BDpress

প্যারাডাইস পেপার্সের নাম তদন্ত হওয়া উচিত

নিজস্ব প্রতিবেদক

অ+ অ-
প্যারাডাইস পেপার্সের নাম তদন্ত হওয়া উচিত
আর্থিক কেলেঙ্কারির বিষয়ে আলোচিত প্যারাডাইস পেপার্সে যে সকল বাংলাদেশির নাম এসেছে তাদের বিষয়ে তদন্ত হওয়া উচিত বলে মন্তব্য করেছেন রাষ্ট্রের প্রধান আইন কর্মকর্তা অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। বাংলাদেশি ব্যবসায়ীদের তালিকা প্রকাশের একদিন পর রোববার অ্যার্টনি জেনারেলের নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে কথা বলেন তিনি।

শনিবার সংবাদমাধ্যমের খবরে বহুল আলোচিত আর্থিক কেলেঙ্কারি প্যারাডাইস পেপার্সে বাংলাদেশের ব্যবসায়ী ও বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুল আউয়াল মিন্টুর পরিবারের নাম এসেছে। কর ফাঁকি দিতে কিংবা তা এড়ানোর জন্যে দেশের বাইরে বিভিন্ন অফশোর কোম্পানিতে বিপুল পরিমাণ অর্থ বিনিয়োগ করেছেন তারা। এর আগে শুক্রবার (১৭ নভেম্বর) বারমুডার আইনি সংগঠন ‘অ্যাপলবাই’ বিপুল গোপন নথি ইন্টারন্যাশনাল কনসোর্টিয়াম অব ইনভেস্টিগেটিভ জার্নালিস্টসের (আইসিআইজে) ওয়েবসাইটে এ তালিকা প্রকাশ করা হয়।

এ বিষয়ে রাষ্ট্রের প্রধান আইন কর্মকর্তা বলেন, এটা নিশ্চয়ই সরকার সিদ্ধান্ত দেবেন বলে আমি আশা করি। কারণ এটা কাগজে এসেছে। এখন এ ব্যাপারে কিছু প্রক্রিয়া আছে। এ প্রক্রিয়াগুলো সরকার সিদ্ধান্ত নেবেন, কি করা হবে- না করা হবে।

দুদকের খতিয়ে দেখা উচিত কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে মাহবুবে আলম বলেন, ‘সেটা তো অবশ্যই, বিদেশে টাকা পাচারের মতো ঘটনা, এটা তো যেকোনো নাগরিক বলবে তদন্ত হওয়া উচিত।’

বিদেশে পাচারকৃত অর্থ ফেরত আনতে মূল কাজটাই অ্যাটর্নি জেনারেল অফিসের এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘হ্যাঁ, সেটা কিছু প্রক্রিয়া আছে, সরকার নির্দেশ দিলে, প্রাথমিক তদন্ত করা যাবে। তারপর সরকার আদেশ দিলে এ সমস্ত ব্যাপারে হয়তো মিউচুয়াল লিগ্যাল অ্যসিস্ট্যান্সের অনুরোধ করা হবে।’

তিনি আরো বলেন, যে সমস্ত দেশে প্যারাডাইজ পেপারের কোম্পানিগুলো ফর্ম করা আছে তাদের কাছে অনুরোধ পাঠালে, তারা যদি নামগুলো পাঠায়, যে কাদের কাদের নাম আছে।

গোপন নথি অনুযায়ী, ব্যবসায়ী আউয়াল পরিবার বারমুডায় ১৯৯৯ সাল থেকে অফসোর কোম্পানিতে বিনিয়োগ করেছেন। এনএফএম এনার্জি লিমিটেড নামে গ্যাস অনুসন্ধান ও উত্তোলন কোম্পানিরতে মিন্টুর স্ত্রী নাসরিন ফাতেমা আউয়ালসহ তিন ছেলে তাবিথ আউয়াল, তাফসির মোহাম্মদ আউয়াল এবং তাজওয়ার মোহম্মাদ আউয়ালের শেয়ার রয়েছে। আব্দুল আওয়াল মিন্টু ছাড়াও বাংলাদেশের অন্যান্য ব্যবসায়ীদের নামও রয়েছে ওই তালিকায়।

