BDpress

ভাইয়ের অপহরণ নাটক সাজিয়ে ফাঁসলেন নারী

জেলা প্রতিনিধি

অ+ অ-
ভাইয়ের অপহরণ নাটক সাজিয়ে ফাঁসলেন নারী
হবিগঞ্জের চুনারুঘাটে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে নিজের ভাইকে অপহরণ দেখিয়ে মামলা দিয়ে নিজেই ফেঁসে গেছেন রহিমা আক্তার নামে এক নারী। উল্টো তার বিরুদ্ধে আদালতে মামলা হয়েছে। উপজেলার রানীগাঁও ইউনিয়নের আব্দুল্লাপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে।মামলা সূত্রে জানা যায়, গত বছরের ২৬ ডিসেম্বর উপজেলার রানীগাঁও ইউনিয়নের আব্দুল্লাপুর গ্রামের মৃত মোববুল হোসেনের মেয়ে রহিমা খাতুন বাদী হয়ে একই উপজেলার মিরাশী ইউনিয়নের আসলা শেনারগাঁও গ্রামের ফিরোজ আলীর ছেলে মো. মানিক মিয়াসহ (৪৫) ১৫ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা আরও ৪/৫ জনকে আসামি করে চুনারুঘাট থানায় অপহরণ মামলা করেন।

মামলার পর পুলিশ তিনজনকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে পাঠায়। মুলত দু’পক্ষের মাঝে পূর্ব বিরোধের জের ধরেই বাদী রহিমা খাতুন তার ভাই ফারুক মিয়াকে অপহরণের নাটক সাজিয়ে এ মামলা করেন। ওই মামলায় তিনজন জেলও খাটেন।

এদিকে গত জুন মাসে বিচার শালিসের কথা বলে কৌশলে ভিকটিম ফারুক মিয়া পুলিশের কাছে আত্মসমর্পণ করেন। পরে পুলিশ তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে অপহরণের বিষয়টি সাজানো বলে স্বীকার করেন।

পুলিশ আদালতে ফারুক মিয়াকে হাজির করলে তিনি জবানবন্দিতে ১৫ আসামিকে নির্দোষ বলে স্বীকারোক্তি দেন। আদালত আসামিদের অপহরণ মামলা থেকে অব্যাহতি দেন।

কিন্তু এ ঘটনায় রহিমা খাতুনের বিরুদ্ধে ২১ নভেম্বর মামলা নেয়ার জন্য আদালতের অনুমতি চেয়ে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই মো. আব্দুল মুকিত চৌধুরী বাদী হয়ে মামলা করেন।

এ বিষয়ে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মো. আব্দুল মুকিত চৌধুরী জানান, রহিমার মামলাটি ভুয়া প্রমাণিত হওয়ায় বাদীনির বিরুদ্ধে আদালতে পাল্টা মামলা হয়েছে। মামলাটি আমলে নিয়েছেন আদালত।

বিডিপ্রেস/মিঠু

এ সম্পর্কিত অন্যান্য খবর

BDpress

ভাইয়ের অপহরণ নাটক সাজিয়ে ফাঁসলেন নারী


ভাইয়ের অপহরণ নাটক সাজিয়ে ফাঁসলেন নারী

মামলার পর পুলিশ তিনজনকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে পাঠায়। মুলত দু’পক্ষের মাঝে পূর্ব বিরোধের জের ধরেই বাদী রহিমা খাতুন তার ভাই ফারুক মিয়াকে অপহরণের নাটক সাজিয়ে এ মামলা করেন। ওই মামলায় তিনজন জেলও খাটেন।

এদিকে গত জুন মাসে বিচার শালিসের কথা বলে কৌশলে ভিকটিম ফারুক মিয়া পুলিশের কাছে আত্মসমর্পণ করেন। পরে পুলিশ তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে অপহরণের বিষয়টি সাজানো বলে স্বীকার করেন।

পুলিশ আদালতে ফারুক মিয়াকে হাজির করলে তিনি জবানবন্দিতে ১৫ আসামিকে নির্দোষ বলে স্বীকারোক্তি দেন। আদালত আসামিদের অপহরণ মামলা থেকে অব্যাহতি দেন।

কিন্তু এ ঘটনায় রহিমা খাতুনের বিরুদ্ধে ২১ নভেম্বর মামলা নেয়ার জন্য আদালতের অনুমতি চেয়ে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই মো. আব্দুল মুকিত চৌধুরী বাদী হয়ে মামলা করেন।

এ বিষয়ে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মো. আব্দুল মুকিত চৌধুরী জানান, রহিমার মামলাটি ভুয়া প্রমাণিত হওয়ায় বাদীনির বিরুদ্ধে আদালতে পাল্টা মামলা হয়েছে। মামলাটি আমলে নিয়েছেন আদালত।

বিডিপ্রেস/মিঠু

স্পটলাইট