BDpress

সাব-এডিটরদের ব্যাপারে যা বললেন তথ্যমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক

অ+ অ-
সাব-এডিটরদের ব্যাপারে যা বললেন তথ্যমন্ত্রী
কোনো সাব-এডিটর যেকোনো দুর্ঘটনা বা বিপদগ্রস্ত হলে সাথে সাথে সাব-এডিটরস এসোসিয়েশনের নেতৃবৃন্দ আমাদের কাছে ফোন করে জানাবেন। পরে এ বিষয়ে একটি চিঠি আমাদেরকে দেবেন। আমরা সংশ্লিষ্ট সাব-এডিটরকে সহযোগিতার জন্য অবশ্যই চেষ্টা করব। আমি কল্যাণ ট্রাস্টের প্রধান হিসেবে এ ব্যবস্থা যেকোনো সময় নিতে পারি। এখানে কোনো জটিলতা নেই।

মঙ্গলবার সচিবালয়ে সভাকক্ষে ঢাকা সাব এডিটরস কাউন্সিলের নেতাদের সাথে বৈঠকে এমন আশ্বাস দিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু।

তিনি বলেন, অনেক সময় বিএফইউজে বা ডিইউজের পক্ষ থেকে মফসলের যেসব সাংবাদিকদের তালিকা আমাদের কাছে সাহায্যের জন্য পাঠানো হয়, তা নিয়ে প্রশ্ন উঠে। এ জন্য আপনারা যারা সাব-এডিটর আছেন তারা সরাসরি আমাকে বলতে পারেন। এমনকি তাৎক্ষণিক যদি হেল্প করতে হয় তাহলেও করা যাবে। প্রয়োজনে পরে ফর্মালিটিজ করা হবে।

ওয়েজবোর্ড বাস্তবায়ন করে না অথচ এসব পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশকরা প্রধানমন্ত্রী ও রাষ্ট্রপতির বিদেশ সফরসঙ্গী হয়ে ঘুড়ে বেড়ান এ প্রসঙ্গে তথ্যমন্ত্রী বলেন, এ বিষয়ে আমরা সংশ্লিষ্ট দফতরগুলোতে একটি তালিকা দিব। সেখানে উল্লেখ থাকবে কারা ওয়েজবোর্ড দেয় না। তালিকায় লিখে দিব এসব সম্পাদকদের সফর সঙ্গী করলে সাংবাদিকরা বিক্ষুব্ধ হয়।

সাব এডিটররা যাতে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর বিদেশ সফরসঙ্গী হোন এ জন্য আমরা একটি তালিকা প্রধানমন্ত্রী ও রাষ্ট্রপতির দফতরে দিব।

মন্ত্রী এ সময় আক্ষেপ প্রকাশ করে বলেন, এসব জায়গায় ইকবাল সোবহান চৌধুরী ও এহসানুল করিম সাহেবরা তো আছেন। তারা তো সাংবাদিক। তারা আপনাদের জন্য কিছু করে না কেন? তারা তো এসব সহযোগিতা করতে পারেন। এটা তো আমার কাজ নয়।

হাসানুল হক ইনু বলেন, অফিস নির্মাণের বিষয়ে আপনারা বলেছেন। এটা গণপূর্তের সাথে আপনারা কথা বলে কোন জায়গা ফাঁকা আছে কিনা সেটা আমাকে জানান। আমি হস্তক্ষেপ করে বরাদ্দের ব্যবস্থা করে দিব।

ওয়েজবোর্ড বাস্তবায়নের জন্য ডিএফিতে কমিটি আছে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, আমরা যেটা করতে পারি গণমাধ্যমের কর্মীদের কোন মালিক বা সম্পাদকের বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ থাকলে আমাদেরকে জানান। এ জন্য পিআইডিতে একটি বাক্স রাখা হবে। সেখানে কার কী অভিযোগ আছে সেটা দেখা হবে। কে অভিযোগ করেছেন তা আমরা গোপন রাখাব।

এ সময় প্রধান তথ্য কর্মকর্তাকে একটি বাক্স রাখতে এবং এ সংক্রান্ত একটি বিজ্ঞাপন পত্রিকায় প্রকাশের নির্দেশ দেন মন্ত্রী। এ অভিযোগ সরকারের বিরুদ্ধের হতে পারে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

