BDpress

ধর্মীয় উৎসবে সীমান্ত খুলে ভারতের সঙ্গে সুসম্পর্কের পথে ইমরান

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

অ+ অ-
ধর্মীয় উৎসবে সীমান্ত খুলে ভারতের সঙ্গে সুসম্পর্কের পথে ইমরান
ক্ষমতায় আসার আগে থেকেই প্রতিবেশী দেশগুলির সাথে সুসম্পর্ক গড়ে তোলার ইঙ্গিত দিয়েছিলেন ইমরান খান। এবার কাজ শুরু করলেন৷ আগামী বছর গুরু নানকের ৫৫০ তম জন্মতিথিতে শিখ তীর্থযাত্রীদের জন্য কর্তারপুর সীমান্ত খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে পাকিস্তান সরকার। এই সীমান্ত পাক-পাঞ্জাব প্রদেশের নারোয়ালে অবস্থিত।

মূলত ভারতের পাঞ্জাব রাজ্যের মন্ত্রী নভজোৎ সিং সিধুর অনুরোধেই তিনি এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এদিকে তার এই সিদ্ধান্তে নভজোৎ সিং সিধু ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

জানা যায়, ইমরান খানের প্রধানমন্ত্রী পদে শপথ গ্রহণের অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন তাঁর ক্রিকেট জীবনের অন্যতম প্রতিদ্বন্দ্বী নভজোৎ সিং সিধু। নতুন পাক সরকারের কাছে সিধু অনুরোধ করেছিলেন গুরু নানকের জন্মতিথি উপলক্ষে ভারতীয় শিখ যাত্রীদের আরও সুবিধা দেওয়ার৷ সেই অনুরোধ রাখতেই ইমরান খানের এই সিদ্ধান্ত।
 
মন্ত্রী নভজোৎ সিং সিধু বলেছেন, ‘আমি আমার বন্ধু ইমরানকে ধন্যবাদ জানাই৷ পাঞ্জাবের মানুষের কাছে এর চেয়ে বেশী আনন্দের কিছু হতে পারে না। লক্ষ লক্ষ শিখের বহুদিনের স্বপ্ন ওই পুণ্যভূমি ঘুরে দেখার, অবশেষে তা পূর্ণ হতে চলেছে।’ তিনি আরও বলেন, ‘ধর্ম থেকে রাজনীতিকে সরিয়ে রেখে তাঁর এই সিদ্ধান্ত দুই দেশের দূরত্ব কমাতে সাহায্য করবে। এই প্রথম তীর্থ যাত্রায় সুযোগ পেলে আমিও সামিল হতে চাই। তিনি (ইমরান খান) আমার জীবন সার্থক করে দিয়েছেন’।
বিডিপ্রেস/আলী



এ সম্পর্কিত অন্যান্য খবর

BDpress

ধর্মীয় উৎসবে সীমান্ত খুলে ভারতের সঙ্গে সুসম্পর্কের পথে ইমরান


ধর্মীয় উৎসবে সীমান্ত খুলে ভারতের সঙ্গে সুসম্পর্কের পথে ইমরান

মূলত ভারতের পাঞ্জাব রাজ্যের মন্ত্রী নভজোৎ সিং সিধুর অনুরোধেই তিনি এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এদিকে তার এই সিদ্ধান্তে নভজোৎ সিং সিধু ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

জানা যায়, ইমরান খানের প্রধানমন্ত্রী পদে শপথ গ্রহণের অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন তাঁর ক্রিকেট জীবনের অন্যতম প্রতিদ্বন্দ্বী নভজোৎ সিং সিধু। নতুন পাক সরকারের কাছে সিধু অনুরোধ করেছিলেন গুরু নানকের জন্মতিথি উপলক্ষে ভারতীয় শিখ যাত্রীদের আরও সুবিধা দেওয়ার৷ সেই অনুরোধ রাখতেই ইমরান খানের এই সিদ্ধান্ত।
 
মন্ত্রী নভজোৎ সিং সিধু বলেছেন, ‘আমি আমার বন্ধু ইমরানকে ধন্যবাদ জানাই৷ পাঞ্জাবের মানুষের কাছে এর চেয়ে বেশী আনন্দের কিছু হতে পারে না। লক্ষ লক্ষ শিখের বহুদিনের স্বপ্ন ওই পুণ্যভূমি ঘুরে দেখার, অবশেষে তা পূর্ণ হতে চলেছে।’ তিনি আরও বলেন, ‘ধর্ম থেকে রাজনীতিকে সরিয়ে রেখে তাঁর এই সিদ্ধান্ত দুই দেশের দূরত্ব কমাতে সাহায্য করবে। এই প্রথম তীর্থ যাত্রায় সুযোগ পেলে আমিও সামিল হতে চাই। তিনি (ইমরান খান) আমার জীবন সার্থক করে দিয়েছেন’।
বিডিপ্রেস/আলী