BDpress

ধলেশ্বরী নদীর তীর থেকে দেখা যাবে বিশ্ব

জেলা প্রতিবেদক

অ+ অ-
ধলেশ্বরী নদীর তীর থেকে দেখা যাবে বিশ্ব
মুন্সীগঞ্জের ধলেশ্বরী নদীর তীরে মনোরম পরিবেশে ‘পিপিআইএমএসসি’ লাইব্রেরি উদ্বোধন করা হয়েছে। সোমবার দুপুর ১২টার দিকে সদরের নয়াগাঁও এলাকার ধলেশ্বরী নদীর তীরে এ লাইব্রেরি উদ্বোধন করা হয়।

প্রয়াত রাষ্ট্রপতি ইয়াজউদ্দিন আহম্মেদ রেসিডেন্সিয়াল মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজের নিজস্ব অর্থায়নে নির্মিত লাইব্রেরিটি উদ্বোধন করেন প্রতিষ্ঠানের পরিচালনা পরিষদের সভাপতি ও জেলা প্রশাসক সায়লা ফারজানা। মনোরম পরিবেশে বই পাঠের সুযোগ করে দেয়ার লক্ষ্যে প্রায় ৫ হাজার বই নিয়ে যাত্রা শুরু করে লাইব্রেরিটি।

অধ্যক্ষ মেজর গাজী মোহাম্মদ তাওহিদুজ্জামানের সভাপতিত্বে এ সময় বক্তব্য রাখেন- সিভিল সার্জন ডা. মো. হাবিবুর রহমান, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক ও শিক্ষা) এইচ এম রকিব হায়দার, জেলা পুলিশের এএসপি রাজিব আহম্মেদ, সরকারি হরগংগা কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ প্রবীর কুমার গাঙ্গুলী, দৈনিক সভ্যতার আলোর সম্পাদক মীর নাসির উদ্দিন উজ্জ্বল, দৈনিক নাগরিক সময় সম্পাদক তানভির হাসান ও মুন্সিগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ভবতোষ চৌধুরী নুপুর।

সম্পূর্ণ শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত লাইব্রেরির ইন্টেরিয়র ডিজাইন মনোমুগ্ধকর। যে কারোর নজড় কাড়বে লাইব্রেরির পরিবেশ। লাইব্রেরির অভ্যন্তরে শিশুদের জন্য উপদেশ ও প্রেরণামূলক বিভিন্ন বাণী অনুপ্রেরণা যোগাবে তাদের উন্নত ভবিষ্যৎ গড়ে তুলতে। আধুনিক লাইব্রেরিতে থাকা মুক্তিযুদ্ধ ও বঙ্গবন্ধু নামে একটি বই পড়ার কর্নার রয়েছে। যার মাধ্যমে কোমলমতি শিক্ষার্থীরা মুক্তিযুদ্ধ ও বঙ্গবন্ধুর সঠিক ইতিহাস জানতে পারবে। শিশু শিক্ষার্থীদের কথা চিন্তা করে লাইব্রেরির একাংশে শিশুদের ব্যবহার উপযোগী চেয়ার-টেবিল রাখা হয়েছে।

এছাড়া রাখা হয়েছে ইন্টারনেট সুবিধা। যার মাধ্যমে দেশ-বিদেশের বিভিন্ন খবরাখবর সহজেই জানতে পারবে। দেখা যাবে বিশ্ব। অন্যান্য লাইব্রেরির সঙ্গে সংযোগ করা যাবে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলা একাডেমি, পাবলিক লাইব্রেরিসহ আন্তর্জাতিক লাইব্রেরিতে রক্ষিত প্রাচীন ও মূল্যবান বইসমূহ অনলাইনে পড়তে পারবে। শিশু বয়স থেকেই পাঠ্যবইয়ের পাশপাশি লাইব্রেরিতে বই পড়ার অভ্যাস শিশুর ভবিষ্যৎ গঠনে ভূমিকা রাখবে বলে বক্তারা জানান।

প্রতিষ্ঠানটির অধ্যক্ষ মেজর গাজী মোহাম্মদ তাওহিদুজ্জামান বলেন, পাঠাগারে থাকেন রবীন্দ্র নাথ, নজরুল, শেক্সপিয়ার, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। এই বরেণ্য মানুষদের জানতে এবং তাদের আদর্শে নিজেদেরকে আলোকিত করতে পাঠাগারের কোনো বিকল্প নেই। প্রাতিষ্ঠানিক লেখাপড়ার পাশাপাশি এই পাঠাগার পাঠকের চেতনা ও জ্ঞানকে শাণিত করবে। আধুনিক নবনির্মিত লাইব্রেরিটি শিক্ষার্থীদের জ্ঞান অর্জনে সফলভাবে ভূমিকা রাখবে।

জেলা প্রশাসক সায়লা ফারজানা বলেন, ধলেশ্বরী নদীর তীরে নির্মিত লাইব্রেরিতে শিক্ষার্থীরা পাঠ্যবইয়ের পাশাপাশি অন্যান্য বই পড়ে আলোকিত মানুষ হিসেবে গড়ে উঠবে।

