BDpress

ত্রিদেশীয় সম্মেলনে যা বললো ইরান

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

অ+ অ-
ত্রিদেশীয় সম্মেলনে যা বললো ইরান
সিরিয়া সংকটের মূলে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। তাই সিরিয়া থেকে যুক্তরাষ্ট্রকে সরে যেতে হবে। ত্রিদেশীয় সম্মেলনের সমাপনী ভাষণে শুক্রবার এ মন্তব্য করেছেন ইরানের প্রেসিডেন্ট ড. হাসান রুহানি। খবর ইরানি গণমাধ্যম আইআরআইর।

রুহানি আরও বলেন, যারা বিশ্বব্যাপী সন্ত্রাসবাদকে সমর্থন দেয় তাদের লক্ষ্য পূরণ হবে না। তবে ইরান, রাশিয়া ও তুরস্ক অভিন্ন লক্ষ্য নিয়ে কাজ করছে। আর তাহলো সিরিয়া ও গোটা মধ্যপ্রাচ্যে শান্তি প্রতিষ্ঠা করা।

এর আগে বৈঠকের শুরুতে বিস্তারিত বক্তব্য তুলে ধরেন রুহানি। সে সময় তিনি ছয়টি বিষয়ের ওপর কথা বলেন।

তিনি বলেন, সিরিয়া সংকট সমাধানের জন্য যেকোনো রাজনৈতিক আলোচনায় অবশ্যই সিরিয়ার ভৌগোলিক অখণ্ডতা ও স্বাধীনতাকে সম্মান জানাতে হবে।

সিরিয়ায় বিশেষ করে ইদলিবে সব সন্ত্রাসী গোষ্ঠী নির্মূল না হওয়া পর্যন্ত সন্ত্রাসবাদ বিরোধী সংগ্রাম অব্যাহত রাখতে হবে।

বর্তমান পরিস্থিতিতে আন্তর্জাতিক সমাজের কর্মসূচিতে শরণার্থীদের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন ও দেশ পুনর্গঠনে সহযোগিতার বিষয়টিকে গুরুত্ব দিতে হবে।

সিরিয়ায় যুক্তরাষ্ট্রের অবৈধ উপস্থিতি ও হস্তক্ষেপ অবিলম্বে বন্ধ করতে হবে। কারণ অবৈধ উপস্থিতি ও হস্তক্ষেপ সিরিয়ায় অনিরাপত্তা বজায় রেখেছে।

সিরিয়ার জনগণ ও সরকারের বিরুদ্ধে সরাইলের তৎপরতা ও দখলদারিত্ব প্রতিদিনই বাড়ছে। আন্তর্জাতিক সমাজের দায়িত্ব হলো তা মোকাবেলা করা।

একইসঙ্গে তিনি সিরিয়া সংকট সমাধানে ইরান, তুরস্ক ও রাশিয়ার চেষ্টা ও অবদানের সম্মান জানিয়ে দেশটিতে পরিপূর্ণ শান্তি ও স্থিতিশীলতা প্রতিষ্ঠায় পারস্পরিক সহযোগিতা ও সমন্বয় অব্যাহত রাখার আহ্বান জানান।

বিডিপ্রেস/আরজে

এ সম্পর্কিত অন্যান্য খবর

BDpress

ত্রিদেশীয় সম্মেলনে যা বললো ইরান


ত্রিদেশীয় সম্মেলনে যা বললো ইরান

রুহানি আরও বলেন, যারা বিশ্বব্যাপী সন্ত্রাসবাদকে সমর্থন দেয় তাদের লক্ষ্য পূরণ হবে না। তবে ইরান, রাশিয়া ও তুরস্ক অভিন্ন লক্ষ্য নিয়ে কাজ করছে। আর তাহলো সিরিয়া ও গোটা মধ্যপ্রাচ্যে শান্তি প্রতিষ্ঠা করা।

এর আগে বৈঠকের শুরুতে বিস্তারিত বক্তব্য তুলে ধরেন রুহানি। সে সময় তিনি ছয়টি বিষয়ের ওপর কথা বলেন।

তিনি বলেন, সিরিয়া সংকট সমাধানের জন্য যেকোনো রাজনৈতিক আলোচনায় অবশ্যই সিরিয়ার ভৌগোলিক অখণ্ডতা ও স্বাধীনতাকে সম্মান জানাতে হবে।

সিরিয়ায় বিশেষ করে ইদলিবে সব সন্ত্রাসী গোষ্ঠী নির্মূল না হওয়া পর্যন্ত সন্ত্রাসবাদ বিরোধী সংগ্রাম অব্যাহত রাখতে হবে।

বর্তমান পরিস্থিতিতে আন্তর্জাতিক সমাজের কর্মসূচিতে শরণার্থীদের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন ও দেশ পুনর্গঠনে সহযোগিতার বিষয়টিকে গুরুত্ব দিতে হবে।

সিরিয়ায় যুক্তরাষ্ট্রের অবৈধ উপস্থিতি ও হস্তক্ষেপ অবিলম্বে বন্ধ করতে হবে। কারণ অবৈধ উপস্থিতি ও হস্তক্ষেপ সিরিয়ায় অনিরাপত্তা বজায় রেখেছে।

সিরিয়ার জনগণ ও সরকারের বিরুদ্ধে সরাইলের তৎপরতা ও দখলদারিত্ব প্রতিদিনই বাড়ছে। আন্তর্জাতিক সমাজের দায়িত্ব হলো তা মোকাবেলা করা।

একইসঙ্গে তিনি সিরিয়া সংকট সমাধানে ইরান, তুরস্ক ও রাশিয়ার চেষ্টা ও অবদানের সম্মান জানিয়ে দেশটিতে পরিপূর্ণ শান্তি ও স্থিতিশীলতা প্রতিষ্ঠায় পারস্পরিক সহযোগিতা ও সমন্বয় অব্যাহত রাখার আহ্বান জানান।

বিডিপ্রেস/আরজে