BDpress

ধর্মগুরুর জন্য একসঙ্গে প্রাণ দেয় ৯০০ জন!

বিডিপ্রেস ডেস্ক

অ+ অ-
ধর্মগুরুর জন্য একসঙ্গে প্রাণ দেয় ৯০০ জন!
সম্প্রতি মোক্ষলাভের উদ্দেশ্যে একই পরিবারে ১১ জন সদস্য আত্মহত্যা করেন উত্তর দিল্লিতে৷ তবে ঘটনাটি অস্বাভাবিক হলেও, নজিরবিহীন নয়৷ পুরনো ইতিহাস ঘাঁটলে উঠে আসে আরও এক রোমহর্ষক ঘটনা৷ ১৯৭৮ সাল৷ জিম জোনস (আমেরিকার ধর্মগুরু)-র প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে আত্মঘাতী হন কয়েক’শ মানুষ৷ঘটনাটি ঘটেছিল গায়ানাতে৷

ভেনিজুয়েলা এবং দক্ষিণ আমেরিকার উত্তরীয় উপকূলবর্তী অঞ্চলের মাঝে একটি ছোট রাজ্য গায়ানা৷ সেখানে ‘পিপলস্ টেম্পল’ এর প্রতিষ্ঠাতা জোনস্ (ধর্মগুরু) তাঁর অনুগামীদের বিষাক্ত পানীয় পান করতে বলেন৷ আমেরিকার তদন্তকারী সংস্থা এফবিআই জানায়, মাত্র কয়েকজন শিষ্যই পুরো বিষয়টিতে আপত্তি জানিয়েছিল৷

কিন্তু, দুঃখের বিষয় সেই ঘটনায় মারা যান ৯০০ জন৷ এফবিআই জানায়, মৃতদের মধ্যে পাঁচজনের বেশি শিশুও ছিল৷ পরে মাথায় গুলি লেগে মারা যান জিম জোনস্ নিজে। তথ্য বলছে, বিষাক্ত পানীয়টি সিরিঞ্জের মাধ্যমে প্রথমে শিশুদের এবং পরে প্রাপ্তবয়স্কদের পান করানো হয়৷ ঘটনাটির প্রেক্ষাপটের কারণ খুঁজতে গিয়ে সামনে এসেছে বেশ কিছু অজানা ছবি৷

লিও রায়ান, (আমেরিকার আইন প্রণয়নকারী) জোনস টাউন পরিদর্শনে আসেন এ ঘটনার ঠিক আগে৷ এফবিআই-এর দেওয়া তথ্য অনুসারে, আচরণ নিয়ন্ত্রণে ড্রাগের ব্যবহার, রহস্যজনক মৃত্যু, মাস-সুসাইডের প্রস্তুতি নিয়েও আলোচনা হয় এই সফরে৷ রায়ান ফিরে আসার সিদ্ধান্ত নিলে শিষ্যরা তাঁর সঙ্গে যাওয়ার অনুরোধ জানায়৷ বিমানে আকস্মিক হামলা করে একদল দুষ্কৃতী৷ রায়ানসহ অনেকেই গুলিবিদ্ধ হন এবং আহত হন অনেকে৷ সেই সময়ই জিম জোনস্ শিষ্যদের বিষাক্ত পানীয় পানের অনুরোধ জানান৷ কারণ, তিনি শিষ্যদের বুঝিয়ে ছিলেন, যে এই বিমান হামলা থেকে রেহাই পাবে না জোনসনবাসী৷ আর সেইজন্যই ওই পানিয় খেতে বলেন তিনি।
বিডিপ্রেস/আলী



এ সম্পর্কিত অন্যান্য খবর

BDpress

ধর্মগুরুর জন্য একসঙ্গে প্রাণ দেয় ৯০০ জন!


ধর্মগুরুর জন্য একসঙ্গে প্রাণ দেয় ৯০০ জন!

ভেনিজুয়েলা এবং দক্ষিণ আমেরিকার উত্তরীয় উপকূলবর্তী অঞ্চলের মাঝে একটি ছোট রাজ্য গায়ানা৷ সেখানে ‘পিপলস্ টেম্পল’ এর প্রতিষ্ঠাতা জোনস্ (ধর্মগুরু) তাঁর অনুগামীদের বিষাক্ত পানীয় পান করতে বলেন৷ আমেরিকার তদন্তকারী সংস্থা এফবিআই জানায়, মাত্র কয়েকজন শিষ্যই পুরো বিষয়টিতে আপত্তি জানিয়েছিল৷

কিন্তু, দুঃখের বিষয় সেই ঘটনায় মারা যান ৯০০ জন৷ এফবিআই জানায়, মৃতদের মধ্যে পাঁচজনের বেশি শিশুও ছিল৷ পরে মাথায় গুলি লেগে মারা যান জিম জোনস্ নিজে। তথ্য বলছে, বিষাক্ত পানীয়টি সিরিঞ্জের মাধ্যমে প্রথমে শিশুদের এবং পরে প্রাপ্তবয়স্কদের পান করানো হয়৷ ঘটনাটির প্রেক্ষাপটের কারণ খুঁজতে গিয়ে সামনে এসেছে বেশ কিছু অজানা ছবি৷

লিও রায়ান, (আমেরিকার আইন প্রণয়নকারী) জোনস টাউন পরিদর্শনে আসেন এ ঘটনার ঠিক আগে৷ এফবিআই-এর দেওয়া তথ্য অনুসারে, আচরণ নিয়ন্ত্রণে ড্রাগের ব্যবহার, রহস্যজনক মৃত্যু, মাস-সুসাইডের প্রস্তুতি নিয়েও আলোচনা হয় এই সফরে৷ রায়ান ফিরে আসার সিদ্ধান্ত নিলে শিষ্যরা তাঁর সঙ্গে যাওয়ার অনুরোধ জানায়৷ বিমানে আকস্মিক হামলা করে একদল দুষ্কৃতী৷ রায়ানসহ অনেকেই গুলিবিদ্ধ হন এবং আহত হন অনেকে৷ সেই সময়ই জিম জোনস্ শিষ্যদের বিষাক্ত পানীয় পানের অনুরোধ জানান৷ কারণ, তিনি শিষ্যদের বুঝিয়ে ছিলেন, যে এই বিমান হামলা থেকে রেহাই পাবে না জোনসনবাসী৷ আর সেইজন্যই ওই পানিয় খেতে বলেন তিনি।
বিডিপ্রেস/আলী