BDpress

সাংবাদিকদের ওপর হামলা : জড়িতদের গ্রেফতারে আল্টিমেটাম

নিজস্ব প্রতিবেদক

অ+ অ-
সাংবাদিকদের ওপর হামলা : জড়িতদের গ্রেফতারে আল্টিমেটাম
পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে সাংবাদিকদের ওপর হামলার ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতারে সরকারকে তিনদিনের আল্টিমেটাম দিয়েছেন সাংবাদিক নেতারা। আগামী ৭২ ঘণ্টার মধ্যে দৃশ্যমান কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ না করলে আগামী শনিবার (১১ আগস্ট) সাংবাদিক নির্যাতনের প্রতিবাদে সারা দেশে একযোগে বিক্ষোভ সমাবেশের ঘোষণা দিয়েছেন তারা।

মঙ্গলবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে দায়িত্ব পালনকালে সাংবাদিকদের ওপর হামলা ও নির্যাতনের প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশ-মিছিলের আয়োজন করে ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন (ডিইউজে)। সমাবেশে অংশ নিয়ে এ ঘোষণা দেন নেতারা।

বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন (বিএফইউজ)-এর সাবেক সভাপতি মনজুরুল আহসান বুলবুল বলেন, কলম সৈনিক সাংবাদিকদের ওপর আক্রমণ করে দুর্বৃত্তরা গুজব ছড়ানোকারীদের পক্ষ নিয়েছে। আমরা পেশাদারিত্বের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করতে চাই। আপনারা আমাদের কাজ করতে দিন, সঠিক তথ্য পরিবেশন করতে দিন। যারা আমাদের পেশাদারিত্বের সঙ্গে কাজ করতে দিতে চায় না, আমরা মনে করি তারা সাংবাদিকদের শত্রু।

ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের নবনির্বাচিত সভাপতি মোল্লা জালাল বলেন, কোমলমতি শিক্ষার্থীদের শান্তিপূর্ণ আন্দোলনে রাজনৈতিক দুর্বৃত্তরা অনুপ্রবেশ করে সাংবাদিকদের ওপর হামলা করেছে, যেটা দেখে সারা জাতির আজ লজ্জায় মাথা হেট হয়ে গেছে।

মন্ত্রীদের উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, আপনাদের দায়িত্বশীল হতে হবে। সাংবাদিকদের ওপর হামলার ঘটনায় কোনো পদক্ষেপ না নিলে এর ফল ভালো হবে না। সাংবাদিক সমাজ এই ঘটনার কঠিন জবাব দিতে প্রস্তুত।

ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের নব-নির্বাচিত মহাসচিব শাবান মাহমুদ বলেন, এই গণতান্ত্রিক দেশেই সাংবাদিকদের ওপর এমন নগ্ন হামলা মেনে নেয়া যায় না। মন্ত্রীরা বলছেন, আপনারা আমাদের তালিকা দিন আমরা তাদের গ্রেফতার করব। কিন্তু আমরা বলব, আমরা কেন তাদের তালিকা দিবো। তাদের ছবি অনলাইনে আছে আপনারা দেখে তাদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় নিয়ে আসুন। আমরা বিশ্বাস করি জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সাংবাদিকদের ওপর হামলাকারীদের বিচার হবে। আর যদি এটা বন্ধ না হয় তাহলে আমাদের সাংবাদিক সমাজ বসে থাকবে না। এর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলবে।

সভাপতির বক্তব্যে ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি আবু জাফর সূর্য বলেন, আপনারা কি পত্রপত্রিকা পড়েন না? আপনারা কি সংবাদ দেখেন না? আপনারা এখনও পর্যন্ত আহত সাংবাদিকদের কোন খোঁজখবর নিলেন না। তথ্যমন্ত্রী আপনার কাজটা কি, আপনি এখন পর্যন্ত আহত সাংবাদিকদের খোঁজ নিতে পারলেন না এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাই। আমরা বিএনপির শাসনামলে অনেক মার খেয়েছি কিন্তু তখন আমরা বিচার চাইনি। আমাদের স্লোগান ছিল বিচার চাই না, কারণ আমরা বিচার পাই না তাই।

ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি (ডিআরইউ) সভাপতি সাইফুল ইসলাম বলেন, আমরা দেখেছি শান্তিপ্রিয় এই আন্দোলনে সাংবাদিকরা যখন সংবাদ সংগ্রহ গেছে, তাদের টার্গেট করে হামলা করেছে দুর্বৃত্তরা। আমরা এদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।

নিরাপদ সাংবাদিকতা চাই, কণ্ঠরোধ নয়, চাই মত প্রকাশের স্বাধীনতা এই স্লোগানকে সামনে রেখে বিক্ষোভ সমাবেশে একাত্মতা প্রকাশ করেন বাংলাদেশ ফটোজার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন এবং স্টামফোর্ড ইউনিভার্সিটির গণমাধ্যম ও সাংবাদিক বিভাগের শিক্ষার্থীরা।

ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি আবু জাফর সূর্যের সভাপতিত্বে সমাবেশে আরও বক্তব্য রাখেন জাতীয় প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ফরিদা ইয়াসমিন, ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সহ সভাপতি সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক সোহেল হায়দার চৌধুরী, যুগ্ম সম্পাদক আক্তার হোসেন প্রমুখ।

বিডিপ্রেস/আরজে

এ সম্পর্কিত অন্যান্য খবর

BDpress

সাংবাদিকদের ওপর হামলা : জড়িতদের গ্রেফতারে আল্টিমেটাম


সাংবাদিকদের ওপর হামলা : জড়িতদের গ্রেফতারে আল্টিমেটাম

মঙ্গলবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে দায়িত্ব পালনকালে সাংবাদিকদের ওপর হামলা ও নির্যাতনের প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশ-মিছিলের আয়োজন করে ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন (ডিইউজে)। সমাবেশে অংশ নিয়ে এ ঘোষণা দেন নেতারা।

বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন (বিএফইউজ)-এর সাবেক সভাপতি মনজুরুল আহসান বুলবুল বলেন, কলম সৈনিক সাংবাদিকদের ওপর আক্রমণ করে দুর্বৃত্তরা গুজব ছড়ানোকারীদের পক্ষ নিয়েছে। আমরা পেশাদারিত্বের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করতে চাই। আপনারা আমাদের কাজ করতে দিন, সঠিক তথ্য পরিবেশন করতে দিন। যারা আমাদের পেশাদারিত্বের সঙ্গে কাজ করতে দিতে চায় না, আমরা মনে করি তারা সাংবাদিকদের শত্রু।

ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের নবনির্বাচিত সভাপতি মোল্লা জালাল বলেন, কোমলমতি শিক্ষার্থীদের শান্তিপূর্ণ আন্দোলনে রাজনৈতিক দুর্বৃত্তরা অনুপ্রবেশ করে সাংবাদিকদের ওপর হামলা করেছে, যেটা দেখে সারা জাতির আজ লজ্জায় মাথা হেট হয়ে গেছে।

মন্ত্রীদের উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, আপনাদের দায়িত্বশীল হতে হবে। সাংবাদিকদের ওপর হামলার ঘটনায় কোনো পদক্ষেপ না নিলে এর ফল ভালো হবে না। সাংবাদিক সমাজ এই ঘটনার কঠিন জবাব দিতে প্রস্তুত।

ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের নব-নির্বাচিত মহাসচিব শাবান মাহমুদ বলেন, এই গণতান্ত্রিক দেশেই সাংবাদিকদের ওপর এমন নগ্ন হামলা মেনে নেয়া যায় না। মন্ত্রীরা বলছেন, আপনারা আমাদের তালিকা দিন আমরা তাদের গ্রেফতার করব। কিন্তু আমরা বলব, আমরা কেন তাদের তালিকা দিবো। তাদের ছবি অনলাইনে আছে আপনারা দেখে তাদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় নিয়ে আসুন। আমরা বিশ্বাস করি জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সাংবাদিকদের ওপর হামলাকারীদের বিচার হবে। আর যদি এটা বন্ধ না হয় তাহলে আমাদের সাংবাদিক সমাজ বসে থাকবে না। এর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলবে।

সভাপতির বক্তব্যে ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি আবু জাফর সূর্য বলেন, আপনারা কি পত্রপত্রিকা পড়েন না? আপনারা কি সংবাদ দেখেন না? আপনারা এখনও পর্যন্ত আহত সাংবাদিকদের কোন খোঁজখবর নিলেন না। তথ্যমন্ত্রী আপনার কাজটা কি, আপনি এখন পর্যন্ত আহত সাংবাদিকদের খোঁজ নিতে পারলেন না এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাই। আমরা বিএনপির শাসনামলে অনেক মার খেয়েছি কিন্তু তখন আমরা বিচার চাইনি। আমাদের স্লোগান ছিল বিচার চাই না, কারণ আমরা বিচার পাই না তাই।

ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি (ডিআরইউ) সভাপতি সাইফুল ইসলাম বলেন, আমরা দেখেছি শান্তিপ্রিয় এই আন্দোলনে সাংবাদিকরা যখন সংবাদ সংগ্রহ গেছে, তাদের টার্গেট করে হামলা করেছে দুর্বৃত্তরা। আমরা এদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।

নিরাপদ সাংবাদিকতা চাই, কণ্ঠরোধ নয়, চাই মত প্রকাশের স্বাধীনতা এই স্লোগানকে সামনে রেখে বিক্ষোভ সমাবেশে একাত্মতা প্রকাশ করেন বাংলাদেশ ফটোজার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন এবং স্টামফোর্ড ইউনিভার্সিটির গণমাধ্যম ও সাংবাদিক বিভাগের শিক্ষার্থীরা।

ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি আবু জাফর সূর্যের সভাপতিত্বে সমাবেশে আরও বক্তব্য রাখেন জাতীয় প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ফরিদা ইয়াসমিন, ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সহ সভাপতি সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক সোহেল হায়দার চৌধুরী, যুগ্ম সম্পাদক আক্তার হোসেন প্রমুখ।

বিডিপ্রেস/আরজে