BDpress

যথাযথ মর্যাদায় জাতীয় কবি কাজী নজরুলের মৃত্যুবার্ষিকী পালিত

নিজস্ব প্রতিবেদক

অ+ অ-
যথাযথ মর্যাদায় জাতীয় কবি কাজী নজরুলের মৃত্যুবার্ষিকী পালিত
যথাযোগ্য মর্যাদায় জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ৪২তম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত হয়েছে। সোমবার সকালে বিভিন্ন স্তরের মানুষের কবির সমাধিতে শ্রদ্ধাজ্ঞাপনের মধ্য দিয়ে কবির সমাধি ফুলে ফুলে ছেয়ে যায়। সকাল সাড়ে ৭টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) পক্ষ থেকে কবির সমাধিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণের মধ্য দিয়ে দিনের কার্যসূচি শুরু হয়।

ঢাবির উপ-উপাচার্য কবি ড. মুহম্মদ সামাদসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারীরা পরপর শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। ঢাবির বিভিন্ন সংগঠন ও হলের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা নিবেদনের পর বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান, রাজনৈতিক দল, সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠন ও নানা প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে সংশ্লিষ্টরা পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করেন।

সমাধি প্রাঙ্গণে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে কবি স্মরণে আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। ঢাবি উপ-উপাচার্য কবি ড. মুহম্মদ সামাদ উপাচার্য এতে সভাপতিত্ব করেন।

আলোচনায় অংশ নেন জাতীয় অধ্যাপক ড. রফিকুল ইসলাম, প্রক্টর অধ্যাপক ড. এ কে এম গোলাম রব্বানী, সংগীত বিভাগের শিক্ষক টুম্পা সমদ্দার,অধ্যাপক ড. মোহসিনা আখতার খানম (লীনা তাপসী), অধ্যাপক ভীষ্মদেব চৌধুরী, ঢাবি শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক এ এস এম মাকসুদ কামাল ও অধ্যাপক আখতার কামাল।

আলোচনায় জাতীয় অধ্যাপক ড. রফিকুল ইসলাম কবির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে বলেন, কবির সমাধির পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা আরও বাড়ানো দরকার। তিনি সমাধি প্রাঙ্গণে আরও ফুলগাছ ও অন্যান্য গাছ রোপণের আহ্বান জানিয়ে বলেন, কবির বিভিন্ন কবিতায় অনেক গাছের ও ফুলের নাম রয়েছে। সেসব ফুল ও গাছ লাগানোর জন্য তিনি অনুরোধ জানান।

তিনি বলেন, কবির সমাধিকে যেন স্মৃতিসৌধ করে ফেলা না হয়। এটা সমাধিই থাকবে। সমাধির পরিবেশ আরও আকর্ষণীয় করার জন্য তিনি ষড়ঋতুতে যেসব ফুল ফোটে, সেসব গাছ রোপণ করার আহ্বান জানান।

ঢাবির উপ-উপাচার্য ড. মুহম্মদ সামাদ সভাপতির বক্তব্যে বলেন, আগামী বছর নজরুল জন্মজয়ন্তীতে কবির সমাধিতে অনুষ্ঠান বড়সড় করে আয়োজন করা হবে।

তিনি বলেন, নজরুল সারা বিশ্বের নির্যাতিত মানুষের কবি। মানবতা,অসাম্প্রদায়িক চেতনার কবি। বিশ্বে এখন এই কবি মানবতার ও সৃষ্টিশীলতার কবি হিসেবে প্রতিষ্ঠিত।

পরে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে নজরুল সংগীত পরিবেশন করেন শিল্পী খায়রুল আনাম শাকিল, শিল্পী ইয়াকুব আলী খান, শিল্পী লীনা তাপসী ও ঢাবির সংগীত দলের শিল্পীরা। কাজী নজরুলে কবিতা আবৃত্তি করা হয়।

সমাধিতে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করে শ্রদ্ধা জানান, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, যুগ্ম সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবীর নানক, কেন্দ্রীয় নেতা অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন, দিপু মণি প্রমুখ।

এ ছাড়াও কবির সমাধিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করে শ্রদ্ধা জানায়, কবির পরিবারের সদস্যরা, সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রণালয়, ঢাবির উপ-উপাচার্য, ঢাবি শিক্ষক সমিতি, বাসদ (মার্ক্সবাদী), বাংলা একাডেমি, শিল্পকলা একাডেমি, জাতীয় কবিতা পরিষদ, গণগ্রন্থাগার, বাংলাদেশ উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী, রোকেয়া হল, মহিলা আওয়ামী লীগ, বিএনপি, ঢাকা মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগ, ঢাবি একাত্তর হল, নজরুল ইন্সটিটিউট, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট, বঙ্গবন্ধু গবেষণা পরিষদ, জাতীয় গ্রন্থকেন্দ্র , ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ, কপি রাইট অধিদফতর, বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেসা মুজিব হল, শহীদ সার্জেন্ট জহিরুল হক হল, ঢাবি অফিসার্স অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ কুয়েত মৈত্রী হল, কবি সুফিয়া কামাল হলের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করা হয়।

কবির স্মরণে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির পক্ষ থেকে একাডেমির জাতীয় চিত্রশালা মিলনায়তনে আলোচনা সভা ও সংগীতানুষ্ঠানের আয়োজনের মধ্য দিয়ে দিনটি পালন করা হয়। এতে আলোচনায় অংশ নেন কবি আসাদ চৌধুরী। সভাপতিত্ব করেন শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক নাট্যজন লিয়াকত আলী লাকী। পরে বিভিন্ন শিল্পীরা নজরুল সংগীত পরিবেশন করেন।