সাব এডিটরদের দাবির প্রেক্ষিতে তথ্যমন্ত্রী বলেন, মালিকরা যাতে সাংবাদিকদের ওয়েজবোর্ড দেন সে বিষয়ে আমরা একটি সতর্কবার্তা দিতে পারি। সেখানে উল্লেখ থাকবে ওয়েজবোর্ড না দিলে আমরা সরকারি সব ধরনের সুবিধা বন্ধ করে দিব।

বিডিপ্রেস/আরজে

এ সম্পর্কিত অন্যান্য খবর

BDpress

সাব-এডিটরদের ব্যাপারে যা বললেন তথ্যমন্ত্রী


সাব-এডিটরদের ব্যাপারে যা বললেন তথ্যমন্ত্রী

মঙ্গলবার সচিবালয়ে সভাকক্ষে ঢাকা সাব এডিটরস কাউন্সিলের নেতাদের সাথে বৈঠকে এমন আশ্বাস দিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু।

তিনি বলেন, অনেক সময় বিএফইউজে বা ডিইউজের পক্ষ থেকে মফসলের যেসব সাংবাদিকদের তালিকা আমাদের কাছে সাহায্যের জন্য পাঠানো হয়, তা নিয়ে প্রশ্ন উঠে। এ জন্য আপনারা যারা সাব-এডিটর আছেন তারা সরাসরি আমাকে বলতে পারেন। এমনকি তাৎক্ষণিক যদি হেল্প করতে হয় তাহলেও করা যাবে। প্রয়োজনে পরে ফর্মালিটিজ করা হবে।

ওয়েজবোর্ড বাস্তবায়ন করে না অথচ এসব পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশকরা প্রধানমন্ত্রী ও রাষ্ট্রপতির বিদেশ সফরসঙ্গী হয়ে ঘুড়ে বেড়ান এ প্রসঙ্গে তথ্যমন্ত্রী বলেন, এ বিষয়ে আমরা সংশ্লিষ্ট দফতরগুলোতে একটি তালিকা দিব। সেখানে উল্লেখ থাকবে কারা ওয়েজবোর্ড দেয় না। তালিকায় লিখে দিব এসব সম্পাদকদের সফর সঙ্গী করলে সাংবাদিকরা বিক্ষুব্ধ হয়।

সাব এডিটররা যাতে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর বিদেশ সফরসঙ্গী হোন এ জন্য আমরা একটি তালিকা প্রধানমন্ত্রী ও রাষ্ট্রপতির দফতরে দিব।

মন্ত্রী এ সময় আক্ষেপ প্রকাশ করে বলেন, এসব জায়গায় ইকবাল সোবহান চৌধুরী ও এহসানুল করিম সাহেবরা তো আছেন। তারা তো সাংবাদিক। তারা আপনাদের জন্য কিছু করে না কেন? তারা তো এসব সহযোগিতা করতে পারেন। এটা তো আমার কাজ নয়।

হাসানুল হক ইনু বলেন, অফিস নির্মাণের বিষয়ে আপনারা বলেছেন। এটা গণপূর্তের সাথে আপনারা কথা বলে কোন জায়গা ফাঁকা আছে কিনা সেটা আমাকে জানান। আমি হস্তক্ষেপ করে বরাদ্দের ব্যবস্থা করে দিব।

ওয়েজবোর্ড বাস্তবায়নের জন্য ডিএফিতে কমিটি আছে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, আমরা যেটা করতে পারি গণমাধ্যমের কর্মীদের কোন মালিক বা সম্পাদকের বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ থাকলে আমাদেরকে জানান। এ জন্য পিআইডিতে একটি বাক্স রাখা হবে। সেখানে কার কী অভিযোগ আছে সেটা দেখা হবে। কে অভিযোগ করেছেন তা আমরা গোপন রাখাব।

এ সময় প্রধান তথ্য কর্মকর্তাকে একটি বাক্স রাখতে এবং এ সংক্রান্ত একটি বিজ্ঞাপন পত্রিকায় প্রকাশের নির্দেশ দেন মন্ত্রী। এ অভিযোগ সরকারের বিরুদ্ধের হতে পারে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

সাব এডিটরদের দাবির প্রেক্ষিতে তথ্যমন্ত্রী বলেন, মালিকরা যাতে সাংবাদিকদের ওয়েজবোর্ড দেন সে বিষয়ে আমরা একটি সতর্কবার্তা দিতে পারি। সেখানে উল্লেখ থাকবে ওয়েজবোর্ড না দিলে আমরা সরকারি সব ধরনের সুবিধা বন্ধ করে দিব।

বিডিপ্রেস/আরজে