BDpress

ফুলপুরে ব্লাস্ট রোগে আক্রান্ত কৃষকের স্বপ্ন

জেলা প্রতিবেদক

অ+ অ-
ফুলপুরে ব্লাস্ট রোগে আক্রান্ত কৃষকের স্বপ্ন
ময়মনসিংহের ফুলপুরে ব্লাস্ট রোগে আক্রান্ত হচ্ছে কৃষকের স্বপ্ন। ছোঁয়াচে আকারে উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে ছড়িয়ে পড়ছে এ রোগ। কোন কোন জায়গায় পাতা ব্লাস্ট, গিট ব্লাস্ট, নেক ব্লাস্ট আবার কোন জায়গায় দেখা দিয়েছে শিষ ব্লাস্ট। এতে ক্ষেতের মাঝখানের কিছু কিছু অংশে বা কোন কোন ক্ষেতের পুরো অংশে পাতা মরে যাচ্ছে, শিষের ভিতরের অংশ জমাট বেঁধে চাল হতে পারছে না, পরিণত বয়সের আগেই ভেঙে যাচ্ছে ধান গাছের কোমর ও গলা। ফলে কাঙ্খিত উৎপাদনে বাঁধাগ্রস্ত হচ্ছেন কৃষক।

এবার বোরোতে বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা দেখা দিলেও হঠাৎ ব্লাস্ট রোগের প্রাদুর্ভাবে হতাশায় কৃষকরা। ক’দিন আগেও ক্ষেতের সবুজ সুন্দর চেহারা দেখে আনন্দে উৎফুল্ল ছিলেন কৃষক। ভাল ফলন ও লাভজনক কৃষির আশায় বুক বেঁধেছিলেন তারা। সকল ঋণ পরিশোধ করেও ভালভাবে সংসার চালানোর স্বপ্ন দেখছিলেন। সে আশায় যেন গুঁড়ে বালি।

ঘরের জমানো টাকা পয়সাসহ ধান চাল বিক্রি করে সব ক্ষেতে ঢেলেছেন। শুধু তাই নয়, ব্যাংক ও উচ্চ হারে দাদন ব্যসায়ীদের নিকট থেকেও কেউ কেউ নিয়েছেন পর্যাপ্ত পরিমাণ ঋণ। ওইসব ক্ষুদ্র ও মাঝারী আয়ের কৃষকদের এখন মাথায় হাত। ঘাড় ছেড়ে দিয়ে অন্ধকার দেখছেন দু’চোখে।

উপজেলার সিংহেশ্বর, ভাইটকান্দি, ছনধরা, ফুলপুর, বওলা, বালিয়াসহ বিভিন্ন ইউনিয়নে খবর নিয়ে জানা যায়, প্রায় সব জায়গাতেই একই অবস্থা। সাহাপুর ব্লকের উপসহকারী কৃষি অফিসার মমতাজ উদ্দিন বলেন, আমরা প্রতিদিনই মাঠে যাচ্ছি। ব্লাস্ট প্রতিরোধে করণীয় সম্পর্কে কৃষকদের বুদ্ধি পরামর্শ দিচ্ছি। নাটিভো ব্যবহার করে অনেকেই উপকার পাচ্ছেন। আশা করছি কৃষক এতডা ক্ষতিগ্রস্ত হবে না।

বাঁশতলা ব্লকের উপ-সহকারী কৃষি অফিসার শাহ মোহাম্মদ মিসবাহ উদ্দিন বলেন, তার ব্লকে অনেকের ক্ষেতেই ব্লাস্ট দেখা দিয়েছে। তিনি এর প্রতিকার বিষয়ে নিয়মিত পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছেন। উপ-সহকারী উদ্ভিদ সংরক্ষণ অফিসার দেলোয়ার হোসেন খান জানান, এবার উপজেলার ২০ হাজার ১৯০ হেক্টর জমিতে বোরো আবাদ হয়েছে। তার হিসাব মতে, এর মধ্যে মাত্র ১০ হেক্টর জমিতে ব্লাস্ট রোগ দেখা দিয়েছে। উপজেলা কৃষি অফিসার সুকল্প দাস বলেন, আমি এর সঠিক পরিমাণ বলতে পারব না। তবে সব ইউনিয়ন থেকেই ব্লাস্ট রোগে আক্রমণের খবর পাওয়া যাচ্ছে। আমরা এর প্রতিরোধে কাজ করে যাচ্ছি।
বিডিপ্রেস/আলী



