BDpress

সপ্তাহব্যাপী আয়কর মেলা ১৩ নভেম্বর শুরু

নিজস্ব প্রতিবেদক

অ+ অ-
সপ্তাহব্যাপী আয়কর মেলা ১৩ নভেম্বর শুরু
দেশব্যাপী আয়কর মেলা শুরু হচ্ছে। আগামী ১৩ নভেম্বর থেকে সপ্তাহব্যাপী এই আয়কর মেলা চলবে। গত বছর ঢাকা ও চট্টগ্রামে আয়কর প্রদানকারীরা ট্যাক্স কার্ড পেয়েছিলেন। কিন্তু এবার সেটা দেয়া হচ্ছে না। তবে মেলার প্রচার-প্রচারণায় ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে আয়কর মেলার আয়োজক জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)।

এনবিআর সূত্রে জানা গেছে, আগামী ১৩ নভেম্বর থেকে কর মেলা শুরু হবে। রাজধানীসহ দেশের সব বিভাগীয় শহরে সপ্তাহব্যাপী এই মেলা হবে। শেষ হবে ১৯ নভেম্বর। এবার রাজধানীর কর মেলা হবে বেইলি রোডের অফিসার্স ক্লাব প্রাঙ্গণে।

এ ছাড়া সব জেলা শহরে চারদিন এবং ৩০টি উপজেলায় দুইদিন মেলা হবে। উপজেলা পর্যায়ে যেসব স্থানে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড ভালো-এমন গ্রোথ সেন্টারে একদিন ভ্রাম্যমাণ মেলা হবে।

মেলার সমন্বয়কারী ও এনবিআরের সদস্য (আয়কর প্রশাসন) জিয়াউদ্দিন মাহমুদ বলেন, ‘এবারের মেলার নতুনত্ব হচ্ছে অডিও-ভিডিও সম্প্রচারের মাধ্যমে কর শিক্ষণ প্রদান। কর সচেতনতা তৈরিতে এই কর শিক্ষণ পদ্ধতির ব্যবস্থা করা হচ্ছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘কর মেলার মাধ্যমে তরুণ করদাতারা উদ্বুদ্ধ হচ্ছেন। কর মেলার সুনাম দেশের বাইরে ছড়িয়ে পড়ছে। বাংলাদেশের কর মেলা আন্তর্জাতিকভাবে রোল মডেল হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে।’

প্রতিবছরের মতো করদাতারা এবারের মেলায়ও আয়কর বিবরণীর ফরম থেকে শুরু করে কর পরিশোধের জন্য ব্যাংক বুথও পাবেন। একই ছাদের নিচে সব সেবা মিলবে। করদাতা শুধু প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সঙ্গে আনলেই হবে। মেলায় নতুন করদাতারা ইলেকট্রনিক কর শনাক্তকরণ নম্বর (ই-টিআইএন) নিতে পারবেন। এ ছাড়া ই-পেমেন্টের জন্য পৃথক বুথ থাকবে। মুক্তিযোদ্ধা, নারী, প্রতিবন্ধী ও প্রবীণ করদাতাদের জন্য আলাদা বুথ থাকবে।

২০১০ সালে প্রথমবারের মতো ঢাকা ও চট্টগ্রামে আয়কর মেলার আয়োজন করা হয়। এরপর প্রতিবছরই মেলার পরিধি বেড়েছে। এদিকে আগামী ১২ নভেম্বর রাজধানীর একটি হোটেলে সেরা করদাতাদের সম্মাননা দেয়া হবে।

বিডিপ্রেস/আরজে

এ সম্পর্কিত অন্যান্য খবর

BDpress

সপ্তাহব্যাপী আয়কর মেলা ১৩ নভেম্বর শুরু


সপ্তাহব্যাপী আয়কর মেলা ১৩ নভেম্বর শুরু

এনবিআর সূত্রে জানা গেছে, আগামী ১৩ নভেম্বর থেকে কর মেলা শুরু হবে। রাজধানীসহ দেশের সব বিভাগীয় শহরে সপ্তাহব্যাপী এই মেলা হবে। শেষ হবে ১৯ নভেম্বর। এবার রাজধানীর কর মেলা হবে বেইলি রোডের অফিসার্স ক্লাব প্রাঙ্গণে।

এ ছাড়া সব জেলা শহরে চারদিন এবং ৩০টি উপজেলায় দুইদিন মেলা হবে। উপজেলা পর্যায়ে যেসব স্থানে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড ভালো-এমন গ্রোথ সেন্টারে একদিন ভ্রাম্যমাণ মেলা হবে।

মেলার সমন্বয়কারী ও এনবিআরের সদস্য (আয়কর প্রশাসন) জিয়াউদ্দিন মাহমুদ বলেন, ‘এবারের মেলার নতুনত্ব হচ্ছে অডিও-ভিডিও সম্প্রচারের মাধ্যমে কর শিক্ষণ প্রদান। কর সচেতনতা তৈরিতে এই কর শিক্ষণ পদ্ধতির ব্যবস্থা করা হচ্ছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘কর মেলার মাধ্যমে তরুণ করদাতারা উদ্বুদ্ধ হচ্ছেন। কর মেলার সুনাম দেশের বাইরে ছড়িয়ে পড়ছে। বাংলাদেশের কর মেলা আন্তর্জাতিকভাবে রোল মডেল হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে।’

প্রতিবছরের মতো করদাতারা এবারের মেলায়ও আয়কর বিবরণীর ফরম থেকে শুরু করে কর পরিশোধের জন্য ব্যাংক বুথও পাবেন। একই ছাদের নিচে সব সেবা মিলবে। করদাতা শুধু প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সঙ্গে আনলেই হবে। মেলায় নতুন করদাতারা ইলেকট্রনিক কর শনাক্তকরণ নম্বর (ই-টিআইএন) নিতে পারবেন। এ ছাড়া ই-পেমেন্টের জন্য পৃথক বুথ থাকবে। মুক্তিযোদ্ধা, নারী, প্রতিবন্ধী ও প্রবীণ করদাতাদের জন্য আলাদা বুথ থাকবে।

২০১০ সালে প্রথমবারের মতো ঢাকা ও চট্টগ্রামে আয়কর মেলার আয়োজন করা হয়। এরপর প্রতিবছরই মেলার পরিধি বেড়েছে। এদিকে আগামী ১২ নভেম্বর রাজধানীর একটি হোটেলে সেরা করদাতাদের সম্মাননা দেয়া হবে।

বিডিপ্রেস/আরজে