BDpress

মেধাবী শিক্ষার্থীদের ডিআরইউর সংবর্ধনা ও বৃত্তি প্রদান

নিজস্ব প্রতিবেদক

অ+ অ-
মেধাবী শিক্ষার্থীদের ডিআরইউর সংবর্ধনা ও বৃত্তি প্রদান
ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) সদস্য সন্তানদের প্রাইমারি এডুকেশন কমপ্লিশন (পিইসি) ও জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) পরীক্ষায় উত্তীর্ণ কৃতী শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা এবং বৃত্তি প্রদান করা হয়েছে।

শুক্রবার সাগর-রুনী মিলনায়তনে শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে কৃতী শিক্ষার্থীদের হাতে সম্মাননা পত্র, ক্রেস্ট ও বৃত্তি হিসেবে নগদ অর্থ তুলে দেন। ২০১৭ সালে পাস করা পিইসি’র ৩৪ জন, জেএসসি’র ৩০ ও একজন হাফেজে কুরআনসহ মোট ৬৫ জন কৃতী শিক্ষার্থীকে এ বছর পুরস্কার প্রদান করে ডিআরইউ।

ডিআরইউ সভাপতি সাইফুল ইসলামের সভাপতিত্বে ও কল্যাণ সম্পাদক কাওসার আজমের সঞ্চালনায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন ডিআরইউ সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ শুকুর আলী শুভ।

বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন ঢাকা টাইমস ২৪ ডটকমের সম্পাদক আরিফুর রহমান ও উত্তরা ইউনিভার্সিটির উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. ইয়াসমীন আরা লেখা। এছাড়া বক্তব্য রাখেন, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি শাবান মাহমুদ। এ সময় ডিআরইউ সহ-সভাপতি গ্যালমান শফিসহ সিনিয়র সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু বলেন, সরকার দেশে শিক্ষার হার শতভাগে উন্নীত করতে চায়। শিক্ষিত জাতি প্রতিযোগিতামূলক বিশ্বে বাংলাদেশকে আরও এগিয়ে নেবে।

তিনি বলেন, ‘আমরা যখন ক্ষমতায় আসি ২০০৯ সালে, তখন শিক্ষার হার ছিল ৪৭ শতাংশ। আজকে শিক্ষার হার ৭৭ শতাংশ। এটাকে ১০০ শতাংশে উন্নীত করার মধ্যদিয়ে এই দেশকে একটি শিক্ষিত জাতি হিসেবে আমরা গড়ে তুলব।’

পিইসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ কৃতী শিক্ষার্থীরা হলো- সৈয়দ শুকুর আলী শুভর কন্যা সৈয়দা সঞ্চিতা নাহার, মো. ইমদাদুল হক খানের কন্যা সুস্মিতা খান এনি, বাছির জামালের পুত্র আব্দুল্লাহ সাবিক, সাখাওয়াত হোসেনের পুত্র শাহরিয়ার হোসেন, রফিক মোহাম্মদের কন্যা রুহু রওশন, খন্দকার কাওছার হোসেনের কন্যা মৃদুলা মাহজাবিন, বিজন কুমার দাসের কন্যা অঙ্কিতা দাস, মো. মজিবুর রহমানের পুত্র মো. খালিদুর রহমান জিদান, মো. আবুল কাশেমের পুত্র নুরুল ইসলাম সুমন, মোহাম্মদ জাকরিয়ার কন্যা নুসরাত জাহান নিশাত, মোহাম্মদ নুরুল ইসলামের কন্যা ফাতেমা নূর তুবা, কাওসার রহমানের কন্যা লাবিবা সামিয়া রহমান, মিজান মালিকের পুত্র আহলান মালিক, এনামুল কবির রূপমের কন্যা নাফিসা রাইয়ান কবির, মো. সাজ্জাদ হোসেনের কন্যা তানিশা হোসেন রিদা, বাদল নূরের কন্যা সামিয়া রিফা অন্নেশা, মাহফুজা মোসলেহীর কন্যা লুবাবা মোসলেহী, মো. সহিদুল ইসলাম রানার কন্যা ফারহানা ইসলাম মুমু, পরাগ আরমানের কন্যা শ্রীতমা মাধুর্য প্রভা, রাশিদুল ইসলামের পুত্র রিবাতুল ইসলাম, লায়েকুজ্জমানের কন্যা ফারিয়া জান্নাত ঐক্য, মশিউর নেরুর পুত্র আহনাফুর রহমান নাভিদ, শরিফ মুজিবুর রহমানের কন্যা তাসনিম প্রিয়ন্তি, হেলিমুল আলমের কন্যা আশা ফাবিয়ানা, সাগর বিশ্বাসের পুত্র সাত্যিক বিশ্বাস, দিলরুবা আক্তার সুমির পুত্র কাজী জাফির জামান, মো. রুকনুজ্জামান খানের পুত্র সাবিরিত জামান, মাসুম মিজানের কন্যা আফিয়া জাহান পৃথুলা, মনজুর-এ আজিজের কন্যা রোজা আজিজ, মো. শেখ ফরিদ উদ্দিনের কন্যা ফারজানা আক্তার, ইকরামুল কবিরের পুত্র ইখতিয়ার কবির, শহিদুল আজমের কন্যা অতুলা আজম, সুলতান মাহমুদ বাদলের কন্যা জুলফিয়া নূর ও তৌহিদুল ইসলাম মিন্টুর পুত্র গালিব বিন তৌহিদ।

জেএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ কৃতী শিক্ষার্থীরা হলো- শাহনাজ শারমীনের কন্যা অহনা আনজুম, শাহিন হাসনাতের কন্যা আনিকা নাওয়ার, মো. জসিম উদ্দিনের পুত্র রেদওয়ান বিন জসিম আদর, দিনার সুলতানার কন্যা ইশাতির মাখসুরা জাহান, রতন চন্দ্র বালোর পুত্র অনুপ বালো, এম.এ. বাকীর কন্যা হোমায়রা আক্তার ইলামা, মোতাহার হোসেনের পুত্র নাঈম হাসান, মোর্শেদ নোমানের কন্যা তাসকিনা মাহনুর মোর্শেদ পৃথা, প্রণব কুমার মজুমদারের কন্যা প্রমিতি মজুমদার, শফিকুল ইসলাম লেনিনের কন্যা নওশিন আনবার এনা ও নওশিন আনজুম এশা, খন্দকার দেলোয়ার জালালীর পুত্র তিতুমীর খন্দকার রদ্দুর, মোরসালিন বাবলার পুত্র তৌসিফ আহমেদ, এ.এস.এম মঈনুল হকের পুত্র অনির্বাণ হক কাব্য, শাহেদ চৌধুরীর কন্যা তাসফিয়া নওশিন চৌধুরী, দিনেশ দাসের কন্যা অন্বেশা অথৈ, খোকন বড়ুয়ার কন্যা প্রিয়শ্রী বড়ুয়া, মো. মর্তুজা হায়দারের কন্যা মুশফিকা মরিয়ম হায়দার, ওবায়দুর রহমান শাহীনের পুত্র রাফিউন ইবনে শাহীন, আহমেদ পারভেজ খানের পুত্র মাশরুর সাদিব ইফতি, মাহফুজুর রহমান রিমনের কন্যা মাহফুজা নাওয়ার রচনা, নাজমুল আশরাফের কন্যা সিদরাতুল মুনতাহা, শেখ মামুনুর রশীদের পুত্র শেখ শাহরিয়ার আহমেদ, আব্দুর রহিম হারমাছির পুত্র দিহান মারছি, এম. ফসিহ উদ্দিন মাহতাবের কন্যা শাকিরাহ মাহতাব জয়া, মো. শাহজাহান সাজুর পুত্র আলী আরফান সমুদ্র, অঘোর মণ্ডলের কন্যা অর্পিতা মণ্ডল, দীপ আজাদের কন্যা আচল আজাদ ও গোধুলী আজাদ এবং মাহফুজুর রহমান মিশুর পুত্র মারুফ-উর রহমান নীর।

