BDpress

৪৫০ মিলিয়ন ডলারে বিক্রি হল মোনালিসা

বিডিপ্রেস ডেস্ক

অ+ অ-
৪৫০ মিলিয়ন ডলারে বিক্রি হল মোনালিসা
ইতালিয় রেনেসাঁসের প্রাণপুরুষ লিওনার্দো দা ভিঞ্চির প্রখ্যাত পেন্টিং ‘সালভাতোর মুন্ডি’ বিক্রি হল ৪৫০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যে। এই ছবিটিই এখন পর্যন্ত বিক্রিত পেন্টিংগুলির মধ্যে মহার্ঘ্যতম।

এটি একটি বিশ্ব রেকর্ড। লিওনার্দো দা ভিঞ্চির হাতে আকা কোনও ছবি যে মহামূল্যবান, সে বিষয়ে কোন সন্দেহ থাকতে পারে না। কিন্তু ‘সালভাতোর মুন্ডি’-র এই বিপুল দাম স্তব্ধ করে দিয়েছে শিল্পরসিকদের।

এই ছবির ইতিহাস সম্পর্কে যা জানা যাচ্ছে, তাতে কাহিনি-কিংবদন্তির মিশেল যথেষ্ট। অনুমান করা হয়, ফরাসি রাজ দ্বাদশ লুই ভিঞ্চিকে এই ছবিটির বরাত দিয়েছিলেন এবং পরে এই ছবি শোভা পেয়েছিল ইংল্যান্ডের রাজা প্রথম চার্লসের কক্ষে। ১৮ শতকে ছবিটি হারিয়ে যায়। আবার বিংশ শতকে এটির হদিশ পাওয়া সম্ভব হয়। ক্রিস্টি’জ-এর নিলামে ছবিটি বিক্রি করেন রুশ ব্যবসায়ী ডিমিট্রি রিবোলোভ্লেভ। কিন্তু ছবিটি কে কিনেছেন, সেটি জানা যায়নি।

২০ মিনিটের হাড্ডাহাড্ডি দর কষাকষির পরে ৪৫.৪ x ৬৫.৬ সেন্টিমিটার মাপের ছবিটি বিক্রি হয়। ওয়ালনাট প্লাকের উপরে তেলরংয়ে আঁকা এই ছবিটি জিশু খ্রিস্টের একটি বিশেষ রূপের। ‘সালভাতোর মুন্ডি’ শব্দবন্ধটির অর্থ ‘বিশ্বের ত্রাণকর্তা’। জিশুর হাতের একটি বিশেষ ভঙ্গি এই রূপটির বিশেষত্ব। অন্য হাতে জিশু এখানে একটি গোলক ধরে থাকেন, যা বিশ্বের প্রতীক। রূপটির মরমি তাৎপর্য বিপুল।

 যে অজ্ঞাত পরিচয় ব্যক্তি এই ছবিকে ৪৫০ মিলিয়ন মার্কিন ডলারে কিনলেন, তিনি নিছক শিল্পবস্তু হিসেবে এটিকে সম্ভবত কেনেননি। ভিঞ্চি, তার কোড, সেই কোডের সঙ্গে জড়িয়ে থাকা চিররহস্যের ইঙ্গিত আর সেই সঙ্গে পাঁচ শতকের ইতিহাস এই ছবির সঙ্গে জড়িত। সেদিক থেকে দেখলে ৪৫০ মিলিয়ন ডলারকে সস্তাই বলা যায়।    
বিডিপ্রেস/আলী


এ সম্পর্কিত অন্যান্য খবর

BDpress

৪৫০ মিলিয়ন ডলারে বিক্রি হল মোনালিসা


৪৫০ মিলিয়ন ডলারে বিক্রি হল মোনালিসা

এটি একটি বিশ্ব রেকর্ড। লিওনার্দো দা ভিঞ্চির হাতে আকা কোনও ছবি যে মহামূল্যবান, সে বিষয়ে কোন সন্দেহ থাকতে পারে না। কিন্তু ‘সালভাতোর মুন্ডি’-র এই বিপুল দাম স্তব্ধ করে দিয়েছে শিল্পরসিকদের।

এই ছবির ইতিহাস সম্পর্কে যা জানা যাচ্ছে, তাতে কাহিনি-কিংবদন্তির মিশেল যথেষ্ট। অনুমান করা হয়, ফরাসি রাজ দ্বাদশ লুই ভিঞ্চিকে এই ছবিটির বরাত দিয়েছিলেন এবং পরে এই ছবি শোভা পেয়েছিল ইংল্যান্ডের রাজা প্রথম চার্লসের কক্ষে। ১৮ শতকে ছবিটি হারিয়ে যায়। আবার বিংশ শতকে এটির হদিশ পাওয়া সম্ভব হয়। ক্রিস্টি’জ-এর নিলামে ছবিটি বিক্রি করেন রুশ ব্যবসায়ী ডিমিট্রি রিবোলোভ্লেভ। কিন্তু ছবিটি কে কিনেছেন, সেটি জানা যায়নি।

২০ মিনিটের হাড্ডাহাড্ডি দর কষাকষির পরে ৪৫.৪ x ৬৫.৬ সেন্টিমিটার মাপের ছবিটি বিক্রি হয়। ওয়ালনাট প্লাকের উপরে তেলরংয়ে আঁকা এই ছবিটি জিশু খ্রিস্টের একটি বিশেষ রূপের। ‘সালভাতোর মুন্ডি’ শব্দবন্ধটির অর্থ ‘বিশ্বের ত্রাণকর্তা’। জিশুর হাতের একটি বিশেষ ভঙ্গি এই রূপটির বিশেষত্ব। অন্য হাতে জিশু এখানে একটি গোলক ধরে থাকেন, যা বিশ্বের প্রতীক। রূপটির মরমি তাৎপর্য বিপুল।

 যে অজ্ঞাত পরিচয় ব্যক্তি এই ছবিকে ৪৫০ মিলিয়ন মার্কিন ডলারে কিনলেন, তিনি নিছক শিল্পবস্তু হিসেবে এটিকে সম্ভবত কেনেননি। ভিঞ্চি, তার কোড, সেই কোডের সঙ্গে জড়িয়ে থাকা চিররহস্যের ইঙ্গিত আর সেই সঙ্গে পাঁচ শতকের ইতিহাস এই ছবির সঙ্গে জড়িত। সেদিক থেকে দেখলে ৪৫০ মিলিয়ন ডলারকে সস্তাই বলা যায়।    
বিডিপ্রেস/আলী