BDpress

ব্রিটেনে পদ্মাবতী ছাড়পত্র পাওয়ার পরও কেন চুপ মোদী!

বিনোদন ডেস্ক

অ+ অ-
ব্রিটেনে পদ্মাবতী ছাড়পত্র পাওয়ার পরও কেন চুপ মোদী!
‘পদ্মাবতী’ নিয়ে উভয়সঙ্কটে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। এত দিন ভারতের ধর্মনিরপেক্ষ শিবির প্রশ্ন তুলছিল, দেশ উত্তাল কিন্তু তিনি চুপ কেন! আর আজ শুক্রবার ব্রিটেনে ছবিটি ছাড়পত্র পাওয়ার পর কর্ণী সেনাও সেই একই প্রশ্ন করছে। তাদেরও প্রশ্ন, মোদী কেন নিশ্চুপ!

রাজপুত ভাবাবেগে আঘাত করার অভিযোগে একাধিক বিজেপিশাসিত রাজ্য ঘোষণা করেছে, ছবিটি তারা দেখাতে দেবে না। মোদীর নিজের রাজ্য গুজরাটও সেই দলে আছে। সেইসঙ্গে জয়পুরের রাজপুত সংগঠন কর্ণী সেনার হুমকি, সঞ্জয় লীলা বানশালীর এই ছবি মুক্তি পেলে আগুন জ্বলবে ভারতে। বিজেপির মুখ্যমন্ত্রীরা কার্যত তাদেরই পাশে দাঁড়িয়েছেন।

বিরোধীদের অভিযোগ, হিন্দু ভাবাবেগ জাগিয়ে তুলে মেরুকরণের রাজনীতি করছেন মোদী। তাই রা কাড়ছেন না বিষয়টি নিয়ে।  বিজেপি-র শত্রুঘ্ন সিনহা পর্যন্ত টুইট করে বলেন, ‘আমাদের জনপ্রিয় প্রধানমন্ত্রীর মুখে শব্দ নেই কেন! অনেক তো হলো।’

ভারতে ‘পদ্মাবতী’ এখনও সেন্সরের ছাড়পত্র পায়নি। তার আগেই আগাম হুমকি দিয়ে রাখছে রাজ্যগুলো। এরই মধ্যে ব্রিটেনের সেন্সর বোর্ড আজ কোনও রকম কাটছাঁট ছাড়াই ছবিটিকে ছাড়পত্র দিয়েছে। তার ফলে এখন ভিনদেশে ছবিটির মুক্তি আটকানোর জন্য সুপ্রিম কোর্টে মামলাও দায়ের হয়ে গেছে।

কিন্তু কর্ণী সেনা তাতেই সন্তুষ্ট নয়। তারা চাইছে, মোদী সরাসরি তাদের সমর্থনে মুখ খুলুন। ব্রিটেনকে বলুন, ছবিটা না দেখাতে। কর্ণী সেনা সভাপতি লোকেন্দ্র সিং কালভি এ দিন বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী কেন চুপ করে বসে আছেন? কূটনৈতিক স্তরে কেন ব্রিটেনের সঙ্গে কথা বলা হচ্ছে না এই ছবিটি বন্ধ করা নিয়ে? কেনই বা অনাবাসী ভারতীয়দের কাজে লাগানো হচ্ছে না?’

ঘটনা হলো, বিজেপির একটা বড় অংশ আবার মনে করছে, ব্রিটেনে ছবি প্রদর্শনের বিরুদ্ধে সরব হলে আন্তর্জাতিক স্তরে ভুল সংকেত যাবে। তাই আপাতত মোদী চুপই আছেন। কিন্তু দু’দিক থেকেই তোপের মুখে পড়েছেন।

ভারতের আনন্দবাজার পত্রিকার খবরে বলা হয়, বিরোধী নেতারা কৌতুকের সুরে বলেন, ‘এভাবে যে ফ্যাসাদে ফেলবে ব্রিটেন, সেটা হিসেবের মধ্যে ছিল না ‘ভূপর্যটক’ মোদীর!’

বিডিপ্রেস/আরজে

এ সম্পর্কিত অন্যান্য খবর

BDpress

ব্রিটেনে পদ্মাবতী ছাড়পত্র পাওয়ার পরও কেন চুপ মোদী!


ব্রিটেনে পদ্মাবতী ছাড়পত্র পাওয়ার পরও কেন চুপ মোদী!

রাজপুত ভাবাবেগে আঘাত করার অভিযোগে একাধিক বিজেপিশাসিত রাজ্য ঘোষণা করেছে, ছবিটি তারা দেখাতে দেবে না। মোদীর নিজের রাজ্য গুজরাটও সেই দলে আছে। সেইসঙ্গে জয়পুরের রাজপুত সংগঠন কর্ণী সেনার হুমকি, সঞ্জয় লীলা বানশালীর এই ছবি মুক্তি পেলে আগুন জ্বলবে ভারতে। বিজেপির মুখ্যমন্ত্রীরা কার্যত তাদেরই পাশে দাঁড়িয়েছেন।

বিরোধীদের অভিযোগ, হিন্দু ভাবাবেগ জাগিয়ে তুলে মেরুকরণের রাজনীতি করছেন মোদী। তাই রা কাড়ছেন না বিষয়টি নিয়ে।  বিজেপি-র শত্রুঘ্ন সিনহা পর্যন্ত টুইট করে বলেন, ‘আমাদের জনপ্রিয় প্রধানমন্ত্রীর মুখে শব্দ নেই কেন! অনেক তো হলো।’

ভারতে ‘পদ্মাবতী’ এখনও সেন্সরের ছাড়পত্র পায়নি। তার আগেই আগাম হুমকি দিয়ে রাখছে রাজ্যগুলো। এরই মধ্যে ব্রিটেনের সেন্সর বোর্ড আজ কোনও রকম কাটছাঁট ছাড়াই ছবিটিকে ছাড়পত্র দিয়েছে। তার ফলে এখন ভিনদেশে ছবিটির মুক্তি আটকানোর জন্য সুপ্রিম কোর্টে মামলাও দায়ের হয়ে গেছে।

কিন্তু কর্ণী সেনা তাতেই সন্তুষ্ট নয়। তারা চাইছে, মোদী সরাসরি তাদের সমর্থনে মুখ খুলুন। ব্রিটেনকে বলুন, ছবিটা না দেখাতে। কর্ণী সেনা সভাপতি লোকেন্দ্র সিং কালভি এ দিন বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী কেন চুপ করে বসে আছেন? কূটনৈতিক স্তরে কেন ব্রিটেনের সঙ্গে কথা বলা হচ্ছে না এই ছবিটি বন্ধ করা নিয়ে? কেনই বা অনাবাসী ভারতীয়দের কাজে লাগানো হচ্ছে না?’

ঘটনা হলো, বিজেপির একটা বড় অংশ আবার মনে করছে, ব্রিটেনে ছবি প্রদর্শনের বিরুদ্ধে সরব হলে আন্তর্জাতিক স্তরে ভুল সংকেত যাবে। তাই আপাতত মোদী চুপই আছেন। কিন্তু দু’দিক থেকেই তোপের মুখে পড়েছেন।

ভারতের আনন্দবাজার পত্রিকার খবরে বলা হয়, বিরোধী নেতারা কৌতুকের সুরে বলেন, ‘এভাবে যে ফ্যাসাদে ফেলবে ব্রিটেন, সেটা হিসেবের মধ্যে ছিল না ‘ভূপর্যটক’ মোদীর!’

বিডিপ্রেস/আরজে