BDpress

‘আরও কিছুদিন অপেক্ষা করতে হবে আশরাফুলকে’

ক্রীড়া ডেস্ক

অ+ অ-
‘আরও কিছুদিন অপেক্ষা করতে হবে আশরাফুলকে’
পাঁচ বছরের অভিশাপ থেকে মুক্ত হয়ে গেলেন মোহাম্মদ আশরাফুল। বিপিএলে ফিক্সিং করার দায়ে ৫ বছরের জন্য নিষিদ্ধ হলেন জাতীয় দলের সাবেক এই অধিনায়ক। একে একে কেটে গেলো নিষেধাজ্ঞার এই সময়। এক বছর আগেই ঘরোয়া ক্রিকেট খেলার সুযোগ পেয়েছিলেন। এবার পুরোপুরি নিষেধাজ্ঞা মুক্ত। আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কিংবা ফ্রাঞ্চাইজি ক্রিকেট খেলার পথে আশরাফুলের সামনে আর কোনো বাধা রইলো না।

নিষেধাজ্ঞা মুক্তির এক-দু’দিন আগে থেকেই গুঞ্জন উঠেছে, আশরাফুলের জাতীয় দলে ফেরা নিয়ে। সোশ্যাল মিডিয়ায় ইতিমধ্যে একটা পক্ষ জোরালো দাবি তোলার শুরু করে দিয়েছে, ‘জাতীয় দলে আশরাফুলকে চাই।’ তাদের যুক্তি, একটা সময় বাংলাদেশে যখন কোনো তারকা ছিল না, আশরাফুলই ছিলেন বড় তারকা। তার ব্যাটেই রচিত হয়েছে অনেক বড় বড় সাফল্য।

সেই আশরাফুল দলে এলে বাংলাদেশ দল আরও অনেক বেশি সাফল্য পাবে- এটাই ভক্তদের বিশ্বাস। তবে চাইলে তো আর এখনই তাকে জাতীয় দলে সুযোগ দিয়ে দিতে পারেন না নির্বাচকরা। নিষেধাজ্ঞা মুক্ত হয়েছেন। এখন তাকে খেলতে হবে প্রতিটি ঘরোয়া লিগ। বিপিএল, ঢাকা লিগ, এনসিএল, বিসিএল- সবগুলো। নির্বাচকরা প্রয়োজন মনে করলে, তাকে ‘এ’ দলে অন্তর্ভূক্ত করে যাছাই করে দেখবেন। এরপরই না হয়, উপর্যুক্ত মনে করলে, তাকে সুযোগ দেবেন জাতীয় দলে। সেটা অনেক দুরের পথ।

প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নু আগেই জানিয়ে দিয়েছেন, তাদের ভাবনায় আপাতত আশরাফুল নেই। কারণ, জাতীয় দলে খেলতে হলে পারফর্ম করে আসতে হবে। আশরাফুলকে এখন সেই পথ পাড়ি দেয়ার কথাই বলেছেন প্রধান নির্বাচক। ক্রিকেট অপারেশন্স কমিটির চেয়ারম্যান আকরাম খান জানিয়েছেন, আশরাফুলের বিষয়টি যেহেতু কিছুটা স্পর্শকাতর। সুতরাং, এটা নির্ধারণ হবে বোর্ডের নীতি নির্ধারণী ফোরামে।

মোহাম্মদ আশরাফুলের মুক্তির দিনে তাকে নিয়ে কথা বলেছেন বিসিবি পরিচালক এবং মিডিয়া কমিটির চেয়ারম্যান জালাল ইউনুস। নানা কথার ভিড়ে জালাল ইউনুস জানিয়ে দিলেন জাতীয় দলে খেলতে হলে মোহাম্মদ আশরাফুলকে আরও কিছুদিন অপেক্ষা করতে হবে।

বিসিবির এই শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তা আশরাফুলের প্রতিভার স্বীকৃতি দিয়ে বলেন, ‘এক কথায় বললে, আশরাফুল একটি নাম। এখানে দশ জন ক্রিকেটার যেভাবে জাতীয় দলে আসে সেভাবেই আশরাফুলকে আসতে হবে।’

তো কিভাবে জাতীয় দলে আসতে হবে আশরাফুলকে? এর জবাবও দিয়েছেন জালাল ইউনুস। তিনি বলেন, ‘আপনারা জানেন যে পাঁচ বছর সে ক্রিকেটের বাইরে ছিল। ঘরোয়া ক্রিকেটের দুটি আসরে সে খেলেছে; কিন্তু সেটি যথেষ্ট নয়। তার ফিটনেসের ব্যাপার আছে। এটা একটি দিক। আর আশরাফুল নির্বাচকদের ভাবনায় আছে কি না সেটি আমরা জানি না। আমি কালকেও দেখেছি যে প্রধান নির্বাচক বলেছে যে, এখনই সে ধরণের কোন ভাবনা নেই তাদের। সামনে একটি ঘরোয়া আসর রয়েছে সেখানে খেলতে হবে, সব ফরম্যাটেই খেলতে হবে। যেসব ফরম্যাটে সে খেলতে পারছিল না সেগুলোতেও এখন সে খেলতে পারবে। নির্বাচকেরা চাইছে তাকে তিন ফরম্যাটেই ভালো করে দেখতে। তার শারীরিক ফিটনেসটা কেমন সেটাই গুরুত্বপূর্ণ।’

এসব কারণেই জালাল ইউনুস মনে করছেন, তাকে আরও কিছুদিন অপেক্ষা করতে হবে। তিনি বলেন, ‘সে কারণে আমার মনে হয় তাকে আরও কিছুদিন অপেক্ষা করতে হবে। বিপিএলে খেলার জন্য সে এখন মুক্ত। এখন এটি নির্ভর করছে ফ্র্যাঞ্চাইজিদের ওপর। যেহেতু সে সবকিছু থেকে মুক্ত হচ্ছে তাই বিপিএলে খেলতে পারবে। এখন তাকে নেয়া না নেয়ার ব্যাপারটি ফ্র্যাঞ্চাইজিদের ওপর।’