এ সম্পর্কিত অন্যান্য খবর

BDpress

ফুলপুরে ব্লাস্ট রোগে আক্রান্ত কৃষকের স্বপ্ন


ফুলপুরে ব্লাস্ট রোগে আক্রান্ত কৃষকের স্বপ্ন

এবার বোরোতে বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা দেখা দিলেও হঠাৎ ব্লাস্ট রোগের প্রাদুর্ভাবে হতাশায় কৃষকরা। ক’দিন আগেও ক্ষেতের সবুজ সুন্দর চেহারা দেখে আনন্দে উৎফুল্ল ছিলেন কৃষক। ভাল ফলন ও লাভজনক কৃষির আশায় বুক বেঁধেছিলেন তারা। সকল ঋণ পরিশোধ করেও ভালভাবে সংসার চালানোর স্বপ্ন দেখছিলেন। সে আশায় যেন গুঁড়ে বালি।

ঘরের জমানো টাকা পয়সাসহ ধান চাল বিক্রি করে সব ক্ষেতে ঢেলেছেন। শুধু তাই নয়, ব্যাংক ও উচ্চ হারে দাদন ব্যসায়ীদের নিকট থেকেও কেউ কেউ নিয়েছেন পর্যাপ্ত পরিমাণ ঋণ। ওইসব ক্ষুদ্র ও মাঝারী আয়ের কৃষকদের এখন মাথায় হাত। ঘাড় ছেড়ে দিয়ে অন্ধকার দেখছেন দু’চোখে।

উপজেলার সিংহেশ্বর, ভাইটকান্দি, ছনধরা, ফুলপুর, বওলা, বালিয়াসহ বিভিন্ন ইউনিয়নে খবর নিয়ে জানা যায়, প্রায় সব জায়গাতেই একই অবস্থা। সাহাপুর ব্লকের উপসহকারী কৃষি অফিসার মমতাজ উদ্দিন বলেন, আমরা প্রতিদিনই মাঠে যাচ্ছি। ব্লাস্ট প্রতিরোধে করণীয় সম্পর্কে কৃষকদের বুদ্ধি পরামর্শ দিচ্ছি। নাটিভো ব্যবহার করে অনেকেই উপকার পাচ্ছেন। আশা করছি কৃষক এতডা ক্ষতিগ্রস্ত হবে না।

বাঁশতলা ব্লকের উপ-সহকারী কৃষি অফিসার শাহ মোহাম্মদ মিসবাহ উদ্দিন বলেন, তার ব্লকে অনেকের ক্ষেতেই ব্লাস্ট দেখা দিয়েছে। তিনি এর প্রতিকার বিষয়ে নিয়মিত পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছেন। উপ-সহকারী উদ্ভিদ সংরক্ষণ অফিসার দেলোয়ার হোসেন খান জানান, এবার উপজেলার ২০ হাজার ১৯০ হেক্টর জমিতে বোরো আবাদ হয়েছে। তার হিসাব মতে, এর মধ্যে মাত্র ১০ হেক্টর জমিতে ব্লাস্ট রোগ দেখা দিয়েছে। উপজেলা কৃষি অফিসার সুকল্প দাস বলেন, আমি এর সঠিক পরিমাণ বলতে পারব না। তবে সব ইউনিয়ন থেকেই ব্লাস্ট রোগে আক্রমণের খবর পাওয়া যাচ্ছে। আমরা এর প্রতিরোধে কাজ করে যাচ্ছি।
বিডিপ্রেস/আলী