BDpress

বাড়ির আঙিনায় বছরে ৭ কোটি টাকা

জেলা প্রতিবেদক

অ+ অ-
বাড়ির আঙিনায় বছরে ৭ কোটি টাকা
রাজবাড়ীর পাঁচ উপজেলায় বাণিজ্যিকভবে সুপারির চাষ না হলেও ব্যক্তিগতভাবে বাড়ির আঙিনা ও বাগানে সুপারির চাষ করে ২০১৬-১৭ অর্থ বছরে প্রায় ৭ কোটি টাকার সুপারি বিক্রি করেছেন চাষিরা। সদর ও বালিয়াকান্দি উপজেলায় সুপারির আবাদ বেশি হয়। এবার সুপারির ফলন ও বাজার দর ভালো হওয়ায় খুশি বাগান মালিক ও চাষিরা।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের মতে, এ অঞ্চলে কৃষকরা বাণিজ্যিকভাবে সুপারি চাষ না করলেও অনেকে বসতবাড়ি ও এর আশপাশে বাগান আকারে সুপারির চাষ করছেন। সুপারি চাষে উল্লেখ্য কোনো খরচ ও রোগ বালাই হয় না। তাছাড়া সুপারির পাশাপাশি বহু কাজে আসে এর গাছ।

সুপারি গাছ সাধারণত উঁচু জমি ও বাড়ির আঙিনায় লাগানো হয়। তবে এ গাছের সংখ্যা দিন দিন কমে যাচ্ছে। তাই সুপারি চাষে বাগান মালিক ও চাষিদের বিভিন্ন পরামর্শ দিয়ে আগ্রহী করছে জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর।

রাজবাড়ী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে, রাজবাড়ীর পাঁচ উপজেলায় ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ৯৯ হেক্টর জমিতে পারিবারিকভাবে সুপারির আবাদ হয়েছে। এতে সুপারি উৎপাদিত হয়েছে ৩৪৪ মেট্রিক টন। যার বাজার মূল্যে প্রায় ৬৮৮ কেটি টাকা। বাজারে ১শ’ কাঁচা সুপারি দেড় থেকে দুইশ ও শুকনা সুপারি আড়াই থেকে তিনশ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

সুপারির বাগান মালিক মুকলেছ মিয়াজী (মাস্টার) বলেন, তার বাড়ির আঙিনাসহ এক বিঘা জমিতে সুপারির চাষ করেছেন। ছোট-বড় মিলিয়ে প্রায় ৭শ’ সুপারি গাছ রয়েছে। এ বছর তিনি প্রায় ৩০ হাজার টাকার সুপারি বিক্রি করেছেন।

অন্যান্য সুপারি চাষিরা বলেন, সুপারি চাষে তেমন কোনো খরচ ও ঝামেলা নাই। তাই তারা বাড়ির আঙিনাসহ আশপাশে সুপারির চাষ করে বেশ লাভবান হচ্ছেন।

রাজবাড়ী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক মো. ফজলুর রহমান জানান, সুপারিতে কোনো রোগ দেখা দিলে কৃষকদের ছত্রাকনাশক স্প্রে ব্যবহারের পরামর্শ দিয়ে থাকেন তারা। এছাড়া পুষ্টির চাহিদা পূরণের জন্য বছরে দুইবার সার ব্যবহারের পরামর্শ দেন।

বিডিপ্রেস/আরজে

এ সম্পর্কিত অন্যান্য খবর

BDpress

বাড়ির আঙিনায় বছরে ৭ কোটি টাকা


বাড়ির আঙিনায় বছরে ৭ কোটি টাকা

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের মতে, এ অঞ্চলে কৃষকরা বাণিজ্যিকভাবে সুপারি চাষ না করলেও অনেকে বসতবাড়ি ও এর আশপাশে বাগান আকারে সুপারির চাষ করছেন। সুপারি চাষে উল্লেখ্য কোনো খরচ ও রোগ বালাই হয় না। তাছাড়া সুপারির পাশাপাশি বহু কাজে আসে এর গাছ।

সুপারি গাছ সাধারণত উঁচু জমি ও বাড়ির আঙিনায় লাগানো হয়। তবে এ গাছের সংখ্যা দিন দিন কমে যাচ্ছে। তাই সুপারি চাষে বাগান মালিক ও চাষিদের বিভিন্ন পরামর্শ দিয়ে আগ্রহী করছে জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর।

রাজবাড়ী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে, রাজবাড়ীর পাঁচ উপজেলায় ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ৯৯ হেক্টর জমিতে পারিবারিকভাবে সুপারির আবাদ হয়েছে। এতে সুপারি উৎপাদিত হয়েছে ৩৪৪ মেট্রিক টন। যার বাজার মূল্যে প্রায় ৬৮৮ কেটি টাকা। বাজারে ১শ’ কাঁচা সুপারি দেড় থেকে দুইশ ও শুকনা সুপারি আড়াই থেকে তিনশ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

সুপারির বাগান মালিক মুকলেছ মিয়াজী (মাস্টার) বলেন, তার বাড়ির আঙিনাসহ এক বিঘা জমিতে সুপারির চাষ করেছেন। ছোট-বড় মিলিয়ে প্রায় ৭শ’ সুপারি গাছ রয়েছে। এ বছর তিনি প্রায় ৩০ হাজার টাকার সুপারি বিক্রি করেছেন।

অন্যান্য সুপারি চাষিরা বলেন, সুপারি চাষে তেমন কোনো খরচ ও ঝামেলা নাই। তাই তারা বাড়ির আঙিনাসহ আশপাশে সুপারির চাষ করে বেশ লাভবান হচ্ছেন।

রাজবাড়ী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক মো. ফজলুর রহমান জানান, সুপারিতে কোনো রোগ দেখা দিলে কৃষকদের ছত্রাকনাশক স্প্রে ব্যবহারের পরামর্শ দিয়ে থাকেন তারা। এছাড়া পুষ্টির চাহিদা পূরণের জন্য বছরে দুইবার সার ব্যবহারের পরামর্শ দেন।

বিডিপ্রেস/আরজে