BDpress

জনগণের রায় মেনে নিতে প্রস্তুত আ’লীগ

নিজস্ব প্রতিবেদক

অ+ অ-
জনগণের রায় মেনে নিতে প্রস্তুত আ’লীগ
বিএনপির জ্বালাও-পোড়াও ও ধ্বংসযজ্ঞ শুরু হওয়ার অশনি সংকেত দিয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম।

তিনি বলেন, দেশ বর্তমানে শান্ত ও নিরাপদ রয়েছে। মঙ্গলবার খালেদা জিয়ার আদালতে হাজিরা শেষে সচিবালয় এলাকায় ভাঙচুরের তাণ্ডব চালায় বিএনপির নেতাকর্মীরা। এ ধরনের ঘটনা নি:সন্দেহ অশুভ লক্ষণ। আমি এতে ফের  জ্বালাও-পোড়াও ও ধ্বংসযজ্ঞ শুরু হওয়ার অশনি সংকেত দেখছি।

বুধবার রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় আয়োজিত বিশ্ব এইডস দিবসের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, বিএনপির এই জ্বালাও-পোড়াও চালিয়ে ভয় দেখিয়ে লাভ নেই। সংবিধান অনুযায়ী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বেই যথাসময়ে জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। জনগণের রায় মেনে নিতে প্রস্তুত আছি আমরা।

২০৩০ সালের মধ্যে বাংলাদেশ এইডস মুক্ত হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

তিনি বলেন, পোলিও ও ধনুষ্টঙ্কারমুক্ত হয়েছে দেশ। সংক্রামক রোগের হার অনেকগুণ কমে গেছে। বাঙালি সব সময় জয় করতে জানে। আমাদের প্রত্যয় আছে, আমরা জয় করব। দেশে এইডস রোগী ও এইচআইভি সংক্রমণের হারও নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। তবে অসচেতন হলে  ও কার্যকর উদ্যোগ অব্যাহত না রাখলে দেশে দ্রুতহারে এইচআইভি সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার ঝুঁকিপূর্ণ আছে।

স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব মো. সিরাজুল হক খানের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ, বিএমএ সভাপতি ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন, পরিবার পরিকল্পনা অধিদফতরের মহাপরিচালক ডা. কাজী মোস্তফা সারোয়ার প্রমুখ।

মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) ডা. মো. ইহতেশামুল হক চৌধুরী, স্বাগত বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত সচিব (জনস্বাস্থ্য ও বিশ্বস্বাস্থ্য) রোকসানা কাদের।

বিডিপ্রেস/আরজে

এ সম্পর্কিত অন্যান্য খবর

BDpress

জনগণের রায় মেনে নিতে প্রস্তুত আ’লীগ


জনগণের রায় মেনে নিতে প্রস্তুত আ’লীগ

তিনি বলেন, দেশ বর্তমানে শান্ত ও নিরাপদ রয়েছে। মঙ্গলবার খালেদা জিয়ার আদালতে হাজিরা শেষে সচিবালয় এলাকায় ভাঙচুরের তাণ্ডব চালায় বিএনপির নেতাকর্মীরা। এ ধরনের ঘটনা নি:সন্দেহ অশুভ লক্ষণ। আমি এতে ফের  জ্বালাও-পোড়াও ও ধ্বংসযজ্ঞ শুরু হওয়ার অশনি সংকেত দেখছি।

বুধবার রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় আয়োজিত বিশ্ব এইডস দিবসের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, বিএনপির এই জ্বালাও-পোড়াও চালিয়ে ভয় দেখিয়ে লাভ নেই। সংবিধান অনুযায়ী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বেই যথাসময়ে জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। জনগণের রায় মেনে নিতে প্রস্তুত আছি আমরা।

২০৩০ সালের মধ্যে বাংলাদেশ এইডস মুক্ত হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

তিনি বলেন, পোলিও ও ধনুষ্টঙ্কারমুক্ত হয়েছে দেশ। সংক্রামক রোগের হার অনেকগুণ কমে গেছে। বাঙালি সব সময় জয় করতে জানে। আমাদের প্রত্যয় আছে, আমরা জয় করব। দেশে এইডস রোগী ও এইচআইভি সংক্রমণের হারও নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। তবে অসচেতন হলে  ও কার্যকর উদ্যোগ অব্যাহত না রাখলে দেশে দ্রুতহারে এইচআইভি সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার ঝুঁকিপূর্ণ আছে।

স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব মো. সিরাজুল হক খানের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ, বিএমএ সভাপতি ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন, পরিবার পরিকল্পনা অধিদফতরের মহাপরিচালক ডা. কাজী মোস্তফা সারোয়ার প্রমুখ।

মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) ডা. মো. ইহতেশামুল হক চৌধুরী, স্বাগত বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত সচিব (জনস্বাস্থ্য ও বিশ্বস্বাস্থ্য) রোকসানা কাদের।

বিডিপ্রেস/আরজে

স্পটলাইট