BDpress

১০টি পরমাণু অস্ত্র বহনে সক্ষম চীনের নতুন ক্ষেপণাস্ত্র

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

অ+ অ-
১০টি পরমাণু অস্ত্র বহনে সক্ষম চীনের নতুন ক্ষেপণাস্ত্র
পরাশক্তিদের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে চলছে চীনের সমরাস্ত্র বৃদ্ধির প্রক্রিয়া। আর এরই অংশ হিসেবে সম্প্রতি নতুন ইন্টার কন্টিনেন্টাল ব্যালিস্টিক মিসাইল বা ক্ষেপণাস্ত্র তৈরি করেছে চীন।

যা ১০টি পরমাণু অস্ত্র বহনে সক্ষম।  ডংফেং–৪১ নামে এই মিসাইল চীনের মূল ভূমি থেকে পৃথিবীর যে কোনও অঞ্চলে আঘাত হানতে সক্ষম। 

চীনের দাবি, তিন স্তর বিশিষ্ট ভারী জ্বালানি চালিত মিসাইলটি ১২,০০০ কিলোমিটার দূরের লক্ষ্য ভেদ করতে পারবে। এতে ১০টি পরমাণু অস্ত্র বহন করা যাবে, যার প্রতিটি অস্ত্রই আলাদাভাবে আঘাত হানতে পারবে। 

২০১৮ সালের শুরুতেই ডংফেং–৪১ সেনাবাহিনীতে যুক্ত করা হবে বলে জানিয়েছে চীনের সংবাদমাধ্যম। 

চীনের আরও দাবি, এই মিসাইল শত্রুপক্ষের মিসাইল ভেদ করে তাদের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার কাছে এক আগাম সতর্কবার্তা হয়ে পৌঁছবে। 

চীনের অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ এবং নিরস্ত্রীকরণ সংগঠনের শীর্ষ উপদেষ্টা শু গুয়াংফু বলেছেন, যখনই ডংফেং–৪১ চীনের সেনাবাহিনীতে মোতায়েন হবে, সেই মুহূর্ত থেকেই চীনের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা বিশ্বে বিশেষভাবে বেড়ে যাবে।   যদিও রুশ বিশেষজ্ঞদের মতে, চীনের এই মিসাইল তৈরির মূল লক্ষ্য আমেরিকাই।   
বিডিপ্রেস/আলী

এ সম্পর্কিত অন্যান্য খবর

BDpress

১০টি পরমাণু অস্ত্র বহনে সক্ষম চীনের নতুন ক্ষেপণাস্ত্র


১০টি পরমাণু অস্ত্র বহনে সক্ষম চীনের নতুন ক্ষেপণাস্ত্র

যা ১০টি পরমাণু অস্ত্র বহনে সক্ষম।  ডংফেং–৪১ নামে এই মিসাইল চীনের মূল ভূমি থেকে পৃথিবীর যে কোনও অঞ্চলে আঘাত হানতে সক্ষম। 

চীনের দাবি, তিন স্তর বিশিষ্ট ভারী জ্বালানি চালিত মিসাইলটি ১২,০০০ কিলোমিটার দূরের লক্ষ্য ভেদ করতে পারবে। এতে ১০টি পরমাণু অস্ত্র বহন করা যাবে, যার প্রতিটি অস্ত্রই আলাদাভাবে আঘাত হানতে পারবে। 

২০১৮ সালের শুরুতেই ডংফেং–৪১ সেনাবাহিনীতে যুক্ত করা হবে বলে জানিয়েছে চীনের সংবাদমাধ্যম। 

চীনের আরও দাবি, এই মিসাইল শত্রুপক্ষের মিসাইল ভেদ করে তাদের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার কাছে এক আগাম সতর্কবার্তা হয়ে পৌঁছবে। 

চীনের অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ এবং নিরস্ত্রীকরণ সংগঠনের শীর্ষ উপদেষ্টা শু গুয়াংফু বলেছেন, যখনই ডংফেং–৪১ চীনের সেনাবাহিনীতে মোতায়েন হবে, সেই মুহূর্ত থেকেই চীনের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা বিশ্বে বিশেষভাবে বেড়ে যাবে।   যদিও রুশ বিশেষজ্ঞদের মতে, চীনের এই মিসাইল তৈরির মূল লক্ষ্য আমেরিকাই।   
বিডিপ্রেস/আলী