দিবসটি উপলক্ষে বিটিভিসহ বেসরকারি টিভি থেকে কবির ওপর নানা অনুষ্ঠান সম্প্রচার করা হচ্ছে।

বিডিপ্রেস/আরজে

এ সম্পর্কিত অন্যান্য খবর

BDpress

যথাযথ মর্যাদায় জাতীয় কবি কাজী নজরুলের মৃত্যুবার্ষিকী পালিত


যথাযথ মর্যাদায় জাতীয় কবি কাজী নজরুলের মৃত্যুবার্ষিকী পালিত

ঢাবির উপ-উপাচার্য কবি ড. মুহম্মদ সামাদসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারীরা পরপর শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। ঢাবির বিভিন্ন সংগঠন ও হলের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা নিবেদনের পর বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান, রাজনৈতিক দল, সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠন ও নানা প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে সংশ্লিষ্টরা পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করেন।

সমাধি প্রাঙ্গণে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে কবি স্মরণে আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। ঢাবি উপ-উপাচার্য কবি ড. মুহম্মদ সামাদ উপাচার্য এতে সভাপতিত্ব করেন।

আলোচনায় অংশ নেন জাতীয় অধ্যাপক ড. রফিকুল ইসলাম, প্রক্টর অধ্যাপক ড. এ কে এম গোলাম রব্বানী, সংগীত বিভাগের শিক্ষক টুম্পা সমদ্দার,অধ্যাপক ড. মোহসিনা আখতার খানম (লীনা তাপসী), অধ্যাপক ভীষ্মদেব চৌধুরী, ঢাবি শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক এ এস এম মাকসুদ কামাল ও অধ্যাপক আখতার কামাল।

আলোচনায় জাতীয় অধ্যাপক ড. রফিকুল ইসলাম কবির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে বলেন, কবির সমাধির পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা আরও বাড়ানো দরকার। তিনি সমাধি প্রাঙ্গণে আরও ফুলগাছ ও অন্যান্য গাছ রোপণের আহ্বান জানিয়ে বলেন, কবির বিভিন্ন কবিতায় অনেক গাছের ও ফুলের নাম রয়েছে। সেসব ফুল ও গাছ লাগানোর জন্য তিনি অনুরোধ জানান।

তিনি বলেন, কবির সমাধিকে যেন স্মৃতিসৌধ করে ফেলা না হয়। এটা সমাধিই থাকবে। সমাধির পরিবেশ আরও আকর্ষণীয় করার জন্য তিনি ষড়ঋতুতে যেসব ফুল ফোটে, সেসব গাছ রোপণ করার আহ্বান জানান।

ঢাবির উপ-উপাচার্য ড. মুহম্মদ সামাদ সভাপতির বক্তব্যে বলেন, আগামী বছর নজরুল জন্মজয়ন্তীতে কবির সমাধিতে অনুষ্ঠান বড়সড় করে আয়োজন করা হবে।

তিনি বলেন, নজরুল সারা বিশ্বের নির্যাতিত মানুষের কবি। মানবতা,অসাম্প্রদায়িক চেতনার কবি। বিশ্বে এখন এই কবি মানবতার ও সৃষ্টিশীলতার কবি হিসেবে প্রতিষ্ঠিত।

পরে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে নজরুল সংগীত পরিবেশন করেন শিল্পী খায়রুল আনাম শাকিল, শিল্পী ইয়াকুব আলী খান, শিল্পী লীনা তাপসী ও ঢাবির সংগীত দলের শিল্পীরা। কাজী নজরুলে কবিতা আবৃত্তি করা হয়।

সমাধিতে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করে শ্রদ্ধা জানান, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, যুগ্ম সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবীর নানক, কেন্দ্রীয় নেতা অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন, দিপু মণি প্রমুখ।

এ ছাড়াও কবির সমাধিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করে শ্রদ্ধা জানায়, কবির পরিবারের সদস্যরা, সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রণালয়, ঢাবির উপ-উপাচার্য, ঢাবি শিক্ষক সমিতি, বাসদ (মার্ক্সবাদী), বাংলা একাডেমি, শিল্পকলা একাডেমি, জাতীয় কবিতা পরিষদ, গণগ্রন্থাগার, বাংলাদেশ উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী, রোকেয়া হল, মহিলা আওয়ামী লীগ, বিএনপি, ঢাকা মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগ, ঢাবি একাত্তর হল, নজরুল ইন্সটিটিউট, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট, বঙ্গবন্ধু গবেষণা পরিষদ, জাতীয় গ্রন্থকেন্দ্র , ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ, কপি রাইট অধিদফতর, বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেসা মুজিব হল, শহীদ সার্জেন্ট জহিরুল হক হল, ঢাবি অফিসার্স অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ কুয়েত মৈত্রী হল, কবি সুফিয়া কামাল হলের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করা হয়।

কবির স্মরণে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির পক্ষ থেকে একাডেমির জাতীয় চিত্রশালা মিলনায়তনে আলোচনা সভা ও সংগীতানুষ্ঠানের আয়োজনের মধ্য দিয়ে দিনটি পালন করা হয়। এতে আলোচনায় অংশ নেন কবি আসাদ চৌধুরী। সভাপতিত্ব করেন শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক নাট্যজন লিয়াকত আলী লাকী। পরে বিভিন্ন শিল্পীরা নজরুল সংগীত পরিবেশন করেন।

দিবসটি উপলক্ষে বিটিভিসহ বেসরকারি টিভি থেকে কবির ওপর নানা অনুষ্ঠান সম্প্রচার করা হচ্ছে।

বিডিপ্রেস/আরজে