BDpress

অভিযোগ প্রমাণ হলে কঠোর শাস্তি: পাপন

ক্রীড়া ডেস্ক

অ+ অ-
অভিযোগ প্রমাণ হলে কঠোর শাস্তি: পাপন
বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড প্রধান হজ পালন শেষে দেশে ফিরলেন, গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বললেন অনেক বিষয় নিয়েই। যার মধ্যে অন্যতম ছিল সাম্প্রতিক কিছু ইস্যু। কয়েকজন খেলোয়াড়ের দলীয় শৃঙ্খলাভঙ্গসহ মাঠের বাইরে অনৈতিক কিছু কর্মকাণ্ড।

এমন কিছু নাম বলতে গেলে ঘুরে ফিরেই আসে সাব্বির রহমান, নাসির হোসেন, মোহাম্মদ শহীদ আর সদ্যযুক্ত হওয়া মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত।

যদিও আজকের মিটিংয়ে নাসির, সাব্বির আর মোসাদ্দেক এই তিন জনকে তলব করেছিল বিসিবি’র ডিসিপ্লিনারি কমিটি। 

জুনিয়র ক্রিকেটারদের এমন অনৈতিক কাজে কেন জড়িয়ে পড়ছে আর এর সমাধান কি? এমন প্রশ্নে নাজমুল হাসান বলেন, নাসির, সাব্বির, মোসাদ্দেকরা এখনও জুনিয়র! তিন-চার বছর খেলার পরও যারা সিনিয়রের দায়িত্ব নিতে পারে না তাদের নিয়ে কিছু বলার নাই। 

ক্রিকেটারদের এমন কর্মকাণ্ডে দলের সিনিয়র খেলোয়াড় থেকে শুরু করে বোর্ড কর্মকর্তাদেরও বিব্রতকর প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হয়।

এমন কথার উত্তরে পাপন বলেন, সবারই কিছু না কিছু ব্যক্তিগত সমস্যা থাকতে পারে। যে ব্যপারগুলোতে চাইলেও আমরা নাক গলাতে পারি না। ধরেন, কেউ যদি তার স্ত্রীকে ডিভোর্স দিতে চায় তখন আমরা কি করব! কেউ যদি একাধিক বিয়েও করে তখন আমাদের কি করার আছে। আমরা তো বলতে পারি না, ক্রিকেট যারা খেলে তাদের একাধিক বিয়ে করা যাবে না।

তিনি আরও বলেন, তারা দেশের আইডল। তাদের অনেক কিছুই মেন্টেন করে চলা লাগবে। আমরাও চেষ্টা করছি তাদের সঠিক পথটা দেখাতে। এখন তারা যদি সেটা না মেনে চলতে পারে তাহলে আমাদেরও কঠিন সিদ্ধান্ত নিতেই হবে। যে সমস্যাগুলো আমাদের কানে এসেছে সেগুলো যদি প্রমাণ হয় তাহলে কঠিন সিদ্ধান্ত নিতে হবে। বেশি হলে দল থেকে বাদ দেয়া হবে এর বেশি তো কিছু করতে পারবো না।

বিডিপ্রেস/আরজে

এ সম্পর্কিত অন্যান্য খবর

BDpress

অভিযোগ প্রমাণ হলে কঠোর শাস্তি: পাপন


অভিযোগ প্রমাণ হলে কঠোর শাস্তি: পাপন

এমন কিছু নাম বলতে গেলে ঘুরে ফিরেই আসে সাব্বির রহমান, নাসির হোসেন, মোহাম্মদ শহীদ আর সদ্যযুক্ত হওয়া মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত।

যদিও আজকের মিটিংয়ে নাসির, সাব্বির আর মোসাদ্দেক এই তিন জনকে তলব করেছিল বিসিবি’র ডিসিপ্লিনারি কমিটি। 

জুনিয়র ক্রিকেটারদের এমন অনৈতিক কাজে কেন জড়িয়ে পড়ছে আর এর সমাধান কি? এমন প্রশ্নে নাজমুল হাসান বলেন, নাসির, সাব্বির, মোসাদ্দেকরা এখনও জুনিয়র! তিন-চার বছর খেলার পরও যারা সিনিয়রের দায়িত্ব নিতে পারে না তাদের নিয়ে কিছু বলার নাই। 

ক্রিকেটারদের এমন কর্মকাণ্ডে দলের সিনিয়র খেলোয়াড় থেকে শুরু করে বোর্ড কর্মকর্তাদেরও বিব্রতকর প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হয়।

এমন কথার উত্তরে পাপন বলেন, সবারই কিছু না কিছু ব্যক্তিগত সমস্যা থাকতে পারে। যে ব্যপারগুলোতে চাইলেও আমরা নাক গলাতে পারি না। ধরেন, কেউ যদি তার স্ত্রীকে ডিভোর্স দিতে চায় তখন আমরা কি করব! কেউ যদি একাধিক বিয়েও করে তখন আমাদের কি করার আছে। আমরা তো বলতে পারি না, ক্রিকেট যারা খেলে তাদের একাধিক বিয়ে করা যাবে না।

তিনি আরও বলেন, তারা দেশের আইডল। তাদের অনেক কিছুই মেন্টেন করে চলা লাগবে। আমরাও চেষ্টা করছি তাদের সঠিক পথটা দেখাতে। এখন তারা যদি সেটা না মেনে চলতে পারে তাহলে আমাদেরও কঠিন সিদ্ধান্ত নিতেই হবে। যে সমস্যাগুলো আমাদের কানে এসেছে সেগুলো যদি প্রমাণ হয় তাহলে কঠিন সিদ্ধান্ত নিতে হবে। বেশি হলে দল থেকে বাদ দেয়া হবে এর বেশি তো কিছু করতে পারবো না।

বিডিপ্রেস/আরজে