BDpress

ঠাকুরপাড়ায় হামলার বিচার বিভাগীয় তদন্তের দাবি জানাই: ফখরুল

জেলা প্রতিবেদক

অ+ অ-
ঠাকুরপাড়ায় হামলার বিচার বিভাগীয় তদন্তের দাবি জানাই: ফখরুল
বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ঠাকুরপাড়ায় হিন্দুদের বাড়িঘরে আগুন ও ভাংচুরের ঘটনা অত্যন্ত দুঃখজনক। আমাদের নেত্রী খালেদা জিয়া এর তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন। আমরা এ ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত দাবি করছি। বিএনপির উচ্চ পর্যায়ের একটি তদন্তদল খুব শিগগিরই ঘটনাস্থলে আসবে। সোমবার রংপুরের ঠাকুরপাড়ায় হিন্দুদের ঘরবাড়িতে অগ্নিসংযোগ ও হামলা-ভাংচুরের ঘটনাস্থল পরিদর্শনকালে সাংবাদিক এসব কথা বলেন তিনি।

ফখরুল বলেন, সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ওপর হামলার ঘটনা আওয়ামী লীগের আমলে বেশি হচ্ছে। রামু, নাসিরনগরের হামলায়র সঙ্গে ছাত্রলীগ, যুবলীগ, আওয়ামী লীগের লোকজন জড়িত থাকার প্রমাণ উঠে এসেছে তদন্তে। এসব ঘটনার সাথে বিএনপি কখনই জড়িত ছিল না। 

আগামী সংসদ নির্বাচনের বিষয়ে তিনি বলেন, বিএনপি আগামী নির্বাচনে যাবে, তবে সেটা সহায়ক সরকারের অধীনে হতে হবে।

সম্প্রতি রংপুর পাগলাপীর সলেয়াশাহ এলাকার টিটু রায়ের বিরুদ্ধে ফেসবুকে ধর্ম অবমাননা করে পোস্ট দেয়ার অভিযোগ ওঠে। এ নিয়ে তার শাস্তির দাবিতে গত ১০ নভেম্বর জুমার নামাজের পর সলেয়াসা বাজার এলাকায় বিক্ষোভ সমাবেশ হয়। নামাজের পর কয়েকশ' মানুষ সেখানে সমবেত হয়ে রংপুর-দিনাজপুর মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ শুরু করেন। এ সময় ওই সড়কের দু'পাশে শত শত যানবাহন আটকা পড়ে। খবর পেয়ে পুলিশ সেখানে গিয়ে বিক্ষোভকারীদের রাস্তা ছেড়ে দেওয়ার আহ্বান জানায়। এ নিয়ে পুলিশের সঙ্গে তাদের কথা কাটাকাটি, ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষ বাধে।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ ৫০ রাউন্ড টিয়ার গ্যাসের শেল ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে। এসময় পুলিশসহ আহত হন অন্তত ১৫ জন। পরে হাসপাতালে একজন মারা যান। পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষের একপর্যায়ে বিক্ষোভকারীরা ঠাকুরপাড়া গ্রামে ৮ থেকে ১০ হিন্দু বাড়িতে আগুন দেয় ও ভাংচুর চালায়।

এ ঘটনায় পুলিশ পরে দুটি মামলা করে। মামলায় যার ফেসবুক আইডি থেকে ধর্ম অবমাননার অভিযোগ উঠেছে সেই টিটু রায় এ পর্যন্ত ১৯৬ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

বিডিপ্রেস/মিঠু

এ সম্পর্কিত অন্যান্য খবর

BDpress

ঠাকুরপাড়ায় হামলার বিচার বিভাগীয় তদন্তের দাবি জানাই: ফখরুল


ঠাকুরপাড়ায় হামলার বিচার বিভাগীয় তদন্তের দাবি জানাই: ফখরুল

ফখরুল বলেন, সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ওপর হামলার ঘটনা আওয়ামী লীগের আমলে বেশি হচ্ছে। রামু, নাসিরনগরের হামলায়র সঙ্গে ছাত্রলীগ, যুবলীগ, আওয়ামী লীগের লোকজন জড়িত থাকার প্রমাণ উঠে এসেছে তদন্তে। এসব ঘটনার সাথে বিএনপি কখনই জড়িত ছিল না। 

আগামী সংসদ নির্বাচনের বিষয়ে তিনি বলেন, বিএনপি আগামী নির্বাচনে যাবে, তবে সেটা সহায়ক সরকারের অধীনে হতে হবে।

সম্প্রতি রংপুর পাগলাপীর সলেয়াশাহ এলাকার টিটু রায়ের বিরুদ্ধে ফেসবুকে ধর্ম অবমাননা করে পোস্ট দেয়ার অভিযোগ ওঠে। এ নিয়ে তার শাস্তির দাবিতে গত ১০ নভেম্বর জুমার নামাজের পর সলেয়াসা বাজার এলাকায় বিক্ষোভ সমাবেশ হয়। নামাজের পর কয়েকশ' মানুষ সেখানে সমবেত হয়ে রংপুর-দিনাজপুর মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ শুরু করেন। এ সময় ওই সড়কের দু'পাশে শত শত যানবাহন আটকা পড়ে। খবর পেয়ে পুলিশ সেখানে গিয়ে বিক্ষোভকারীদের রাস্তা ছেড়ে দেওয়ার আহ্বান জানায়। এ নিয়ে পুলিশের সঙ্গে তাদের কথা কাটাকাটি, ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষ বাধে।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ ৫০ রাউন্ড টিয়ার গ্যাসের শেল ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে। এসময় পুলিশসহ আহত হন অন্তত ১৫ জন। পরে হাসপাতালে একজন মারা যান। পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষের একপর্যায়ে বিক্ষোভকারীরা ঠাকুরপাড়া গ্রামে ৮ থেকে ১০ হিন্দু বাড়িতে আগুন দেয় ও ভাংচুর চালায়।

এ ঘটনায় পুলিশ পরে দুটি মামলা করে। মামলায় যার ফেসবুক আইডি থেকে ধর্ম অবমাননার অভিযোগ উঠেছে সেই টিটু রায় এ পর্যন্ত ১৯৬ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

বিডিপ্রেস/মিঠু