BDpress

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষায় নিষিদ্ধ হলো যা কিছু

নিজস্ব প্রতিবেদক

অ+ অ-
মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষায় নিষিদ্ধ হলো যা কিছু
২০১৮-২০১৯ শিক্ষাবর্ষে মেডিকেল কলেজে এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষায় মোবাইল, ক্যালকুলেটর, ঘড়ি, মেটালিক কলমসহ যেকোনো ধরনের ইলেকট্রনিক ডিভাইস আনা নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) হেডকোয়ার্টার্সে মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা গ্রহণকারী সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে এক সমন্বয় সভা হয়। সভায় এগুলো বহন নিষিদ্ধ ঘোষণা করেন ডিএমপি কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়া।

আগামী ৫ অক্টোবর সকাল ১০ টায় এই পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। ভর্তি পরীক্ষায় ৩৪ হাজার ৭৪০ জন শিক্ষার্থীর অংশ নেয়ার কথা।

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা স্বচ্ছ ও সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে পরীক্ষার দিন শিক্ষার্থীদের সঙ্গে অভিভাবকরা পরীক্ষার কেন্দ্রের ভেতরে, পাশে অবস্থান ও ক্যাম্পাসে পরীক্ষার্থী ব্যতীত অভিভাবকদের প্রবেশে সভায় নিষেধাজ্ঞার কথা বলা হয়েছে।

সভায় সভাপতির বক্তব্যে ডিএমপি কমিশনার বলেন, দেশের মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা সম্মিলিতভাবে হয়ে থাকে। ডিএমপি অতীতে যেভাবে ভর্তি পরীক্ষায় সহযোগিতা করেছে বর্তমানে ও ভবিষ্যতেও করবে।

এ সময় ভর্তি পরীক্ষা নিয়ে যাতে কেউ কোনো প্রকার গুজব বা প্রোপাগান্ডা ছড়িয়ে দেশের জনশঙ্খলা বিঘ্ন করতে না পারে সেদিকে সকলের কঠোর নজরদারি রাখার আহ্বান জানান তিনি।

সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, প্রতিটি কেন্দ্রে থাকবে পর্যাপ্ত পুলিশ ও মোবাইল কোর্ট। পরীক্ষার দিন সকাল সাড়ে ৮ টায় কেন্দ্র খুলে দেয়া হবে। কোনো অবস্থায় সকাল সাড়ে ৯ টার পরে কেন্দ্রে প্রবেশ করতে দেয়া হবে না। কেন্দ্র ইনচার্জ ছাড়া কেউ মোবাইলফোন কাছে রাখতে পারবেন না। কেন্দ্র ইনচার্জকে দেয়া হবে অ্যানালগ মোবাইল ফোন। পরীক্ষা কেন্দ্রে প্রবেশের সময় সকল পরীক্ষার্থীর দেহ তল্লাশি করে প্রবেশ করানো হবে।

সমন্বয় সভায় শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক এবিএম মাকসুদুল আলম, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. এ কে এম গোলাম রব্বানীসহ ভর্তি পরীক্ষার কেন্দ্রের প্রতিনিধি, ডিএমপির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং গোয়েন্দা সংস্থার প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

বিডিপ্রেস/আরজে

এ সম্পর্কিত অন্যান্য খবর

BDpress

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষায় নিষিদ্ধ হলো যা কিছু


মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষায় নিষিদ্ধ হলো যা কিছু

বৃহস্পতিবার ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) হেডকোয়ার্টার্সে মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা গ্রহণকারী সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে এক সমন্বয় সভা হয়। সভায় এগুলো বহন নিষিদ্ধ ঘোষণা করেন ডিএমপি কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়া।

আগামী ৫ অক্টোবর সকাল ১০ টায় এই পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। ভর্তি পরীক্ষায় ৩৪ হাজার ৭৪০ জন শিক্ষার্থীর অংশ নেয়ার কথা।

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা স্বচ্ছ ও সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে পরীক্ষার দিন শিক্ষার্থীদের সঙ্গে অভিভাবকরা পরীক্ষার কেন্দ্রের ভেতরে, পাশে অবস্থান ও ক্যাম্পাসে পরীক্ষার্থী ব্যতীত অভিভাবকদের প্রবেশে সভায় নিষেধাজ্ঞার কথা বলা হয়েছে।

সভায় সভাপতির বক্তব্যে ডিএমপি কমিশনার বলেন, দেশের মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা সম্মিলিতভাবে হয়ে থাকে। ডিএমপি অতীতে যেভাবে ভর্তি পরীক্ষায় সহযোগিতা করেছে বর্তমানে ও ভবিষ্যতেও করবে।

এ সময় ভর্তি পরীক্ষা নিয়ে যাতে কেউ কোনো প্রকার গুজব বা প্রোপাগান্ডা ছড়িয়ে দেশের জনশঙ্খলা বিঘ্ন করতে না পারে সেদিকে সকলের কঠোর নজরদারি রাখার আহ্বান জানান তিনি।

সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, প্রতিটি কেন্দ্রে থাকবে পর্যাপ্ত পুলিশ ও মোবাইল কোর্ট। পরীক্ষার দিন সকাল সাড়ে ৮ টায় কেন্দ্র খুলে দেয়া হবে। কোনো অবস্থায় সকাল সাড়ে ৯ টার পরে কেন্দ্রে প্রবেশ করতে দেয়া হবে না। কেন্দ্র ইনচার্জ ছাড়া কেউ মোবাইলফোন কাছে রাখতে পারবেন না। কেন্দ্র ইনচার্জকে দেয়া হবে অ্যানালগ মোবাইল ফোন। পরীক্ষা কেন্দ্রে প্রবেশের সময় সকল পরীক্ষার্থীর দেহ তল্লাশি করে প্রবেশ করানো হবে।

সমন্বয় সভায় শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক এবিএম মাকসুদুল আলম, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. এ কে এম গোলাম রব্বানীসহ ভর্তি পরীক্ষার কেন্দ্রের প্রতিনিধি, ডিএমপির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং গোয়েন্দা সংস্থার প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

বিডিপ্রেস/আরজে