বিডিপ্রেস/আরজে

এ সম্পর্কিত অন্যান্য খবর

BDpress

প্যারাডাইস পেপার্সের নাম তদন্ত হওয়া উচিত


প্যারাডাইস পেপার্সের নাম তদন্ত হওয়া উচিত

শনিবার সংবাদমাধ্যমের খবরে বহুল আলোচিত আর্থিক কেলেঙ্কারি প্যারাডাইস পেপার্সে বাংলাদেশের ব্যবসায়ী ও বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুল আউয়াল মিন্টুর পরিবারের নাম এসেছে। কর ফাঁকি দিতে কিংবা তা এড়ানোর জন্যে দেশের বাইরে বিভিন্ন অফশোর কোম্পানিতে বিপুল পরিমাণ অর্থ বিনিয়োগ করেছেন তারা। এর আগে শুক্রবার (১৭ নভেম্বর) বারমুডার আইনি সংগঠন ‘অ্যাপলবাই’ বিপুল গোপন নথি ইন্টারন্যাশনাল কনসোর্টিয়াম অব ইনভেস্টিগেটিভ জার্নালিস্টসের (আইসিআইজে) ওয়েবসাইটে এ তালিকা প্রকাশ করা হয়।

এ বিষয়ে রাষ্ট্রের প্রধান আইন কর্মকর্তা বলেন, এটা নিশ্চয়ই সরকার সিদ্ধান্ত দেবেন বলে আমি আশা করি। কারণ এটা কাগজে এসেছে। এখন এ ব্যাপারে কিছু প্রক্রিয়া আছে। এ প্রক্রিয়াগুলো সরকার সিদ্ধান্ত নেবেন, কি করা হবে- না করা হবে।

দুদকের খতিয়ে দেখা উচিত কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে মাহবুবে আলম বলেন, ‘সেটা তো অবশ্যই, বিদেশে টাকা পাচারের মতো ঘটনা, এটা তো যেকোনো নাগরিক বলবে তদন্ত হওয়া উচিত।’

বিদেশে পাচারকৃত অর্থ ফেরত আনতে মূল কাজটাই অ্যাটর্নি জেনারেল অফিসের এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘হ্যাঁ, সেটা কিছু প্রক্রিয়া আছে, সরকার নির্দেশ দিলে, প্রাথমিক তদন্ত করা যাবে। তারপর সরকার আদেশ দিলে এ সমস্ত ব্যাপারে হয়তো মিউচুয়াল লিগ্যাল অ্যসিস্ট্যান্সের অনুরোধ করা হবে।’

তিনি আরো বলেন, যে সমস্ত দেশে প্যারাডাইজ পেপারের কোম্পানিগুলো ফর্ম করা আছে তাদের কাছে অনুরোধ পাঠালে, তারা যদি নামগুলো পাঠায়, যে কাদের কাদের নাম আছে।

গোপন নথি অনুযায়ী, ব্যবসায়ী আউয়াল পরিবার বারমুডায় ১৯৯৯ সাল থেকে অফসোর কোম্পানিতে বিনিয়োগ করেছেন। এনএফএম এনার্জি লিমিটেড নামে গ্যাস অনুসন্ধান ও উত্তোলন কোম্পানিরতে মিন্টুর স্ত্রী নাসরিন ফাতেমা আউয়ালসহ তিন ছেলে তাবিথ আউয়াল, তাফসির মোহাম্মদ আউয়াল এবং তাজওয়ার মোহম্মাদ আউয়ালের শেয়ার রয়েছে। আব্দুল আওয়াল মিন্টু ছাড়াও বাংলাদেশের অন্যান্য ব্যবসায়ীদের নামও রয়েছে ওই তালিকায়।

বিডিপ্রেস/আরজে