনিয়োগ করতে হবে বিনিয়োগকারীদের। তাই জেনে বুঝে বিনিয়োগ শিক্ষা নিয়ে বিনিয়োগ করার পরামর্শ দেন।

খায়রুল হোসেন বলেন, ২০১০ সালের ধসের পর বাজারে অনেক সংস্কার হয়েছে। তবে সেই অর্থে এখনও বিনিয়োগকারীদের মধ্যে আত্মবিশ্বাস খুঁজে পাওয়া যায়নি। এর কারণ খুঁজতে গিয়ে দেখা গেছে বিনিয়োগকারীদের মধ্যে শিক্ষার ঘাটতি আছে। এর সমাধানে বিনিয়োগ শিক্ষা কার্যক্রম শুরু করেছে বিএসইসি।

এসময় আইসিএমএবি সভাপতি জামাল আহমেদ চৌধুরী বলেন, ২০১০ সালে ধসের নেপথ্যে কমপক্ষে ১০টি কারণ রয়েছে। কিন্তু বর্তমানে আইনি সংস্কারে ফলে তা সমাধান হয়েছে। তাই ধস হওয়ার সম্ভবনা নাই।

উদাহরণ স্বরূপ তিনি বলেন, ২০১০ সালে ধসের কারণগুলোর মধ্যে একটি ছিল মার্জিন ঋণের নিয়মনীতি ছিল না। কিন্তু তার সংশোধন হয়েছে। এখন আর ৫০ হাজার টাকা বিনিয়োগ করে ৩ কোটি টাকা মার্জিন ঋণ নেওয়া যায় না।

বিডিপ্রেস/আরজে

এ সম্পর্কিত অন্যান্য খবর

BDpress

‘২০১০ সালের মতো পুঁজিবাজারে ধস হবে না’


‘২০১০ সালের মতো পুঁজিবাজারে ধস হবে না’

‘বিশ্ব বিনিয়োগ সপ্তাহ ২০১৭’ উপলক্ষে আয়োজিত প্রসপেক্টাস এন্ড চ্যালেঞ্জস অব ডেভেলপমেন্ট অব ক্যাপিট্যাল মার্কেট শীর্ষক এক সেমিনারে প্রশ্ন-উত্তর পর্বে এক ছাত্রের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, বর্তমান পুঁজিবাজারে অর্থ লুটের বানর ব্যবসায়ীদের আসার কোন সুযোগ নেই। বর্তমান পুঁজিবাজারের নিয়মনীতি অনেক স্বচ্ছ। পূর্বের সিকিউরিটিজ আইনের ব্যাপক পরিবর্তন আনা হয়েছে।

এসময় বিএসইসির চেয়ারম্যান ড. এম খায়রুল হোসেন বলেন, পুঁজিবাজারে উঠানামা থাকবে। এটাই পুঁজিবাজারের নিয়ম। তাই ঝুঁকি নিয়েই এ বাজারে বিনিয়োগ করতে হবে বিনিয়োগকারীদের। তাই জেনে বুঝে বিনিয়োগ শিক্ষা নিয়ে বিনিয়োগ করার পরামর্শ দেন।

খায়রুল হোসেন বলেন, ২০১০ সালের ধসের পর বাজারে অনেক সংস্কার হয়েছে। তবে সেই অর্থে এখনও বিনিয়োগকারীদের মধ্যে আত্মবিশ্বাস খুঁজে পাওয়া যায়নি। এর কারণ খুঁজতে গিয়ে দেখা গেছে বিনিয়োগকারীদের মধ্যে শিক্ষার ঘাটতি আছে। এর সমাধানে বিনিয়োগ শিক্ষা কার্যক্রম শুরু করেছে বিএসইসি।

এসময় আইসিএমএবি সভাপতি জামাল আহমেদ চৌধুরী বলেন, ২০১০ সালে ধসের নেপথ্যে কমপক্ষে ১০টি কারণ রয়েছে। কিন্তু বর্তমানে আইনি সংস্কারে ফলে তা সমাধান হয়েছে। তাই ধস হওয়ার সম্ভবনা নাই।

উদাহরণ স্বরূপ তিনি বলেন, ২০১০ সালে ধসের কারণগুলোর মধ্যে একটি ছিল মার্জিন ঋণের নিয়মনীতি ছিল না। কিন্তু তার সংশোধন হয়েছে। এখন আর ৫০ হাজার টাকা বিনিয়োগ করে ৩ কোটি টাকা মার্জিন ঋণ নেওয়া যায় না।

বিডিপ্রেস/আরজে

স্পটলাইট