BDpress

ফেসবুক খোলা রেখেই গুজব রটনাকারীদের দমন করা হবে: তথ্যমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক

অ+ অ-
ফেসবুক খোলা রেখেই গুজব রটনাকারীদের দমন করা হবে: তথ্যমন্ত্রী
মিথ্যাচার ও গুজব রটনাকারীদের শক্তভাবে দমন করা হবে। তবে ফেসবুক, টুইটার, ইউটিউব বন্ধ করে নয়। এসব সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের জানালাটা খোলা রাখার পক্ষে সরকার। তবে সঠিক তথ্য সরবরাহের জন্য মূলধারার গণমাধ্যমকে সামাজিক মাধ্যমে আরও সক্রিয় হতে হবে।

রোববার সকালে ইনভেস্টিগেটিভ জার্নালিজম সেন্টার বাংলাদেশ (আইজেসিবিডি) ও বাংলাদেশ প্রেস ইনস্টিটিউটের (পিআইবি) যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত এক সেমিনারে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু এসব কথা বলেন।

পিআইবির সেমিনার কক্ষে আয়োজিত ‘ফেসবুকে গুজব এবং গণমাধ্যমের ভূমিকা’ শীর্ষক সেমিনারে সভাপতিত্ব করেন পিআইবির মহাপরিচালক শাহ আলমগীর। বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (বিএফইউজে) সহ-সভাপতি সৈয়দ ইশতিয়াক রেজার সঞ্চালনায় সেমিনারে বক্তব্য রাখেন একুশে টেলিভিশনের প্রধান নির্বাহী মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল, সারাবাংলার নির্বাহী সম্পাদক মাহমুদ মেনন খান, বিএফইউজে‘র কোষাধ্যক্ষ দীপ আজাদসহ অনেকেই।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, তথ্যমন্ত্রী হিসেবে আমি কোনো অবস্থাতেই তথ্য চাপা দেয়ার পক্ষে নয়। সুতরাং মূলধারার গণমাধ্যম নির্ভয়ে ঘটনার সঠিক বিবরণ তুলে ধরুন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম গুজব রটনা ও মিথ্যাচারের বাহন হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, মিথ্যাচার ও গুজব রটানোর ক্ষেত্রে যতই ঝাপটা আসুক না কেন, যত রকম বিভ্রান্ত ছড়ানো হোক না কেন, তবে মিথ্যাচার গুজব রটনাকারীদের শক্তভাবে দমন করার পাশাপাশি ফেসবুক সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের জানালাটা খোলা রাখার পক্ষে সরকার। এই অবস্থান নিয়েই আমরা বাকিটা আলোচনা করব।

পিআইবি’র মহাপরিচালক শাহ আলমগীর বলেন, গুজবের বিরুদ্ধে মানুষকে সচেতন করতে সাংবাদিক সংগঠনগুলোকে এগিয়ে আসতে হবে। গুজব মোকাবেলা করতে গিয়ে সংবাদ প্রচার বন্ধ করে দেয়া, কোনো সমাধান নয়। বরং এতে গুজবের আরও বেশি ডালপালা গজাবে।

বিডিপ্রেস/আরজে

এ সম্পর্কিত অন্যান্য খবর

BDpress

ফেসবুক খোলা রেখেই গুজব রটনাকারীদের দমন করা হবে: তথ্যমন্ত্রী


ফেসবুক খোলা রেখেই গুজব রটনাকারীদের দমন করা হবে: তথ্যমন্ত্রী

রোববার সকালে ইনভেস্টিগেটিভ জার্নালিজম সেন্টার বাংলাদেশ (আইজেসিবিডি) ও বাংলাদেশ প্রেস ইনস্টিটিউটের (পিআইবি) যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত এক সেমিনারে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু এসব কথা বলেন।

পিআইবির সেমিনার কক্ষে আয়োজিত ‘ফেসবুকে গুজব এবং গণমাধ্যমের ভূমিকা’ শীর্ষক সেমিনারে সভাপতিত্ব করেন পিআইবির মহাপরিচালক শাহ আলমগীর। বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (বিএফইউজে) সহ-সভাপতি সৈয়দ ইশতিয়াক রেজার সঞ্চালনায় সেমিনারে বক্তব্য রাখেন একুশে টেলিভিশনের প্রধান নির্বাহী মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল, সারাবাংলার নির্বাহী সম্পাদক মাহমুদ মেনন খান, বিএফইউজে‘র কোষাধ্যক্ষ দীপ আজাদসহ অনেকেই।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, তথ্যমন্ত্রী হিসেবে আমি কোনো অবস্থাতেই তথ্য চাপা দেয়ার পক্ষে নয়। সুতরাং মূলধারার গণমাধ্যম নির্ভয়ে ঘটনার সঠিক বিবরণ তুলে ধরুন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম গুজব রটনা ও মিথ্যাচারের বাহন হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, মিথ্যাচার ও গুজব রটানোর ক্ষেত্রে যতই ঝাপটা আসুক না কেন, যত রকম বিভ্রান্ত ছড়ানো হোক না কেন, তবে মিথ্যাচার গুজব রটনাকারীদের শক্তভাবে দমন করার পাশাপাশি ফেসবুক সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের জানালাটা খোলা রাখার পক্ষে সরকার। এই অবস্থান নিয়েই আমরা বাকিটা আলোচনা করব।

পিআইবি’র মহাপরিচালক শাহ আলমগীর বলেন, গুজবের বিরুদ্ধে মানুষকে সচেতন করতে সাংবাদিক সংগঠনগুলোকে এগিয়ে আসতে হবে। গুজব মোকাবেলা করতে গিয়ে সংবাদ প্রচার বন্ধ করে দেয়া, কোনো সমাধান নয়। বরং এতে গুজবের আরও বেশি ডালপালা গজাবে।

বিডিপ্রেস/আরজে