BDpress

প্রবীণ সাংবাদিক নিয়ামত হোসেন আর নেই

বিডিপ্রেস ডেস্ক

অ+ অ-
প্রবীণ সাংবাদিক নিয়ামত হোসেন আর নেই
দেশের খ্যাতনামা ছড়াকার, লেখক, অনুবাদক, কলামিস্ট ও জনকণ্ঠের প্রবীন সাংবাদিক নিয়ামত হোসেন আর নেই। রবিবার (১ জুলাই) বিকেলে পল্টনের নিজ বাসভবনে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। দীর্ঘদিন ধরে তিনি বার্ধক্যজনিত রোগে ভুগছিলেন।

শ্রদ্ধাভাজন নিয়ামত হোসেন সহজ সরল নিভৃতচারী মানুষ বলতে যা বোঝায়, তিনি ছিলেন আক্ষরিক অর্থে তেমনই একজন। ব্যক্তি জীবনে কঠোর সৎ ও নিষ্ঠাবান ছিলেন। একদা ঢাকার সোভিয়েত দূতাবাসে কয়েক বছর কাজ করেছেন প্রবীন সাংবাদিক নিয়ামত হোসেন।

১৯৪১ সালের ১৫ জানুয়ারি অবিভক্ত ভারতের চব্বিশ পরগনায় জন্মগ্রহণ করেছিলেন সাংবাদিক-কলামিস্ট নিয়ামত হোসেন। তার কর্মজীবন শুরু হয় মার্কিন সংস্থা ফ্রাঙ্কলিন বুক প্রোগ্রামসে। পরবর্তীতে সোভিয়েত ইউনিয়নের দূতাবাসের তথ্য বিভাগে সম্পাদক-অনুবাদক হিসেবে ১৯৬৪ থেকে ১৯৯১ সাল পর্যন্ত দীর্ঘ ২৭ বছর সুনামের সঙ্গে কাজ করেন।

১৯৯৪ সালে দৈনিক জনকণ্ঠে সহকারী সম্পাদক হিসেবে যোগদান করেন নিয়ামত হোসেন। এছাড়াও বিভিন্ন জাতীয় দৈনিকে গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন করেন সদালাপী ও নিরহঙ্কার এই মানুষটি। একজন কলাম লেখক হিসেবে তার রম্য রচনা ছিল সর্বাধিক পাঠক প্রিয়। শিশু-কিশোর সাহিত্য বিষয়ক তার প্রকাশিত বইয়ের সংখ্যা পাঁচটি।

রবিবার বাদ মাগরিব পল্টনের মসজিদে জানাজা শেষে মিরপুর বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়। নামাজে জানাজায় বিপুলসংখ্যক সাংবাদিক-কলামিস্টসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ উপস্থিত ছিলেন।
বিডিপ্রেস/আলী

এ সম্পর্কিত অন্যান্য খবর

BDpress

প্রবীণ সাংবাদিক নিয়ামত হোসেন আর নেই


প্রবীণ সাংবাদিক নিয়ামত হোসেন আর নেই

শ্রদ্ধাভাজন নিয়ামত হোসেন সহজ সরল নিভৃতচারী মানুষ বলতে যা বোঝায়, তিনি ছিলেন আক্ষরিক অর্থে তেমনই একজন। ব্যক্তি জীবনে কঠোর সৎ ও নিষ্ঠাবান ছিলেন। একদা ঢাকার সোভিয়েত দূতাবাসে কয়েক বছর কাজ করেছেন প্রবীন সাংবাদিক নিয়ামত হোসেন।

১৯৪১ সালের ১৫ জানুয়ারি অবিভক্ত ভারতের চব্বিশ পরগনায় জন্মগ্রহণ করেছিলেন সাংবাদিক-কলামিস্ট নিয়ামত হোসেন। তার কর্মজীবন শুরু হয় মার্কিন সংস্থা ফ্রাঙ্কলিন বুক প্রোগ্রামসে। পরবর্তীতে সোভিয়েত ইউনিয়নের দূতাবাসের তথ্য বিভাগে সম্পাদক-অনুবাদক হিসেবে ১৯৬৪ থেকে ১৯৯১ সাল পর্যন্ত দীর্ঘ ২৭ বছর সুনামের সঙ্গে কাজ করেন।

১৯৯৪ সালে দৈনিক জনকণ্ঠে সহকারী সম্পাদক হিসেবে যোগদান করেন নিয়ামত হোসেন। এছাড়াও বিভিন্ন জাতীয় দৈনিকে গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন করেন সদালাপী ও নিরহঙ্কার এই মানুষটি। একজন কলাম লেখক হিসেবে তার রম্য রচনা ছিল সর্বাধিক পাঠক প্রিয়। শিশু-কিশোর সাহিত্য বিষয়ক তার প্রকাশিত বইয়ের সংখ্যা পাঁচটি।

রবিবার বাদ মাগরিব পল্টনের মসজিদে জানাজা শেষে মিরপুর বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়। নামাজে জানাজায় বিপুলসংখ্যক সাংবাদিক-কলামিস্টসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ উপস্থিত ছিলেন।
বিডিপ্রেস/আলী