BDpress

চাঁপাইনবাবগঞ্জে দুই শিশু হত্যায় নারীর মৃত্যুদণ্ড

জেলা প্রতিবেদক

অ+ অ-
চাঁপাইনবাবগঞ্জে দুই শিশু হত্যায় নারীর মৃত্যুদণ্ড
চাঁপাইনবাবগঞ্জে দুই শিশু হত্যা মামলায় লাকী খাতুন (২২) নামে এক নারীকে ফাঁসির আদেশ দিয়েছেন আদালত। এর পাশাপাশি তাকে ২লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। একই মামলায় মিজানুর রহমান (৩০) নামে একজনকে ৩ বছর সশ্রম কারাদণ্ড ও ১০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও ৬ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করা হয়।

রোববার দুপুরে অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ মো. শওকত আলী আসামিদের উপস্থিতিতে এ রায় ঘোষণা করেন।

দণ্ডপ্রাপ্ত লাকী খাতুন চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌর এলাকার নামোশংকারবাটী মহল্লার মো. ইব্রাহিমের স্ত্রী। আর মিজান চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌর এলাকার আঙ্গারিয়া পাড়া মহল্লার রফিকুল ইসলামের ছেলে।

মামলার অভিযোগ, ২০১৭ সালের ১২ ফেব্রুয়ারি নামোশংকরবাটী মহল্লার আব্দুল মালেকের মেয়ে ১ম শ্রেণির ছাত্রী মালিহা (৬) ও হুমায়ন কবির বিশুর মেয়ে একই শ্রেণির ছাত্রী সুমাইয়া (৭) সকালে স্কুল থেকে ফিরে বাড়ির সামনে খেলা করছিল। ওই দিন বেলা ১১টার দিক থেকে তারা নিখোঁজ হয়। এঘটনায় সদর মডেল থানায় একটি জিডি করা হয়। এদিকে গত ১৪ ফেব্রুয়ারি সকালে মালিহা ওই দুই শিশুর গলায় ও হাতে থাকা সোনার চেইন ও বালি কেড়ে নিয়ে তাদের শ্বাসরোধ করে হত্যার পর মরদেহ দুটো বস্তায় ভরে নিজ ঘরের খাটের নিচে লুকিয়ে রাখে লাকী। পরে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে স্থানীয়দের সহায়তায় সদর মডেল থানা পুলিশ মরদেহ দুটো উদ্ধার করে থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। এঘটনায় নবাবগঞ্জ সদর থানার পরিদর্শক যোবায়ের আমেদ চৌধুরী ২০১৭ সালের ৩০ এপ্রিল মালিহা ও মিজানুর রহমান পলাশের বিরুদ্ধে আদালতে চাজশিট দাখিল করেন। মামলায় ১৬ জন স্বাক্ষীর স্বাক্ষ্য গ্রহণ শেষে রোববার আসামিদের উপস্থিতিতে এ রায় প্রদান করা হয়।

বিডিপ্রেস/আরজে

এ সম্পর্কিত অন্যান্য খবর

BDpress

চাঁপাইনবাবগঞ্জে দুই শিশু হত্যায় নারীর মৃত্যুদণ্ড


চাঁপাইনবাবগঞ্জে দুই শিশু হত্যায় নারীর মৃত্যুদণ্ড

রোববার দুপুরে অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ মো. শওকত আলী আসামিদের উপস্থিতিতে এ রায় ঘোষণা করেন।

দণ্ডপ্রাপ্ত লাকী খাতুন চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌর এলাকার নামোশংকারবাটী মহল্লার মো. ইব্রাহিমের স্ত্রী। আর মিজান চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌর এলাকার আঙ্গারিয়া পাড়া মহল্লার রফিকুল ইসলামের ছেলে।

মামলার অভিযোগ, ২০১৭ সালের ১২ ফেব্রুয়ারি নামোশংকরবাটী মহল্লার আব্দুল মালেকের মেয়ে ১ম শ্রেণির ছাত্রী মালিহা (৬) ও হুমায়ন কবির বিশুর মেয়ে একই শ্রেণির ছাত্রী সুমাইয়া (৭) সকালে স্কুল থেকে ফিরে বাড়ির সামনে খেলা করছিল। ওই দিন বেলা ১১টার দিক থেকে তারা নিখোঁজ হয়। এঘটনায় সদর মডেল থানায় একটি জিডি করা হয়। এদিকে গত ১৪ ফেব্রুয়ারি সকালে মালিহা ওই দুই শিশুর গলায় ও হাতে থাকা সোনার চেইন ও বালি কেড়ে নিয়ে তাদের শ্বাসরোধ করে হত্যার পর মরদেহ দুটো বস্তায় ভরে নিজ ঘরের খাটের নিচে লুকিয়ে রাখে লাকী। পরে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে স্থানীয়দের সহায়তায় সদর মডেল থানা পুলিশ মরদেহ দুটো উদ্ধার করে থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। এঘটনায় নবাবগঞ্জ সদর থানার পরিদর্শক যোবায়ের আমেদ চৌধুরী ২০১৭ সালের ৩০ এপ্রিল মালিহা ও মিজানুর রহমান পলাশের বিরুদ্ধে আদালতে চাজশিট দাখিল করেন। মামলায় ১৬ জন স্বাক্ষীর স্বাক্ষ্য গ্রহণ শেষে রোববার আসামিদের উপস্থিতিতে এ রায় প্রদান করা হয়।

বিডিপ্রেস/আরজে