BDpress

৩০০ আসনে প্রার্থী দেবে জাপা: এরশাদ

নিজস্ব প্রতিবেদক

অ+ অ-
৩০০ আসনে প্রার্থী দেবে জাপা: এরশাদ
জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বলেছেন, খুন-গুম আর রক্তে দেশ আজ ভালো নেই। প্রমাণ হয়েছে শুধু জাতীয় পার্টি ছাড়া কেউ এ দেশে সুশাসন দিতে পারে না। আমাদের প্রার্থী তালিকা চূড়ান্ত, আমরা ৩০০ আসনেই নির্বাচন করব।

বৃহস্পতিবার বেলা ১১টা থেকে দেড়টা পর্যন্ত ঢাকা-১৭ সংসদীয় আসনের শাহজাদপুর, কড়াইল বস্তি ও মহাখালী কাঁচাবাজার এলাকায় নির্বাচনী গণসংযোগকালে এ কথা বলেন সাবেক এ রাষ্ট্রপতি।

এ সময় বক্তৃতা করেন দলটির মহাসচিব এবিএম রুহুল আমীন হাওলাদার এমপি, প্রেসিডিয়াম সদস্য এসএম ফয়সাল চিশতী, সুনীল শুভরায়, মেজর (অব.) খালেদ আখতার, সফিকুল ইসলাম সেন্টু, আমির হোসেন ভূঁইয়া এমপি।

হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বলেন, খুন-গুম আর রক্তে দেশ আজ ভালো নেই। শান্তির বাংলাদেশ এভাবে চলতে পারে না। মানুষ অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে, মানুষ বাঁচতে চায়। আমরা মানুষকে বাঁচাতে পথে নেমেছি। আমরা দেশের মানুষকে শান্তি দেব- মুক্তি দেব।

বেলা ১১টায় বারিধারার প্রেসিডেন্ট পার্ক থেকে গাড়িবহর নিয়ে বের হয়ে পল্লীবন্ধু এরশাদ গুলশানের শাহজাদপুর ঝিলপাড়ে এক জনসভায় বক্তৃতা করেন। এর পর কড়াইল বস্তিসংলগ্ন আনসার ক্যাম্প মাঠে এবং মহাখালীর কাঁচাবাজার এলাকায় গণসংযোগ করেন তিনি।

বক্তৃতাকালে হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ আরও বলেন, আমি যখন ক্ষমতা ছেড়েছি, তখন চালের দাম ১০ টাকা কেজি ছিল। নিত্যপণ্য মানুষের ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে ছিল। তিনি বলেন, মধ্যম আয়ের দেশ ঘোষণায় যারা উল্লসিত, তারা গ্রামের খবর জানেন না। মানুষের কষ্টের খোঁজ রাখেন না। সবাই ক্ষমতা টিকিয়ে রাখতে ব্যস্ত, মানুষের কষ্টের খোঁজ রাখার সময় নেই কারো।

তিনি বলেন, খবরের কাগজ খুললেই শুধু মানুষ খুন আর রক্তের খবর; ইচ্ছে করলেই এ খুন বন্ধ করা যায়। কিন্তু কারো খেয়াল নেই, কারো ইচ্ছে নেই হত্যাযজ্ঞ বন্ধ করতে।

এরশাদ বলেন, ঢাকা-১৭ আসনের এমপি থাকাকালে এ এলাকায় পানির কষ্ট দূর করতে ১৪টি পানির পাম্প বসিয়েছিলাম। আমরা রাস্তাঘাট করেছি, মানুষের জীবনমানের উন্নয়ন করেছি।

তিনি বলেন, আবারও সুযোগ দিন, মানুষের কল্যাণে কাজ করতে এখনও বেঁচে আছি। মানুষের দোয়ায় আল্লাহ বাঁচিয়ে রেখেছেন মানুষের কল্যাণে কাজ করার জন্য। তিনি আরও বলেন, লাঙ্গলে ভোট দিবেন, আমরা মানুষের জীবনের নিরাপত্তা দেব। আমাদের চেয়ে কেউ বেশি উন্নয়ন করতে পারেননি, কেউ পারবেও না।

এ সময় আগামী নির্বাচনে ঢাকা-১৭ আসনে নির্বাচনের ঘোষণা দিয়ে সাধারণ মানুষের সমর্থন কামনা করলে উপস্থিত জনতা হাত তুলে পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদকে সমর্থন জানান।

এ সময় পার্টির মহাসচিব এবিএম রুহুল আমীন হাওলাদার বলেন, রাজনীতির জীবন্ত কিংবদন্তি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ এ দেশের মানুষের পরীক্ষিত বন্ধু। তিনি দেশে সুশাসন, কল্যাণ, উন্নয়ন ও জীবনের নিরাপত্তা দিয়েছেন।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ ও বিএনপি সব সেক্টরে ব্যর্থ হয়েছে; অথচ হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ সফল ছিলেন। রুহুল আমীন হাওলাদার ঢাকা-১৭ আসনে হুসেইন মুহম্মদ এরশাদকে নির্বাচিত করতে সাধারণ মানুষের কাছে ভোট চান।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন জাতীয় পার্টির নেতা নুরুল ইসলাম নুরু, সুলতান আহমেদ সেলিম, হেলালউদ্দিন, আবুল খায়ের, নুরুল ইসলাম, আবদুল আজিজ, আলাউদ্দিন মৃধা প্রমুখ।

