BDpress

বাংলাদেশের কোথাও হ্যাকিং হলে ধরতে পারবো: জয়

নিজস্ব প্রতিবেদক

অ+ অ-
বাংলাদেশের কোথাও হ্যাকিং হলে ধরতে পারবো: জয়
এখন থেকে বাংলাদেশের কোথাও হ্যাকিং হলে আমরা তা ধরতে পারবো। বললেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়। বৃহস্পতিবার রাজধানীর আগারগাঁওয়ের আইসিটি টাওয়ারে স্থাপিত স্টার্টআপ বাংলাদেশের অ্যাকসেলেটার ও দুইটি ল্যাব উদ্বোধন অনুষ্ঠানে একথা বলেন তিনি।

সজীব ওয়াজেদ জয় বলেন, এই স্টার্টআপ বাংলাদেশের অ্যাকসেলেটার এবং বিশেষায়িত ল্যাব উদ্বোধনের মাধ্যমে ডিজিটাল প্রযুক্তিতে আরেক ধাপ এগিয়ে গেল বাংলাদেশ। সরকারের ক্রিটিক্যাল অবকাঠামোগুলো আমরা মনিটর করতে পারছি।

তিনি আক্ষেপ করে বলেন, এই সিস্টেম কয়েক বছর আগে চালু করা গেলে বাংলাদেশ ব্যাংকে হ্যাকিংয়ের ঘটনা রোধ করা যেত।

এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তিমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সচিব জুনেয়া আজিজ এবং বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের নির্বাহী পরিচালক পার্থপ্রতিম দেব।

ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, স্টার্টআপ বাংলাদেশের অ্যাকসেলেটার ও ল্যাব স্থাপন করেছে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের আওতাধীন বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল।

আরও বলা হয়েছে, এটি হলো দেশের প্রথম আন্তর্জাতিক মানের সফটওয়্যারের কোয়ালিটি টেস্টিং ও সার্টিফিকেশন সেন্টার এবং আগামী ২০২১ সালের মধ্যে দেশে এক হাজার উদ্ভাবনী পণ্য বা সেবা সৃষ্টির উদ্দেশ্যে স্টার্টআপদের জন্য সরকারের প্রথম অ্যাকসেলেটার এবং কম্পিউটার ইনসিডেন্ট রেসপন্স টিম ল্যাব।

সফটওয়্যারের কোয়ালিটি টেস্টিং ও সার্টিফিকেশন সেন্টার স্থাপনের মাধ্যমে দেশের সরকারি পর্যায়ে উন্নয়ন ও কেনা সফটওয়্যার, মোবাইল অ্যাপস, কম্পিউটার হার্ডওয়্যার ইত্যাদির মান পরীক্ষা করার সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। এই সেন্টারে সফটওয়্যার ও হার্ডওয়্যার পরীক্ষা করার জন্য আন্তর্জাতিক মানের টেস্টিং সফটওয়্যার আছে বলেও বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়।

বিডিপ্রেস/আরজে

এ সম্পর্কিত অন্যান্য খবর

BDpress

বাংলাদেশের কোথাও হ্যাকিং হলে ধরতে পারবো: জয়


বাংলাদেশের কোথাও হ্যাকিং হলে ধরতে পারবো: জয়

সজীব ওয়াজেদ জয় বলেন, এই স্টার্টআপ বাংলাদেশের অ্যাকসেলেটার এবং বিশেষায়িত ল্যাব উদ্বোধনের মাধ্যমে ডিজিটাল প্রযুক্তিতে আরেক ধাপ এগিয়ে গেল বাংলাদেশ। সরকারের ক্রিটিক্যাল অবকাঠামোগুলো আমরা মনিটর করতে পারছি।

তিনি আক্ষেপ করে বলেন, এই সিস্টেম কয়েক বছর আগে চালু করা গেলে বাংলাদেশ ব্যাংকে হ্যাকিংয়ের ঘটনা রোধ করা যেত।

এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তিমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সচিব জুনেয়া আজিজ এবং বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের নির্বাহী পরিচালক পার্থপ্রতিম দেব।

ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, স্টার্টআপ বাংলাদেশের অ্যাকসেলেটার ও ল্যাব স্থাপন করেছে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের আওতাধীন বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল।

আরও বলা হয়েছে, এটি হলো দেশের প্রথম আন্তর্জাতিক মানের সফটওয়্যারের কোয়ালিটি টেস্টিং ও সার্টিফিকেশন সেন্টার এবং আগামী ২০২১ সালের মধ্যে দেশে এক হাজার উদ্ভাবনী পণ্য বা সেবা সৃষ্টির উদ্দেশ্যে স্টার্টআপদের জন্য সরকারের প্রথম অ্যাকসেলেটার এবং কম্পিউটার ইনসিডেন্ট রেসপন্স টিম ল্যাব।

সফটওয়্যারের কোয়ালিটি টেস্টিং ও সার্টিফিকেশন সেন্টার স্থাপনের মাধ্যমে দেশের সরকারি পর্যায়ে উন্নয়ন ও কেনা সফটওয়্যার, মোবাইল অ্যাপস, কম্পিউটার হার্ডওয়্যার ইত্যাদির মান পরীক্ষা করার সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। এই সেন্টারে সফটওয়্যার ও হার্ডওয়্যার পরীক্ষা করার জন্য আন্তর্জাতিক মানের টেস্টিং সফটওয়্যার আছে বলেও বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়।

বিডিপ্রেস/আরজে