BDpress

ফের সড়কে পোশাক শ্রমিকরা

বিডিপ্রেস ডেস্ক

অ+ অ-
ফের সড়কে পোশাক শ্রমিকরা
নতুন মজুরি কাঠামোর বাস্তবায়নসহ বিভিন্ন দাবিতে চতুর্থ দিনের মতো সড়কে নেমেছে পোশাক শ্রমিকরা। বুধবার (৯ জানুয়ারি) সকাল থেকেই রাজধানীর মিরপুরের কালশী এলাকার রাস্তায় অবস্থান করে বিক্ষোভ করছে তারা। এছাড়া, সাভার ও রাজধানীর দক্ষিণখান এলাকায় শ্রমিকদের জড়ো হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এসব এলাকায় বাড়তি পুলিশ সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে।

শ্রমিকদের অভিযোগ, তাদের জন্য সরকার ঘোষিত নতুন বেতন কাঠামো নির্ধারণ করলেও মালিকপক্ষ তা দিচ্ছে না। নতুন বেতনের দাবি জানালেও উল্টো হুমকি-ধমকি দেয় তারা।

পল্লবী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নজরুল ইসলাম জানান, সকাল থেকেই কালশী ২২তলা গার্মেন্টসের সামনে শ্রমিকরা জড়ো হতে থাকেন। এরপর মূল সড়কে অবস্থান নিয়ে তারা বিক্ষোভ করছেন। শ্রমিকদের বিক্ষোভের কারণে সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে।

আলোচনার মাধ্যমে পুলিশ পরিস্থিতি স্বাভাবিক করার চেষ্টা করছে বলেও জানান ওসি নজরুল ইসলাম।

এদিকে বুধবারও সভার ও আশুলিয়ায় তৈরি পোশাকশিল্পের শ্রমিকরা রাস্তায় নামার চেষ্টা করেন। তবে পুলিশ তাঁদের রাস্তা থেকে সরিয়ে দিয়েছে।

এদিকে, শ্রমিক বিক্ষোভের মুখে সাভার ও আশুলিয়ায় চারটি পোশাক কারখানা অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করেছে মালিকপক্ষ। সকালে সাভারের উলাইলের গেণ্ডা এলাকায় একটি তৈরি পোশাক কারখানার শ্রমিকরা রাস্তায় বিক্ষোভের চেষ্টা করলে পুলিশ তাঁদের বুঝিয়ে রাস্তা থেকে সরিয়ে দেয়। শ্রমিকদের এ আন্দোলন টানা চতুর্থ দিনে গড়াল।

অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ কারখানাগুলো হলো সাভারের উলাইল ও হেমায়েতপুরের বাগবাড়ী এলাকায় স্ট্যান্ডার্ড গ্রুপের তিনটি ও আশুলিয়ার চারাবাগ এলাকার মেট্রো নিটিং অ্যান্ড ডাইং লিমিটেড।

এ বিষয়ে শিল্প পুলিশ-১-এর পরিচালক শানা শামীনুর রহমান বলেন, পোশাক কারখানাগুলোতে কাজের গতি ফিরিয়ে আনার জন্য পুলিশ মালিকপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে যাচ্ছে।
বিডিপ্রেস/আলী

এ সম্পর্কিত অন্যান্য খবর

BDpress

ফের সড়কে পোশাক শ্রমিকরা


ফের সড়কে পোশাক শ্রমিকরা

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এসব এলাকায় বাড়তি পুলিশ সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে।

শ্রমিকদের অভিযোগ, তাদের জন্য সরকার ঘোষিত নতুন বেতন কাঠামো নির্ধারণ করলেও মালিকপক্ষ তা দিচ্ছে না। নতুন বেতনের দাবি জানালেও উল্টো হুমকি-ধমকি দেয় তারা।

পল্লবী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নজরুল ইসলাম জানান, সকাল থেকেই কালশী ২২তলা গার্মেন্টসের সামনে শ্রমিকরা জড়ো হতে থাকেন। এরপর মূল সড়কে অবস্থান নিয়ে তারা বিক্ষোভ করছেন। শ্রমিকদের বিক্ষোভের কারণে সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে।

আলোচনার মাধ্যমে পুলিশ পরিস্থিতি স্বাভাবিক করার চেষ্টা করছে বলেও জানান ওসি নজরুল ইসলাম।

এদিকে বুধবারও সভার ও আশুলিয়ায় তৈরি পোশাকশিল্পের শ্রমিকরা রাস্তায় নামার চেষ্টা করেন। তবে পুলিশ তাঁদের রাস্তা থেকে সরিয়ে দিয়েছে।

এদিকে, শ্রমিক বিক্ষোভের মুখে সাভার ও আশুলিয়ায় চারটি পোশাক কারখানা অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করেছে মালিকপক্ষ। সকালে সাভারের উলাইলের গেণ্ডা এলাকায় একটি তৈরি পোশাক কারখানার শ্রমিকরা রাস্তায় বিক্ষোভের চেষ্টা করলে পুলিশ তাঁদের বুঝিয়ে রাস্তা থেকে সরিয়ে দেয়। শ্রমিকদের এ আন্দোলন টানা চতুর্থ দিনে গড়াল।

অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ কারখানাগুলো হলো সাভারের উলাইল ও হেমায়েতপুরের বাগবাড়ী এলাকায় স্ট্যান্ডার্ড গ্রুপের তিনটি ও আশুলিয়ার চারাবাগ এলাকার মেট্রো নিটিং অ্যান্ড ডাইং লিমিটেড।

এ বিষয়ে শিল্প পুলিশ-১-এর পরিচালক শানা শামীনুর রহমান বলেন, পোশাক কারখানাগুলোতে কাজের গতি ফিরিয়ে আনার জন্য পুলিশ মালিকপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে যাচ্ছে।
বিডিপ্রেস/আলী