BDpress

গাজীপুরে সহপাঠীর ছুরিকাঘাতে মাদরাসাছাত্র নিহত

জেলা প্রতিবেদক

অ+ অ-
গাজীপুরে সহপাঠীর ছুরিকাঘাতে মাদরাসাছাত্র নিহত
গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের চান্দনা এলাকায় এমএ রাজ্জাক আলিম মাদরাসায় সহপাঠীর ছুরিকাঘাতে মাসুদুর রহমান মিরাজ আহমেদ (১৫) নামে এক শিক্ষার্থী নিহত হয়েছে। বুধবার সকালে ঘটনা ঘটে।

নিহত মাসুদুর রহমান মিরাজ আহমেদ ওই মাদরাসার ৮ম শ্রেণীর ছাত্র এবং স্থানীয় যোগীতলা এলাকার আমজাদ হোসেনের ছেলে। এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে মনোয়ার হোসেন নামে এক শিক্ষার্থীকে আটক করেছে পুলিশ।

মাদরাসার সুপার মো. রাকিবুল ইসলাম জানান, সকাল পৌনে ৯টার দিকে ক্লাসে বেঞ্চে বসা নিয়ে সহপাঠী মনোয়ার হোসেন ও ইমরান হোসেনের সঙ্গে কথাকাটাকাটি হয় মিরাজের। একপর্যায়ে তাদের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এ সময় মনোয়ার হোসেন চোখে আঘাত পায়। পরে মনোয়ার হোসেন ক্ষিপ্ত হয়ে তার ব্যাগ থেকে ছুরি বের করে মিরাজকে বুকের বাম পাশে আঘাত করে। এ সময় অন্য সহপাঠীরা তাকে ধরে সুপারের কক্ষে নিয়ে যায়। পরে তাকে পুলিশে দেয়া হয়। গুরুতর আহত মিরাজকে উদ্ধার করে শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক প্রণয় ভূষন দাস জানান, মিরাজকে মৃত অবস্থায় হাসপাতালে আনা হয়েছিল। তার বুকের বাম পাশে ধারালো অস্ত্রের আঘাতের ক্ষত রয়েছে।

জয়দেবপুর থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. লুৎফর রহমান জানান, ওই ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে তার অপর সহপাঠী মনোয়রকে আটক করা হয়েছে। ইমরানকেও আটকের চেষ্টা চলছে। ঘটনাস্থল থেকে রক্তমাখা ছুরিটি উদ্ধার করা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

বিডিপ্রেস/আরজে

এ সম্পর্কিত অন্যান্য খবর

BDpress

গাজীপুরে সহপাঠীর ছুরিকাঘাতে মাদরাসাছাত্র নিহত


গাজীপুরে সহপাঠীর ছুরিকাঘাতে মাদরাসাছাত্র নিহত

নিহত মাসুদুর রহমান মিরাজ আহমেদ ওই মাদরাসার ৮ম শ্রেণীর ছাত্র এবং স্থানীয় যোগীতলা এলাকার আমজাদ হোসেনের ছেলে। এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে মনোয়ার হোসেন নামে এক শিক্ষার্থীকে আটক করেছে পুলিশ।

মাদরাসার সুপার মো. রাকিবুল ইসলাম জানান, সকাল পৌনে ৯টার দিকে ক্লাসে বেঞ্চে বসা নিয়ে সহপাঠী মনোয়ার হোসেন ও ইমরান হোসেনের সঙ্গে কথাকাটাকাটি হয় মিরাজের। একপর্যায়ে তাদের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এ সময় মনোয়ার হোসেন চোখে আঘাত পায়। পরে মনোয়ার হোসেন ক্ষিপ্ত হয়ে তার ব্যাগ থেকে ছুরি বের করে মিরাজকে বুকের বাম পাশে আঘাত করে। এ সময় অন্য সহপাঠীরা তাকে ধরে সুপারের কক্ষে নিয়ে যায়। পরে তাকে পুলিশে দেয়া হয়। গুরুতর আহত মিরাজকে উদ্ধার করে শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক প্রণয় ভূষন দাস জানান, মিরাজকে মৃত অবস্থায় হাসপাতালে আনা হয়েছিল। তার বুকের বাম পাশে ধারালো অস্ত্রের আঘাতের ক্ষত রয়েছে।

জয়দেবপুর থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. লুৎফর রহমান জানান, ওই ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে তার অপর সহপাঠী মনোয়রকে আটক করা হয়েছে। ইমরানকেও আটকের চেষ্টা চলছে। ঘটনাস্থল থেকে রক্তমাখা ছুরিটি উদ্ধার করা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

বিডিপ্রেস/আরজে