বিডিপ্রেস/আরজে

এ সম্পর্কিত অন্যান্য খবর

BDpress

৩০০ আসনে প্রার্থী দেবে জাপা: এরশাদ


৩০০ আসনে প্রার্থী দেবে জাপা: এরশাদ

বৃহস্পতিবার বেলা ১১টা থেকে দেড়টা পর্যন্ত ঢাকা-১৭ সংসদীয় আসনের শাহজাদপুর, কড়াইল বস্তি ও মহাখালী কাঁচাবাজার এলাকায় নির্বাচনী গণসংযোগকালে এ কথা বলেন সাবেক এ রাষ্ট্রপতি।

এ সময় বক্তৃতা করেন দলটির মহাসচিব এবিএম রুহুল আমীন হাওলাদার এমপি, প্রেসিডিয়াম সদস্য এসএম ফয়সাল চিশতী, সুনীল শুভরায়, মেজর (অব.) খালেদ আখতার, সফিকুল ইসলাম সেন্টু, আমির হোসেন ভূঁইয়া এমপি।

হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বলেন, খুন-গুম আর রক্তে দেশ আজ ভালো নেই। শান্তির বাংলাদেশ এভাবে চলতে পারে না। মানুষ অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে, মানুষ বাঁচতে চায়। আমরা মানুষকে বাঁচাতে পথে নেমেছি। আমরা দেশের মানুষকে শান্তি দেব- মুক্তি দেব।

বেলা ১১টায় বারিধারার প্রেসিডেন্ট পার্ক থেকে গাড়িবহর নিয়ে বের হয়ে পল্লীবন্ধু এরশাদ গুলশানের শাহজাদপুর ঝিলপাড়ে এক জনসভায় বক্তৃতা করেন। এর পর কড়াইল বস্তিসংলগ্ন আনসার ক্যাম্প মাঠে এবং মহাখালীর কাঁচাবাজার এলাকায় গণসংযোগ করেন তিনি।

বক্তৃতাকালে হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ আরও বলেন, আমি যখন ক্ষমতা ছেড়েছি, তখন চালের দাম ১০ টাকা কেজি ছিল। নিত্যপণ্য মানুষের ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে ছিল। তিনি বলেন, মধ্যম আয়ের দেশ ঘোষণায় যারা উল্লসিত, তারা গ্রামের খবর জানেন না। মানুষের কষ্টের খোঁজ রাখেন না। সবাই ক্ষমতা টিকিয়ে রাখতে ব্যস্ত, মানুষের কষ্টের খোঁজ রাখার সময় নেই কারো।

তিনি বলেন, খবরের কাগজ খুললেই শুধু মানুষ খুন আর রক্তের খবর; ইচ্ছে করলেই এ খুন বন্ধ করা যায়। কিন্তু কারো খেয়াল নেই, কারো ইচ্ছে নেই হত্যাযজ্ঞ বন্ধ করতে।

এরশাদ বলেন, ঢাকা-১৭ আসনের এমপি থাকাকালে এ এলাকায় পানির কষ্ট দূর করতে ১৪টি পানির পাম্প বসিয়েছিলাম। আমরা রাস্তাঘাট করেছি, মানুষের জীবনমানের উন্নয়ন করেছি।

তিনি বলেন, আবারও সুযোগ দিন, মানুষের কল্যাণে কাজ করতে এখনও বেঁচে আছি। মানুষের দোয়ায় আল্লাহ বাঁচিয়ে রেখেছেন মানুষের কল্যাণে কাজ করার জন্য। তিনি আরও বলেন, লাঙ্গলে ভোট দিবেন, আমরা মানুষের জীবনের নিরাপত্তা দেব। আমাদের চেয়ে কেউ বেশি উন্নয়ন করতে পারেননি, কেউ পারবেও না।

এ সময় আগামী নির্বাচনে ঢাকা-১৭ আসনে নির্বাচনের ঘোষণা দিয়ে সাধারণ মানুষের সমর্থন কামনা করলে উপস্থিত জনতা হাত তুলে পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদকে সমর্থন জানান।

এ সময় পার্টির মহাসচিব এবিএম রুহুল আমীন হাওলাদার বলেন, রাজনীতির জীবন্ত কিংবদন্তি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ এ দেশের মানুষের পরীক্ষিত বন্ধু। তিনি দেশে সুশাসন, কল্যাণ, উন্নয়ন ও জীবনের নিরাপত্তা দিয়েছেন।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ ও বিএনপি সব সেক্টরে ব্যর্থ হয়েছে; অথচ হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ সফল ছিলেন। রুহুল আমীন হাওলাদার ঢাকা-১৭ আসনে হুসেইন মুহম্মদ এরশাদকে নির্বাচিত করতে সাধারণ মানুষের কাছে ভোট চান।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন জাতীয় পার্টির নেতা নুরুল ইসলাম নুরু, সুলতান আহমেদ সেলিম, হেলালউদ্দিন, আবুল খায়ের, নুরুল ইসলাম, আবদুল আজিজ, আলাউদ্দিন মৃধা প্রমুখ।

বিডিপ্রেস/আরজে