বিডিপ্রেস/আরজে

এ সম্পর্কিত অন্যান্য খবর

BDpress

ধলেশ্বরী নদীর তীর থেকে দেখা যাবে বিশ্ব


ধলেশ্বরী নদীর তীর থেকে দেখা যাবে বিশ্ব

প্রয়াত রাষ্ট্রপতি ইয়াজউদ্দিন আহম্মেদ রেসিডেন্সিয়াল মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজের নিজস্ব অর্থায়নে নির্মিত লাইব্রেরিটি উদ্বোধন করেন প্রতিষ্ঠানের পরিচালনা পরিষদের সভাপতি ও জেলা প্রশাসক সায়লা ফারজানা। মনোরম পরিবেশে বই পাঠের সুযোগ করে দেয়ার লক্ষ্যে প্রায় ৫ হাজার বই নিয়ে যাত্রা শুরু করে লাইব্রেরিটি।

অধ্যক্ষ মেজর গাজী মোহাম্মদ তাওহিদুজ্জামানের সভাপতিত্বে এ সময় বক্তব্য রাখেন- সিভিল সার্জন ডা. মো. হাবিবুর রহমান, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক ও শিক্ষা) এইচ এম রকিব হায়দার, জেলা পুলিশের এএসপি রাজিব আহম্মেদ, সরকারি হরগংগা কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ প্রবীর কুমার গাঙ্গুলী, দৈনিক সভ্যতার আলোর সম্পাদক মীর নাসির উদ্দিন উজ্জ্বল, দৈনিক নাগরিক সময় সম্পাদক তানভির হাসান ও মুন্সিগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ভবতোষ চৌধুরী নুপুর।

সম্পূর্ণ শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত লাইব্রেরির ইন্টেরিয়র ডিজাইন মনোমুগ্ধকর। যে কারোর নজড় কাড়বে লাইব্রেরির পরিবেশ। লাইব্রেরির অভ্যন্তরে শিশুদের জন্য উপদেশ ও প্রেরণামূলক বিভিন্ন বাণী অনুপ্রেরণা যোগাবে তাদের উন্নত ভবিষ্যৎ গড়ে তুলতে। আধুনিক লাইব্রেরিতে থাকা মুক্তিযুদ্ধ ও বঙ্গবন্ধু নামে একটি বই পড়ার কর্নার রয়েছে। যার মাধ্যমে কোমলমতি শিক্ষার্থীরা মুক্তিযুদ্ধ ও বঙ্গবন্ধুর সঠিক ইতিহাস জানতে পারবে। শিশু শিক্ষার্থীদের কথা চিন্তা করে লাইব্রেরির একাংশে শিশুদের ব্যবহার উপযোগী চেয়ার-টেবিল রাখা হয়েছে।

এছাড়া রাখা হয়েছে ইন্টারনেট সুবিধা। যার মাধ্যমে দেশ-বিদেশের বিভিন্ন খবরাখবর সহজেই জানতে পারবে। দেখা যাবে বিশ্ব। অন্যান্য লাইব্রেরির সঙ্গে সংযোগ করা যাবে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলা একাডেমি, পাবলিক লাইব্রেরিসহ আন্তর্জাতিক লাইব্রেরিতে রক্ষিত প্রাচীন ও মূল্যবান বইসমূহ অনলাইনে পড়তে পারবে। শিশু বয়স থেকেই পাঠ্যবইয়ের পাশপাশি লাইব্রেরিতে বই পড়ার অভ্যাস শিশুর ভবিষ্যৎ গঠনে ভূমিকা রাখবে বলে বক্তারা জানান।

প্রতিষ্ঠানটির অধ্যক্ষ মেজর গাজী মোহাম্মদ তাওহিদুজ্জামান বলেন, পাঠাগারে থাকেন রবীন্দ্র নাথ, নজরুল, শেক্সপিয়ার, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। এই বরেণ্য মানুষদের জানতে এবং তাদের আদর্শে নিজেদেরকে আলোকিত করতে পাঠাগারের কোনো বিকল্প নেই। প্রাতিষ্ঠানিক লেখাপড়ার পাশাপাশি এই পাঠাগার পাঠকের চেতনা ও জ্ঞানকে শাণিত করবে। আধুনিক নবনির্মিত লাইব্রেরিটি শিক্ষার্থীদের জ্ঞান অর্জনে সফলভাবে ভূমিকা রাখবে।

জেলা প্রশাসক সায়লা ফারজানা বলেন, ধলেশ্বরী নদীর তীরে নির্মিত লাইব্রেরিতে শিক্ষার্থীরা পাঠ্যবইয়ের পাশাপাশি অন্যান্য বই পড়ে আলোকিত মানুষ হিসেবে গড়ে উঠবে।

বিডিপ্রেস/আরজে