BDpress

মাদারীপুরে জুট মিলে আগুন, ১৫ ঘণ্টার চেষ্টায় নিয়ন্ত্রণে

জেলা প্রতিনিধি

অ+ অ-
মাদারীপুরে জুট মিলে আগুন, ১৫ ঘণ্টার চেষ্টায় নিয়ন্ত্রণে
মাদারীপুর টিভি ক্লিনিক এলাকায় হায়দার কাজী জুট মিলে আগুনের ঘটনায় ফায়ার সার্ভিসের ১৫ ঘণ্টা চেষ্টার ফলে মঙ্গলবার সকাল ৮টার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে। তবে সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণের জন্য কাজ করতে হবে মঙ্গলবার সন্ধ্যা পর্যন্ত।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, সোমবার বিকেল ৫টার দিকে হায়দার কাজী জুট মিলে যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে আগুনের সূত্রপাত হয়। মুহুর্তের মধ্যেই আগুন চারিদিকে ছড়িয়ে পড়ে। খবর পেয়ে মাদারীপুর ফায়ার সার্ভিস ঘটনাস্থলে পৌছে আগুন নিয়ন্ত্রণে চেষ্টা করে। তবে আগুনেও তীব্রতা আরো ভয়বাহ হলে রাতে আরো ৬টি ইউনিট আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করে। মঙ্গলবার সকাল ৮টার দিকে ১৫ ঘণ্টার চেষ্টার পর আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে। তবে পরিস্থিতি সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে আনতে কাজ করতে হবে সন্ধ্যা পর্যন্ত। খবর পেয়ে মাদারীপুর সদর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে আইনশৃংঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে কাজ করে।
এছাড়াও মাদারীপুর জেলা প্রশাসক ওয়াহিদুল ইসলাম, পুলিশ সুপার সরোয়ার হোসেন, পৌর মেয়র খালিদ হোসেন ইয়াদ ঘটনাস্থল পরিদর্শণ করেছে। ফায়ার সার্ভিসের এক কর্মকর্তা অপরিকল্পিত গোড়াউনকে দায়ী করছেন। ক্ষতির পরিমাণ এখনো নির্ধারণ করা যায়নি।
ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স-এর ফরিদপুর অঞ্চলের সহকারী পরিচালক এবিএম মমতাজ উদ্দিন জানান, মিলের গোড়াউনগুলো অপকল্পিতভাবে তৈরি করা হয়েছে। যে কারণে আগুন সহজে নিয়ন্ত্রণ করা যায়নি। মিলের অভ্যন্তরীণ রাস্তা সরু থাকায় গোড়াউন পর্যন্ত ফায়ার সার্ভিসের গাড়ি ঢুকানো যায়নি। পরিকল্পিতভাবে গোড়াউন নির্মাণ করা হলে এমন দুঘর্টনায় ক্ষতির পরিমাণ কম হতো।’

বিডিপ্রেস/জিএম

এ সম্পর্কিত অন্যান্য খবর

BDpress

মাদারীপুরে জুট মিলে আগুন, ১৫ ঘণ্টার চেষ্টায় নিয়ন্ত্রণে


মাদারীপুরে জুট মিলে আগুন, ১৫ ঘণ্টার চেষ্টায় নিয়ন্ত্রণে

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, সোমবার বিকেল ৫টার দিকে হায়দার কাজী জুট মিলে যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে আগুনের সূত্রপাত হয়। মুহুর্তের মধ্যেই আগুন চারিদিকে ছড়িয়ে পড়ে। খবর পেয়ে মাদারীপুর ফায়ার সার্ভিস ঘটনাস্থলে পৌছে আগুন নিয়ন্ত্রণে চেষ্টা করে। তবে আগুনেও তীব্রতা আরো ভয়বাহ হলে রাতে আরো ৬টি ইউনিট আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করে। মঙ্গলবার সকাল ৮টার দিকে ১৫ ঘণ্টার চেষ্টার পর আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে। তবে পরিস্থিতি সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে আনতে কাজ করতে হবে সন্ধ্যা পর্যন্ত। খবর পেয়ে মাদারীপুর সদর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে আইনশৃংঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে কাজ করে।
এছাড়াও মাদারীপুর জেলা প্রশাসক ওয়াহিদুল ইসলাম, পুলিশ সুপার সরোয়ার হোসেন, পৌর মেয়র খালিদ হোসেন ইয়াদ ঘটনাস্থল পরিদর্শণ করেছে। ফায়ার সার্ভিসের এক কর্মকর্তা অপরিকল্পিত গোড়াউনকে দায়ী করছেন। ক্ষতির পরিমাণ এখনো নির্ধারণ করা যায়নি।
ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স-এর ফরিদপুর অঞ্চলের সহকারী পরিচালক এবিএম মমতাজ উদ্দিন জানান, মিলের গোড়াউনগুলো অপকল্পিতভাবে তৈরি করা হয়েছে। যে কারণে আগুন সহজে নিয়ন্ত্রণ করা যায়নি। মিলের অভ্যন্তরীণ রাস্তা সরু থাকায় গোড়াউন পর্যন্ত ফায়ার সার্ভিসের গাড়ি ঢুকানো যায়নি। পরিকল্পিতভাবে গোড়াউন নির্মাণ করা হলে এমন দুঘর্টনায় ক্ষতির পরিমাণ কম হতো।’

বিডিপ্রেস/জিএম