BDpress

কিশোরগঞ্জে ট্রলারডুবিতে নিখোঁজ ৩

জেলা প্রতিবেদক

অ+ অ-
কিশোরগঞ্জে ট্রলারডুবিতে নিখোঁজ ৩
কিশোরগঞ্জের নিকলীতে পাথর বোঝাই একটি স্টিলবডি ট্রলার ডুবে গিয়ে তিনজন নিখোঁজের ঘটনা ঘটেছে। বৃহস্পতিবার সকাল ৮ টার দিকে উপজেলার সিংপুর বাজারসংলগ্ন এলাকায় ধনু নদীতে এ ঘটনাটি ঘটে। নিখোঁজদের উদ্ধারের জন্য নদীতে একদল ডুবুরি কাজ করছেন।

নিকলী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইয়াহ্ হিয়া খান ঘটনা সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

নিখোঁজরা হলেন- বরগুনা জেলার তালতলী থানার দুলাল মিয়ার ছেলে আলামিন (২৮), একই এলাকার হারুন আকন্দের ছেলে মোহসিন মিয়া (২৮) ও মহিউদ্দিন (৬০)।  

বেঁচে যাওয়া ট্রলারের চালক মহসিন হোসেন ও স্থানীয়রা জানান, সিলেট থেকে ঢাকাগামী পাথর বোঝাই একটি স্টিলবডি স্টিমার বুধবার রাতে নিকলী উপজেলার সিংপুর বাজার সংলগ্ন কুয়াশার জন্য আটকে রাত্রিযাপন করে। পরদিন বৃহস্পতিবার সকালে ট্রলারটি ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা হলে কিছুদূর গিয়ে ডুবে যায়। এ সময় ট্রলারে থাকা চারজন কর্মচারী সাঁতার কেটে তীরে উঠতে চেষ্টা করলে চালক সহসিন হোসেন ছাড়া বাকিরা পানিতে ডুবে যায়। খবর পেয়ে কিশোরগঞ্জের চামটাঘাট থেকে একদল নৌপুলিশ ও ডুবুরি ঘটনাস্থলে গিয়ে দুপুর ৩টার দিকে নদীতে তাদেরকে উদ্ধার কাজ শুরু করে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত (বিকেল ৫ টা) তাদের কাউকে উদ্ধার করা যায়নি।

নিকলী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইয়াহ্ হিয়া খান বলেন, আমরা উদ্ধারের কাজ অব্যাহত রেখেছি। নদীতে গভীর পানি এবং স্রোত ও প্রচন্ড ঠাণ্ডা থাকার কারনে উদ্ধারের কাজ কিছুটা বিঘ্ন ঘটছে। এখনো কাউকে উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি। তবে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।   

বিডিপ্রেস/আরজে

এ সম্পর্কিত অন্যান্য খবর

BDpress

কিশোরগঞ্জে ট্রলারডুবিতে নিখোঁজ ৩


কিশোরগঞ্জে ট্রলারডুবিতে নিখোঁজ ৩

নিকলী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইয়াহ্ হিয়া খান ঘটনা সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

নিখোঁজরা হলেন- বরগুনা জেলার তালতলী থানার দুলাল মিয়ার ছেলে আলামিন (২৮), একই এলাকার হারুন আকন্দের ছেলে মোহসিন মিয়া (২৮) ও মহিউদ্দিন (৬০)।  

বেঁচে যাওয়া ট্রলারের চালক মহসিন হোসেন ও স্থানীয়রা জানান, সিলেট থেকে ঢাকাগামী পাথর বোঝাই একটি স্টিলবডি স্টিমার বুধবার রাতে নিকলী উপজেলার সিংপুর বাজার সংলগ্ন কুয়াশার জন্য আটকে রাত্রিযাপন করে। পরদিন বৃহস্পতিবার সকালে ট্রলারটি ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা হলে কিছুদূর গিয়ে ডুবে যায়। এ সময় ট্রলারে থাকা চারজন কর্মচারী সাঁতার কেটে তীরে উঠতে চেষ্টা করলে চালক সহসিন হোসেন ছাড়া বাকিরা পানিতে ডুবে যায়। খবর পেয়ে কিশোরগঞ্জের চামটাঘাট থেকে একদল নৌপুলিশ ও ডুবুরি ঘটনাস্থলে গিয়ে দুপুর ৩টার দিকে নদীতে তাদেরকে উদ্ধার কাজ শুরু করে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত (বিকেল ৫ টা) তাদের কাউকে উদ্ধার করা যায়নি।

নিকলী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইয়াহ্ হিয়া খান বলেন, আমরা উদ্ধারের কাজ অব্যাহত রেখেছি। নদীতে গভীর পানি এবং স্রোত ও প্রচন্ড ঠাণ্ডা থাকার কারনে উদ্ধারের কাজ কিছুটা বিঘ্ন ঘটছে। এখনো কাউকে উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি। তবে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।   

বিডিপ্রেস/আরজে