বিডিপ্রেস/আরজে

এ সম্পর্কিত অন্যান্য খবর

BDpress

‘আরও কিছুদিন অপেক্ষা করতে হবে আশরাফুলকে’


‘আরও কিছুদিন অপেক্ষা করতে হবে আশরাফুলকে’

নিষেধাজ্ঞা মুক্তির এক-দু’দিন আগে থেকেই গুঞ্জন উঠেছে, আশরাফুলের জাতীয় দলে ফেরা নিয়ে। সোশ্যাল মিডিয়ায় ইতিমধ্যে একটা পক্ষ জোরালো দাবি তোলার শুরু করে দিয়েছে, ‘জাতীয় দলে আশরাফুলকে চাই।’ তাদের যুক্তি, একটা সময় বাংলাদেশে যখন কোনো তারকা ছিল না, আশরাফুলই ছিলেন বড় তারকা। তার ব্যাটেই রচিত হয়েছে অনেক বড় বড় সাফল্য।

সেই আশরাফুল দলে এলে বাংলাদেশ দল আরও অনেক বেশি সাফল্য পাবে- এটাই ভক্তদের বিশ্বাস। তবে চাইলে তো আর এখনই তাকে জাতীয় দলে সুযোগ দিয়ে দিতে পারেন না নির্বাচকরা। নিষেধাজ্ঞা মুক্ত হয়েছেন। এখন তাকে খেলতে হবে প্রতিটি ঘরোয়া লিগ। বিপিএল, ঢাকা লিগ, এনসিএল, বিসিএল- সবগুলো। নির্বাচকরা প্রয়োজন মনে করলে, তাকে ‘এ’ দলে অন্তর্ভূক্ত করে যাছাই করে দেখবেন। এরপরই না হয়, উপর্যুক্ত মনে করলে, তাকে সুযোগ দেবেন জাতীয় দলে। সেটা অনেক দুরের পথ।

প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নু আগেই জানিয়ে দিয়েছেন, তাদের ভাবনায় আপাতত আশরাফুল নেই। কারণ, জাতীয় দলে খেলতে হলে পারফর্ম করে আসতে হবে। আশরাফুলকে এখন সেই পথ পাড়ি দেয়ার কথাই বলেছেন প্রধান নির্বাচক। ক্রিকেট অপারেশন্স কমিটির চেয়ারম্যান আকরাম খান জানিয়েছেন, আশরাফুলের বিষয়টি যেহেতু কিছুটা স্পর্শকাতর। সুতরাং, এটা নির্ধারণ হবে বোর্ডের নীতি নির্ধারণী ফোরামে।

মোহাম্মদ আশরাফুলের মুক্তির দিনে তাকে নিয়ে কথা বলেছেন বিসিবি পরিচালক এবং মিডিয়া কমিটির চেয়ারম্যান জালাল ইউনুস। নানা কথার ভিড়ে জালাল ইউনুস জানিয়ে দিলেন জাতীয় দলে খেলতে হলে মোহাম্মদ আশরাফুলকে আরও কিছুদিন অপেক্ষা করতে হবে।

বিসিবির এই শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তা আশরাফুলের প্রতিভার স্বীকৃতি দিয়ে বলেন, ‘এক কথায় বললে, আশরাফুল একটি নাম। এখানে দশ জন ক্রিকেটার যেভাবে জাতীয় দলে আসে সেভাবেই আশরাফুলকে আসতে হবে।’

তো কিভাবে জাতীয় দলে আসতে হবে আশরাফুলকে? এর জবাবও দিয়েছেন জালাল ইউনুস। তিনি বলেন, ‘আপনারা জানেন যে পাঁচ বছর সে ক্রিকেটের বাইরে ছিল। ঘরোয়া ক্রিকেটের দুটি আসরে সে খেলেছে; কিন্তু সেটি যথেষ্ট নয়। তার ফিটনেসের ব্যাপার আছে। এটা একটি দিক। আর আশরাফুল নির্বাচকদের ভাবনায় আছে কি না সেটি আমরা জানি না। আমি কালকেও দেখেছি যে প্রধান নির্বাচক বলেছে যে, এখনই সে ধরণের কোন ভাবনা নেই তাদের। সামনে একটি ঘরোয়া আসর রয়েছে সেখানে খেলতে হবে, সব ফরম্যাটেই খেলতে হবে। যেসব ফরম্যাটে সে খেলতে পারছিল না সেগুলোতেও এখন সে খেলতে পারবে। নির্বাচকেরা চাইছে তাকে তিন ফরম্যাটেই ভালো করে দেখতে। তার শারীরিক ফিটনেসটা কেমন সেটাই গুরুত্বপূর্ণ।’

এসব কারণেই জালাল ইউনুস মনে করছেন, তাকে আরও কিছুদিন অপেক্ষা করতে হবে। তিনি বলেন, ‘সে কারণে আমার মনে হয় তাকে আরও কিছুদিন অপেক্ষা করতে হবে। বিপিএলে খেলার জন্য সে এখন মুক্ত। এখন এটি নির্ভর করছে ফ্র্যাঞ্চাইজিদের ওপর। যেহেতু সে সবকিছু থেকে মুক্ত হচ্ছে তাই বিপিএলে খেলতে পারবে। এখন তাকে নেয়া না নেয়ার ব্যাপারটি ফ্র্যাঞ্চাইজিদের ওপর।’

বিডিপ্রেস/আরজে