বিডিপ্রেস/আরজে

এ সম্পর্কিত অন্যান্য খবর

BDpress

মেধাবী শিক্ষার্থীদের ডিআরইউর সংবর্ধনা ও বৃত্তি প্রদান


মেধাবী শিক্ষার্থীদের ডিআরইউর সংবর্ধনা ও বৃত্তি প্রদান

শুক্রবার সাগর-রুনী মিলনায়তনে শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে কৃতী শিক্ষার্থীদের হাতে সম্মাননা পত্র, ক্রেস্ট ও বৃত্তি হিসেবে নগদ অর্থ তুলে দেন। ২০১৭ সালে পাস করা পিইসি’র ৩৪ জন, জেএসসি’র ৩০ ও একজন হাফেজে কুরআনসহ মোট ৬৫ জন কৃতী শিক্ষার্থীকে এ বছর পুরস্কার প্রদান করে ডিআরইউ।

ডিআরইউ সভাপতি সাইফুল ইসলামের সভাপতিত্বে ও কল্যাণ সম্পাদক কাওসার আজমের সঞ্চালনায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন ডিআরইউ সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ শুকুর আলী শুভ।

বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন ঢাকা টাইমস ২৪ ডটকমের সম্পাদক আরিফুর রহমান ও উত্তরা ইউনিভার্সিটির উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. ইয়াসমীন আরা লেখা। এছাড়া বক্তব্য রাখেন, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি শাবান মাহমুদ। এ সময় ডিআরইউ সহ-সভাপতি গ্যালমান শফিসহ সিনিয়র সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু বলেন, সরকার দেশে শিক্ষার হার শতভাগে উন্নীত করতে চায়। শিক্ষিত জাতি প্রতিযোগিতামূলক বিশ্বে বাংলাদেশকে আরও এগিয়ে নেবে।

তিনি বলেন, ‘আমরা যখন ক্ষমতায় আসি ২০০৯ সালে, তখন শিক্ষার হার ছিল ৪৭ শতাংশ। আজকে শিক্ষার হার ৭৭ শতাংশ। এটাকে ১০০ শতাংশে উন্নীত করার মধ্যদিয়ে এই দেশকে একটি শিক্ষিত জাতি হিসেবে আমরা গড়ে তুলব।’

পিইসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ কৃতী শিক্ষার্থীরা হলো- সৈয়দ শুকুর আলী শুভর কন্যা সৈয়দা সঞ্চিতা নাহার, মো. ইমদাদুল হক খানের কন্যা সুস্মিতা খান এনি, বাছির জামালের পুত্র আব্দুল্লাহ সাবিক, সাখাওয়াত হোসেনের পুত্র শাহরিয়ার হোসেন, রফিক মোহাম্মদের কন্যা রুহু রওশন, খন্দকার কাওছার হোসেনের কন্যা মৃদুলা মাহজাবিন, বিজন কুমার দাসের কন্যা অঙ্কিতা দাস, মো. মজিবুর রহমানের পুত্র মো. খালিদুর রহমান জিদান, মো. আবুল কাশেমের পুত্র নুরুল ইসলাম সুমন, মোহাম্মদ জাকরিয়ার কন্যা নুসরাত জাহান নিশাত, মোহাম্মদ নুরুল ইসলামের কন্যা ফাতেমা নূর তুবা, কাওসার রহমানের কন্যা লাবিবা সামিয়া রহমান, মিজান মালিকের পুত্র আহলান মালিক, এনামুল কবির রূপমের কন্যা নাফিসা রাইয়ান কবির, মো. সাজ্জাদ হোসেনের কন্যা তানিশা হোসেন রিদা, বাদল নূরের কন্যা সামিয়া রিফা অন্নেশা, মাহফুজা মোসলেহীর কন্যা লুবাবা মোসলেহী, মো. সহিদুল ইসলাম রানার কন্যা ফারহানা ইসলাম মুমু, পরাগ আরমানের কন্যা শ্রীতমা মাধুর্য প্রভা, রাশিদুল ইসলামের পুত্র রিবাতুল ইসলাম, লায়েকুজ্জমানের কন্যা ফারিয়া জান্নাত ঐক্য, মশিউর নেরুর পুত্র আহনাফুর রহমান নাভিদ, শরিফ মুজিবুর রহমানের কন্যা তাসনিম প্রিয়ন্তি, হেলিমুল আলমের কন্যা আশা ফাবিয়ানা, সাগর বিশ্বাসের পুত্র সাত্যিক বিশ্বাস, দিলরুবা আক্তার সুমির পুত্র কাজী জাফির জামান, মো. রুকনুজ্জামান খানের পুত্র সাবিরিত জামান, মাসুম মিজানের কন্যা আফিয়া জাহান পৃথুলা, মনজুর-এ আজিজের কন্যা রোজা আজিজ, মো. শেখ ফরিদ উদ্দিনের কন্যা ফারজানা আক্তার, ইকরামুল কবিরের পুত্র ইখতিয়ার কবির, শহিদুল আজমের কন্যা অতুলা আজম, সুলতান মাহমুদ বাদলের কন্যা জুলফিয়া নূর ও তৌহিদুল ইসলাম মিন্টুর পুত্র গালিব বিন তৌহিদ।

জেএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ কৃতী শিক্ষার্থীরা হলো- শাহনাজ শারমীনের কন্যা অহনা আনজুম, শাহিন হাসনাতের কন্যা আনিকা নাওয়ার, মো. জসিম উদ্দিনের পুত্র রেদওয়ান বিন জসিম আদর, দিনার সুলতানার কন্যা ইশাতির মাখসুরা জাহান, রতন চন্দ্র বালোর পুত্র অনুপ বালো, এম.এ. বাকীর কন্যা হোমায়রা আক্তার ইলামা, মোতাহার হোসেনের পুত্র নাঈম হাসান, মোর্শেদ নোমানের কন্যা তাসকিনা মাহনুর মোর্শেদ পৃথা, প্রণব কুমার মজুমদারের কন্যা প্রমিতি মজুমদার, শফিকুল ইসলাম লেনিনের কন্যা নওশিন আনবার এনা ও নওশিন আনজুম এশা, খন্দকার দেলোয়ার জালালীর পুত্র তিতুমীর খন্দকার রদ্দুর, মোরসালিন বাবলার পুত্র তৌসিফ আহমেদ, এ.এস.এম মঈনুল হকের পুত্র অনির্বাণ হক কাব্য, শাহেদ চৌধুরীর কন্যা তাসফিয়া নওশিন চৌধুরী, দিনেশ দাসের কন্যা অন্বেশা অথৈ, খোকন বড়ুয়ার কন্যা প্রিয়শ্রী বড়ুয়া, মো. মর্তুজা হায়দারের কন্যা মুশফিকা মরিয়ম হায়দার, ওবায়দুর রহমান শাহীনের পুত্র রাফিউন ইবনে শাহীন, আহমেদ পারভেজ খানের পুত্র মাশরুর সাদিব ইফতি, মাহফুজুর রহমান রিমনের কন্যা মাহফুজা নাওয়ার রচনা, নাজমুল আশরাফের কন্যা সিদরাতুল মুনতাহা, শেখ মামুনুর রশীদের পুত্র শেখ শাহরিয়ার আহমেদ, আব্দুর রহিম হারমাছির পুত্র দিহান মারছি, এম. ফসিহ উদ্দিন মাহতাবের কন্যা শাকিরাহ মাহতাব জয়া, মো. শাহজাহান সাজুর পুত্র আলী আরফান সমুদ্র, অঘোর মণ্ডলের কন্যা অর্পিতা মণ্ডল, দীপ আজাদের কন্যা আচল আজাদ ও গোধুলী আজাদ এবং মাহফুজুর রহমান মিশুর পুত্র মারুফ-উর রহমান নীর।

বিডিপ্রেস/আরজে