BDpress

কুমিল্লায় অচেনা রোগে মৃত্যুর দ্বারপ্রান্তে শিশু সিয়াম

জেলা প্রতিনিধি

অ+ অ-
কুমিল্লায় অচেনা রোগে মৃত্যুর দ্বারপ্রান্তে শিশু সিয়াম
অচেনা রোগে মৃত্যু মুখে পতিত হয়েছে মাত্র ৪ বছরের শিশু সিয়াম। জন্মের ২ মাস পর থেকে মাথা ও তার শরীরের নিম্নাংশে অর্থাৎ অন্ডকোষে দেখা দেয় বিরল এক জটিল ব্যধি। যার চিকিৎসার ব্যয়ভার বহন করতে অক্ষম তাঁর হতদরিদ্র পিতা। এরআগে একই রোগে সিয়ামের বড় ভাই সায়মনের মৃত্যু হয়। অচেনা রোগে আক্রান্ত ওই মিশুর বাড়ী কুমিল্লা জেলার নাঙ্গলকোট উপজেলার জোড্ডা পূর্ব ইউনিয়নের আটঘরা গ্রামে। তাঁর পিতা বাবা জহিরুল ইসলাম একজন যাত্রীবাহী বাসের শ্রমিক। অর্থ সংকটে তিনি ছেলেকে চিকিৎসা করাতে পারছেন না।

সরেজমিনে গিয়ে শিশু সিয়ামের বাবা জহিরের সাথে কথা বলে জানা গেছে, ২ ছেলে ও ১ মেয়ের জনক তিনি। ৬ বছর পূর্বে আড়াই বছর বয়সী তার বড় ছেলে সায়মনও অজ্ঞাত এই ব্যধিতে মারা যান। এরইমধ্যে সিয়ামের চিকিৎসার জন্য প্রায় ৩ লক্ষ টাকা খরচ করে ফেললেও কোন চিকিৎসক সিয়ামের রোগ নির্ণয় বা এই রোগের নামও জানাতে পারেনি।

এ নিয়ে খুব দুঃচিন্তায় রয়েছেন জহির। চোখে শুধুই অন্ধকার দেখছেন তিনি। অপরদিকে, শিশু সিয়াম দিনে দিনে মৃত্যু মুখে পতিত হচ্ছেন। সিয়ামকে দেখে গ্রামের প্রতিবেশিরা ভয় পায়। এতে খুব খারাপ লাগে তাঁর বাবা ও মায়ের। তবুও স্বপ্ন দেখেন ছেলের সুস্থ্য জীবন ফিরে পাবার।

সিয়ামের মা নুরুন্নাহার বেগম বলেন, শরীরের অস্বাভাবিকতার কারণে স্থানীয়রা এড়িয়ে চলছে আমার ছেলেকে। অন্য শিশুরা ভয়ে তার কাছে ভিড়ে না। তিনি আরও জানান, এ রোগের কারণে তার ছেলে কোথাও যেতে পারে না। বাইরে বের হয় না। কারণ, গ্রামবাসী সিয়ামকে দেখে ভয় পায়। তাকে উদ্দেশ্য করে অনেকেই আজেবাজে কথা বলে।

তার বাবা শিশু সিয়ামকে নিয়ে স্থানীয় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে, প্রাইভেট হাসপাতাল ও ক্লিনিক, কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হসপাতাল, শ্যামলী শিশু হাসপাতাল, সর্বশেষ ১ আগস্ট ২০১৬ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ^বিদ্যালয়ের ডাক্তারের শরনাপন্ন হন। সেখানের ডাক্তাররা রোগটি চিহ্নিত করতে না পারায় সিয়ামকে বাড়ীতে নিয়ে আসে তার বাবা। বর্তমানে সিয়ামের পরিবার মানবেতর জীবন যাপন করছেন।

এ ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ দেবদাস দেব বলেন, শিশুটিকে জরুরি বিভাগে ভর্তি হওয়ার জন্য বলেছি, একটি মেডিকেল টিম গঠন করে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা দেয়া হবে।

বিডিপ্রেস/মিঠু

এ সম্পর্কিত অন্যান্য খবর

BDpress

কুমিল্লায় অচেনা রোগে মৃত্যুর দ্বারপ্রান্তে শিশু সিয়াম


কুমিল্লায় অচেনা রোগে মৃত্যুর দ্বারপ্রান্তে শিশু সিয়াম

সরেজমিনে গিয়ে শিশু সিয়ামের বাবা জহিরের সাথে কথা বলে জানা গেছে, ২ ছেলে ও ১ মেয়ের জনক তিনি। ৬ বছর পূর্বে আড়াই বছর বয়সী তার বড় ছেলে সায়মনও অজ্ঞাত এই ব্যধিতে মারা যান। এরইমধ্যে সিয়ামের চিকিৎসার জন্য প্রায় ৩ লক্ষ টাকা খরচ করে ফেললেও কোন চিকিৎসক সিয়ামের রোগ নির্ণয় বা এই রোগের নামও জানাতে পারেনি।

এ নিয়ে খুব দুঃচিন্তায় রয়েছেন জহির। চোখে শুধুই অন্ধকার দেখছেন তিনি। অপরদিকে, শিশু সিয়াম দিনে দিনে মৃত্যু মুখে পতিত হচ্ছেন। সিয়ামকে দেখে গ্রামের প্রতিবেশিরা ভয় পায়। এতে খুব খারাপ লাগে তাঁর বাবা ও মায়ের। তবুও স্বপ্ন দেখেন ছেলের সুস্থ্য জীবন ফিরে পাবার।

সিয়ামের মা নুরুন্নাহার বেগম বলেন, শরীরের অস্বাভাবিকতার কারণে স্থানীয়রা এড়িয়ে চলছে আমার ছেলেকে। অন্য শিশুরা ভয়ে তার কাছে ভিড়ে না। তিনি আরও জানান, এ রোগের কারণে তার ছেলে কোথাও যেতে পারে না। বাইরে বের হয় না। কারণ, গ্রামবাসী সিয়ামকে দেখে ভয় পায়। তাকে উদ্দেশ্য করে অনেকেই আজেবাজে কথা বলে।

তার বাবা শিশু সিয়ামকে নিয়ে স্থানীয় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে, প্রাইভেট হাসপাতাল ও ক্লিনিক, কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হসপাতাল, শ্যামলী শিশু হাসপাতাল, সর্বশেষ ১ আগস্ট ২০১৬ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ^বিদ্যালয়ের ডাক্তারের শরনাপন্ন হন। সেখানের ডাক্তাররা রোগটি চিহ্নিত করতে না পারায় সিয়ামকে বাড়ীতে নিয়ে আসে তার বাবা। বর্তমানে সিয়ামের পরিবার মানবেতর জীবন যাপন করছেন।

এ ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ দেবদাস দেব বলেন, শিশুটিকে জরুরি বিভাগে ভর্তি হওয়ার জন্য বলেছি, একটি মেডিকেল টিম গঠন করে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা দেয়া হবে।

বিডিপ্রেস/মিঠু

স্পটলাইট