BDpress

যে খাবারগুলো বেশি সময় নিয়ে রান্না করা উচিৎ না

বিডিপ্রেস ডেস্ক

অ+ অ-
যে খাবারগুলো বেশি সময় নিয়ে রান্না করা উচিৎ না
যেকোনো খাবার শুধু রান্না করলেই হবে না, জানতে হবে রান্নার সঠিক নিয়ম। কিছু কিছু খাবার আছে যা অল্প আঁচেই রান্না করতে হয়। যেমন ধরুন পোলাও বা বিরিয়ানিতে দম তো দিতেই হয়। এছাড়া মাংস কিংবা কারি জাতীয় অনেক খাবারই অল্প আঁচে অনেকটা সময় নিয়ে রান্না করলে তবেই হয়ে ওঠে মজাদার।

তবে হ্যাঁ, কিছু খাবার কিন্তু আছে যেগুলো অল্প আঁচে বেশি সময় নিয়ে মোটেও রান্না করা উচিত নয়। এতে স্বাদ তো নষ্ট হয়ই, একই সাথে নষ্ট হয় খাবারের গুণাগুণও। চলুন, চিনে নিই এমন কিছু খাবার।

১. নুডুলস বা পাস্তা জাতীয় খাবারকে কখনো অল্প আঁচে রাঁধবেন না। বেশি সময়ও রাঁধার প্রয়োজন নেই। এই খাবারগুলো ওভার কুকড হলে খেতে জঘন্য লাগবে।

২. শাক কখনো বেশি সময় রান্না করবেন না। আমাদের দেশে শাক দীর্ঘসময় জ্বাল দিয়ে রাঁধার একটা প্রবণতা আছে। এতে শাকের সমস্ত গুনাগুণই শেষ হয়ে যায়।

৩. আলু ছাড়া অন্য কোনো সবজিও বেশি সময় রান্না করার প্রয়োজন নেই। কেবল সিদ্ধ হতে যেটুকু সময় লাগে, সেটুকু সময়ই রান্না করুন। বেশি সময় রাধলে পুষ্টিগুণ চলে যায়।

৪. চিংড়ী মাছ কখনোই বেশি সময় নিয়ে রান্না করবেন না। এতে মাছ শক্ত হয়ে যায়।

৫. অন্যান্য মাছের ক্ষেত্রেও তাই। সেগুলো শক্ত হবে না, তবে বেশি সময় দমে রাখলে মাছ ভেঙে যাবে ও পুষ্টিগুণও নষ্ট হয়ে যায়।

৬. দই বা ক্রিম বা দুধ ইত্যাদি খাবারগুলোও তরকারিতে ব্যবহার করলে বেশিসময় রান্না করার কোনো দরকার নেই। এতে খাবারের স্বাদ নষ্ট হয়ে যায়।

৭. খাবারে লেবুর রস দেয়ার পর বেশি সময় রান্না করলে খাবার তেতো হয়ে যাবে।

৮. কুইকার ওটস বা ইনস্ট্যান্ট রাইস, এই খাবারগুলো তৈরিই করা হয়েছে ঝটপট রাঁধার জন্য। এগুলো বেশি সময় নিয়ে রান্না করতে যাবেন না। এতে খাবারটা সম্পূর্ণ নষ্ট হবে।

৯. কোনো ধরনের ফলই কখনো বেশি সময় রান্না বা গরম করবেন না। ফল দিয়ে কোনো খাবার তৈরি করলেও ঝটপট শেষ করুন উত্তাপের কাজ।

তথ্য ও ছবি : এপি

বিডিপ্রেস/আরজে

এ সম্পর্কিত অন্যান্য খবর

BDpress

যে খাবারগুলো বেশি সময় নিয়ে রান্না করা উচিৎ না


যে খাবারগুলো বেশি সময় নিয়ে রান্না করা উচিৎ না

তবে হ্যাঁ, কিছু খাবার কিন্তু আছে যেগুলো অল্প আঁচে বেশি সময় নিয়ে মোটেও রান্না করা উচিত নয়। এতে স্বাদ তো নষ্ট হয়ই, একই সাথে নষ্ট হয় খাবারের গুণাগুণও। চলুন, চিনে নিই এমন কিছু খাবার।

১. নুডুলস বা পাস্তা জাতীয় খাবারকে কখনো অল্প আঁচে রাঁধবেন না। বেশি সময়ও রাঁধার প্রয়োজন নেই। এই খাবারগুলো ওভার কুকড হলে খেতে জঘন্য লাগবে।

২. শাক কখনো বেশি সময় রান্না করবেন না। আমাদের দেশে শাক দীর্ঘসময় জ্বাল দিয়ে রাঁধার একটা প্রবণতা আছে। এতে শাকের সমস্ত গুনাগুণই শেষ হয়ে যায়।

৩. আলু ছাড়া অন্য কোনো সবজিও বেশি সময় রান্না করার প্রয়োজন নেই। কেবল সিদ্ধ হতে যেটুকু সময় লাগে, সেটুকু সময়ই রান্না করুন। বেশি সময় রাধলে পুষ্টিগুণ চলে যায়।

৪. চিংড়ী মাছ কখনোই বেশি সময় নিয়ে রান্না করবেন না। এতে মাছ শক্ত হয়ে যায়।

৫. অন্যান্য মাছের ক্ষেত্রেও তাই। সেগুলো শক্ত হবে না, তবে বেশি সময় দমে রাখলে মাছ ভেঙে যাবে ও পুষ্টিগুণও নষ্ট হয়ে যায়।

৬. দই বা ক্রিম বা দুধ ইত্যাদি খাবারগুলোও তরকারিতে ব্যবহার করলে বেশিসময় রান্না করার কোনো দরকার নেই। এতে খাবারের স্বাদ নষ্ট হয়ে যায়।

৭. খাবারে লেবুর রস দেয়ার পর বেশি সময় রান্না করলে খাবার তেতো হয়ে যাবে।

৮. কুইকার ওটস বা ইনস্ট্যান্ট রাইস, এই খাবারগুলো তৈরিই করা হয়েছে ঝটপট রাঁধার জন্য। এগুলো বেশি সময় নিয়ে রান্না করতে যাবেন না। এতে খাবারটা সম্পূর্ণ নষ্ট হবে।

৯. কোনো ধরনের ফলই কখনো বেশি সময় রান্না বা গরম করবেন না। ফল দিয়ে কোনো খাবার তৈরি করলেও ঝটপট শেষ করুন উত্তাপের কাজ।

তথ্য ও ছবি : এপি

বিডিপ্রেস/আরজে

স্পটলাইট